আহমদ শফি’র বক্তৃতার প্রেক্ষিতে

toranto
Muslims Facing Tomorrow
Address:
Suite 1704, 40 Richview Road
Toronto, ON M9A 5C1 Canada

উইমেন চ্যাপ্টার: আমরা ইউটিউবে অত্যন্ত  বিতৃষ্ণার সাথে নারী সম্পর্কে আহমাদ শফি’র বক্তৃতা দেখেছি।  তাঁকে তাঁর সমর্থকেরা ইসলামের উঁচু পর্যায়ের বিশেষজ্ঞ মনে করেন, তিনি কওমী মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের  চেয়ারম্যান, হেফাজত-এ ইসলাম বাংলাদেশে-এর আমীর ও একটি মাদ্রাসার পরিচালক। কিন্তু তাঁর বক্তৃতা শুনে রসুল (স:)-এর উদ্বেগ মনে পড়েছে, “ইসলাম শুরু করার সময় ছিল অপরিচিত, ইসলাম আবারো অপরিচিত হয়ে যাবে”।  তাঁর বক্তৃতায় রসুলের এই সতর্কবাণী সুস্পষ্টভাবে প্রতিফলিত হয়েছে।  স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, ইসলামে নারীর অবস্থান ও ইসলামের বাণী সম্পর্কে তাঁর কোনো ধারণাই নেই।

কোরান নারী-পুরুষকে সমান অংশীদার করেছে। দুজনেরই সৃষ্টি একই  উৎস থেকে, কেউ কারো চেয়ে উৎকৃষ্ট নয় এবং সমাজ ও পরিবারের মঙ্গলের জন্য দুজনেরই সমান দায়িত্ব রয়েছে। তাঁর উদ্ভট দৃষ্টিতে পুরুষের চেয়ে নারী নিকৃষ্ট ও সামাজিক ব্যাধির উৎস। কোরান যেখানে পুরুষের সাথে নারীরকেও “মু’মিনাত” ও “মুসলিমাত” বলে সম্বোধন করেছে, শফি সেখানে নারীকে হীনভাবে তেঁতুল বানিয়েছেন, যা পুরুষকে ব্যভিচারে প্রলুব্ধ করে। সুরা নিসা নাজিলই হয়েছে নারীর ওপরে; সেই সমাজের পরিপ্রেক্ষিতে নারীর অবস্থান উন্নত করেছে যেখানে আগে গোত্রীয় সমাজে শিশুকন্যাকে মেরে ফেলা হত। এর শ্বাশ্বত বাণী হলো যুগে যুগে নারীর উন্নত করে পুরুষের সমান করতে হবে। এর অর্থ হল সময়ের বিবর্তনে নুতন নুতন পরিস্থিতিতে অবশ্যই নারীর অধিকার পুরুষের সমান করে হবে কারণ এভাবেই সমাজের কল্যাণ ও অগ্রগতি নিশ্চিত হবে।

কিন্তু শফি’র বক্তৃতা কোরানের শিক্ষার বিপরীত। তিনি নারীশিক্ষার নিন্দা করেছেন, পেশাজীবী নারীরা সমাজে উস্কানী দিয়ে ব্যভিচার ছড়ায় বলে অপমান করেছেন, এবং নারীকে গৃহবন্দী করার দাবী করেছেন। তিনি নারীর ক্ষমতায়নের বিরোধী, বাইরে নারীর উপস্থিতি নিয়ে ক্রুদ্ধ হয়েছেন, এবং তিনি বলেছেন নারীর একমাত্র কাজ হলো পুরুষের স্বার্থ রক্ষা করা ও সন্তান পালন করা। এটা সুস্পষ্ট যে কোরান ও রসুলের ঐতিহ্য সম্পর্কে শফির জ্ঞানের অভাব রয়েছে।  তাঁর কথায় প্রতিফলিত হয়নি নবুয়ত পাবার আগে পরে বিবি খাদিজা’র শক্তি, প্রজ্ঞা ও সম্পদের ওপরে রসুল (স:) কি বিপুলভাবে নির্ভর করেছেন।  স্বনির্ভর নারী হিসেবে বিবি খাদিজার উদাহরণ থেকে সর্বত্র সর্বকাল শিক্ষা নিতে হবে।  দরিদ্র ও পশ্চাদপদ জাতির জন্য এ শিক্ষা আরো প্রয়োজনীয় যে, শক্তিশালী ও স্বনির্ভর নারীরা পরিবার ও সমাজের অগ্রগতির শক্তির উৎস যে সমাজে নারী-পুরুষ সমান সম্মান ও অধিকার নিয়ে সন্তানদের গড়ে তোলে।

কোরানে যে নারীকে ইসলামের প্রতি ঘৃণার জন্য নিন্দা করা হয়েছে সে হল রসুলের দুই শত্রু চাচা আবু লাহাবের স্ত্রী ও আবু সুফিয়ানের বোন।  ইসলামের মুখোশে আহমাদ শফি এ যুগের আবু লাহাব।  এদের জন্যই মুসলিম সমাজের একটা অংশ এখন এত অজ্ঞ, এত পশ্চাদপদ ও এত জঙ্গী। এদের জন্যই রসুলের পরে যুগে যুগে মুসলিম উম্মাহ’র অধ:পতন হয়েছে যার সতর্কবাণী তিনি করেছিলেন।  আহমাদ শফি শঠ এবং অজ্ঞ  দুটোই।  বাংলাদেশের ভেতরে-বাইরে প্রতিটি বিবেকবান মানুষের উচিত তাঁকে সম্পূর্ণ বর্জন করা।

লেখক পরিচিতি: রাহিল রাজা ও ড. সলিম মনসুর, যথাক্রমে প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট, মুসলিম’স ফেসিং টুমরো

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Praise be to Allaah (SWT),
the divine one Merciful, Sustainer, Owner of the Day of Judgement

Firstly: This word – equality – which many thinkers in both
the east and the west advocate in various fields of life is a word which is
based on deviation and a lack of understanding, especially when the speaker
attributes this idea of equality to the Qur’an and to Islam. One of the
things that people misunderstand is when they say that “Islam is the religion
of equality”. What they should say is that “Islam
is the religion of justice”.

What is the difference between male and female?’ So they made
males and females the same, and then the Communists
said, ‘What difference is there between ruler and subject? No one has any
authority over anyone else, not even fathers and sons; the father has no
authority over his son,’ and so on.

But if we say justice, which means giving each one that to which
he or she is entitled, this misunderstanding no longer applies, and the word
used is correct. Hence it does not say in the Qur’an that Allah enjoins
equality, rather it says (interpretation of the meaning):

“Verily, Allaah enjoins Al‑‘Adl (i.e. justice)” [al-Nahl
16:90] “and that when you judge between men, you judge with justice”
[al-Nisa’ 4:58] Those
who say that Islam is the religion of equality are lying against Islam. Rather
Islam is the religion of justice which means treating equally those who are
equal and differentiating between those who are different.

Qur’an denies equality, as in the following verses:

‘Say: Are those who know equal to those who know not?” –
[al-Zumar 39:9]

‘Say: Is the blind equal to the one who sees? Or darkness equal
to light?’[al-Ra’d 13:16]

‘Not equal among you are those who spent and fought before the
conquering (of Makkah, with those among you who did so later’ [al-Hadeed
57:10]

‘Not equal are those of the believers who sit (at home), except
those who are disabled (by injury or are blind or lame), and those who strive
hard and fight in the Cause of Allaah with their wealth and their live’ [al-Nisa’
4:95]

Not one single
letter in the Qur’aan enjoins equality, rather it enjoins justice. You will
also find that the word justice is acceptable to people, for I feel that if I
am better than this man in terms of knowledge, or wealth, or piety, or in doing
good, I would not like for him to be equal to me.

Every man knows
that he find it unacceptable if we say that the male is equal to the
female.”

Based on this,
Islam does not regard men and women as equal in matters where regarding them as
equal would result in injustice to one of them, because equality that is
inappropriate is a severe form of injustice.

The Qur’an
commands women to wear clothes that are different from those worn by men,
because of the differences in the ways each sex is tempted by the other. The
temptation posed by men is less than the temptation posed by women, so the
clothes that women should wear are different than the clothes that men wear. It
makes no sense to tell women to expose the parts of the body that men are allowed
to expose, because of the differences in the temptation posed by a woman’s body
and a man’s body – as we shall explain.

Secondly: There are matters in which men and women are treated
differently in Islamic sharee’ah, such as: 1 – Qiwaamah (being in charge
of the household)

Allaah says (interpretation of the meaning): “Men are the
protectors and maintainers of women, because Allah has made one of them to
excel the other, and because they spend (to support them) from their means” -[al-Nisa’
4:34]

Ibn Katheer (may Allah have mercy on him) said:

“Allaah says ‘Men are the protectors and maintainers of women’
meaning that the man is in charge of the woman, i.e., he is the leader and head
of the household, the one who disciplines her if she goes astray. ‘because
Allah has made one of them to excel the other’ i.e., because men are superior
to women and are better than women. Hence Prophethood was given only to
men, as was the position of khaleefah, because the Prophet (peace and blessings
of Allah be upon him) said, ‘No people shall ever prosper who appoint a woman
as their ruler.’ This was narrated by al-Bukhaari from the hadeeth of ‘Abd
al-Rahmaan ibn Abi Bakrah from his father. The same applies to the position of
qaadi (judge), etc.

‘And because they spend (to support them) from their means’
refers to the mahr and the spending on women’s maintenance that Allah has
enjoined upon men in His Book and in the Sunnah of His Prophet (peace and
blessings of Allah be upon him). So a man is inherently better than a woman,
and he is superior to her because he spends on her. So it is appropriate that
he should be in charge of her, as Allah
says, ‘but men have a degree (of responsibility) over them’ [al-Baqarah
2:228].

‘Ali ibn Abi Talhah said, narrating from Ibn ‘Abbas: ‘Men are the
protectors and maintainers of women’ means that men are the leaders of women
and they should obey them in areas where Allaah has enjoined obedience.
Obedience may mean treating his family kindly and protecting his wealth.”

(Tafseer Ibn Katheer,
1/490)

2 – Testimony or bearing witness. The Qur’aan states that the
testimony of one man is equivalent to the testimony of two women.

Allah says (interpretation of the meaning): “And get two
witnesses out of your own men. And if there are not two men (available), then a
man and two women, such as you agree for witnesses, so that if one of them (two
women) errs, the other can remind her”.

3 – A woman inherits half of what
a man inherits.

Allah says (interpretation of the
meaning):

“Allah commands you as regards your children’s (inheritance): to
the male, a portion equal to that of two females”

[al-Nisa’ 4:11]

Al-Qurtubi said:

Because Allah knows better than they do what is in their best
interests, He made the division of inheritance based on differentiation,
because He knows what is in their best interests.

Tafseer al-Qurtubi, 5/164

For example, a man is obliged to spend more than a woman, so it is
appropriate that he should have a larger share of inheritance than a
woman.

4 – Clothing:

A woman’s ‘awrah includes her entire body. The least that can be
said is that she should not uncover anything except her face and hands, and it
was said that she should not even uncover that.

Allah says (interpretation of the meaning):

“O Prophet!
Tell your wives and your daughters and the women of the believers to draw their
cloaks (veils) all over their bodies (i.e. screen themselves completely except
the eyes or one eye to see the way). That will be better, that they should be
known (as free respectable women) so as not to be annoyed. And Allah is Ever
Oft‑Forgiving, Most Merciful”

[al-Ahzaab
33:59]

The ‘awrah of a
man is the area from the navel to the knees.

It was said to ‘Abd-Allah ibn Ja’far ibn Abi Taalib, “Tell us what
you heard from the Messenger of Allaah (peace and blessings of Allah be upon
him) and what you saw of him, and do not tell us about anyone else, even if he
was trustworthy.” He said, “I heard the Messenger of Allah (peace and blessings
of Allaah be upon him) say, ‘The area between the navel and the knee is
‘awrah.’”

Narrated by al-Haakim in al-Mustadrak (6418); classed as hasan by
al-Albaani in Saheeh al-Jaami’, 5583.

Other examples
include the following, which is not a comprehensive list.

There are other differences between the
sexes, including the following:

·
A man can marry four women, but a woman can only have one husband.

·
A man has the right to issue a divorce and it is valid if he does so, but a
woman does not have the right to issue a divorce.

·
A man may marry a woman from among the People of the Book (Jews and
Christians), but a Muslim woman may not marry anyone but a Muslim.

·
A man may travel without his wife or any of his mahrams, but a woman may not
travel unless she is accompanied by a mahram.

·
Prayer in the mosque is obligatory for men, but not for women; a woman’s prayer
in her house is more beloved to Allah.

·
A woman may wear silk and gold, but a man must not wear them.

Everything that we have mentioned is based on the difference
between men and women, because the male is not like the female. Allah says
(interpretation of the meaning):

“And the male is
not like the female” [Aal ‘Imraan 3:36]

The male is different from the female in many ways, in his
strength, in his body, in his toughness and roughness, whereas women are soft
and gentle.

And men are different in intellectual terms, for men are known for
their strength of understanding and their memory as compared to women. Women
are weaker than men in memory and forget more than men do. This is well known,
for most of the reputable scholars in the world are men. There are some women
who are more intelligent and have better memories than some men, but this does
not cancel out the general rule. Most cases are as we have described
above.

With regard to emotions, men speak of them when they get angry or
when they are happy, but women are affected by the slightest emotional effects,
so their tears flow at the slightest emotional provocation.

Jihad is obligatory for men, but jihad in the sense of fighting is
not obligatory for women. This is the mercy of Allah towards them, and
consideration for their nature. In conclusion we may say that the rulings
for men are not like the rulings for women.

Thirdly: Islam
regards men and women as equally obliged with regard to many acts of worship
and interactions with others. For example, women do wudoo’ just as men do, they
do ghusl as men do, they pray as men do, and they fast as men do, except when
they are menstruating or bleeding following childbirth. Women pay zakaah as men
pay zakaah, and they do Hajj as men do, except for a few differences in the
rulings. It is permissible and acceptable to buy from a woman, and if a woman
gives charity, that is permissible. It is permissible for a woman to set free
the slaves that she owns, and there are many other similar cases because women
are the twin halves of men, as it says in the hadeeth:

It was narrated that ‘Aa’ishah said: The Messenger of Allaah (peace
and blessings of Allaah be upon him) was asked about a man who finds some
wetness (on his clothes) but did not have an erotic dream, and he said, “He
should do ghusl.” He was asked about a man who had an erotic dream but did not
find any wetness, and he said, “He does not have to do ghusl.” Umm Salamah
said, “O Messenger of Allaah, if a woman sees that, does she have to do ghusl?”
He said, “Yes, for women are the twin halves of men.”

Conclusion:

Women are like men in some aspects and they differ from them in
others. Most of the rulings of Islam apply to men and women equally. In cases
where a distinction is made between the sexes, the Muslim regards that as a mercy from Allaah and a sign of His
knowledge of His creation, but the arrogant kaafir sees it as oppression and unequality,
so he stubbornly insists on claiming that men and women are the same. So let him
tell us how a man can carry a foetus and breastfeed it? He stubbornly
ignores the weakness of women and how they bleed during their monthly period,
and he stubbornly beat his head against the rock of reality. But the Muslim
is still at peace with his faith, surrendering to the commandment of
Allaah.

“Should not He Who has created know? And He is the Most Kind and
Courteous (to His slaves), All‑Aware (of everything)” [al-Mulk 67:14 –
interpretation of the meaning]

And Allaah knows best.

সমানাধিকারে স্স্থা বুলি আওড়িয়ে একশ্রেণীর বিকৃত রুচি ও মানষিকতা অধিকারী পুরুষেরা নারীকে স্রষ্টা প্রদত্ত ভারসাম্যপূরর্ন অধিকার ও মর্যাদার আসন থেকে অপসারণ করে আধুনিক জাহিলিয়াতের নিকৃষ্টতম গহ্বরে ঠেলে দিতে চায়। অবশ্যই নারীদের জন্য আল্লাহ্ প্রদত্ত অধিকার যথাযত ভাবে প্রতিষ্টিত না থাকায় নারীরা বঞ্চিত রয়েছেন। এই সুযোগে এক শ্রেণীর নারী-পুরুষ তাদের বিকৃত মানষিকতা চরিতার্থ করার পথ উন্মুক্ত. করতে উঠেপড়ে লেগেছে, চুড়ান্ত পর্যায়ে তারা ব্যর্থ হবে।এবং নারীদের জন্য ইসলাম নির্দেশিত মর্যাদাপূর্ন ও সহজসাধ্য ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্টালাভ করবে ইনশাআল্লাহ্‌।

আল্লামা শফীর বয়ানের বিরুদ্ধে কয়েকজন বুদ্ধিজীবী বিবৃতি দিয়েছেন। তার মধ্যে কবি ও লেখক সৈয়দ শামসুল হকও আছেন। নারী সম্পর্কে তার বয়ান শুনলে যে কোনো ভদ্রলোকের বমি আসার কথা।
নারীদের নিয়ে এমন অশ্লীল কবিতা যিনি রচনা করেন তিনি আবার কীভাবে আল্লামী শফীর সমালোচনা করেন? নারীদের নিয়ে বামপন্থী ও নারীবাদী লেখকদের অনেক লেখাই চরম আপত্তিকর। হুমায়ুন আযাদ, তসলিমা নাসরিন, আহমদ শরীফ, কবি শামসুর রাহমানদের লেখনীতে নারীদের নিয়ে এমন সব চরম লজ্জাকর, আপত্তিকর বক্তব্য ফুটে উঠেছে যা এখানে বিধৃত করা সম্ভব নয়। যারা আল্লামা শফীর তথাকথিত বয়ানের কুিসত ব্যাখ্যা করে যাচ্ছেন, বিগত দিনে নারীদের নিয়ে মনীষীদের নিম্নোক্ত বয়ান নিয়ে তাদের বক্তব্য কী?
‘কম বয়েসী মেয়েরা হলো রসগোল্লার মতো যেখানে রাখবে সেখানেই পিঁপড়ে ধরবে’—শংকর
‘পৃথিবীতে বা সমুদ্রে যত হিংস্র প্রাণী আছে তার মাঝে সবচেয়ে বৃহত্তম প্রাণী হল মেয়েরা’—মেনানডার
‘পুরুষেরা মেয়েদের খেলার সামগ্রী আর মেয়েরা শয়তানের খেলার সামগ্রী, মেয়েরা সন্তান উত্পাদনের যন্ত্র বৈ কিছু নয়’—নেপোলিয়ান
‘ছোট ছোট পা আর মোটা নিতম্ববিশিষ্ট নারীজাত সন্তান উত্পাদন ছাড়া কোন কাজে লাগে না’—ম্যাস্কিম গোর্কি।
‘গর্ভবতী নারী দেখতে অনেকটা গর্ভবতী পশুরই মতো’—হুমায়ুন আজাদ
সোনার ছেলে মানিক যখন ধর্ষণের সেঞ্চুরি উদযাপন করে, যখন পরিমল জয়ধর, বাসুদেব, তারেক চন্দ্র মণ্ডলরা আমাদের ছাত্রী বোনদের ধর্ষণ করে—তখন এসব সুশীল চুপ করে থাকেন কেন?

বরিশালের উজিরপুর উপজেলার বরাকোঠা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের স্থানীয় এক নেতার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকজন স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত, যৌন হয়রানি ও ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
সংশ্লিষ্ট স্কুল কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, তাঁর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গত এক বছরে ৩০ জন ছাত্রী বিদ্যালয় ছেড়েছে। কিন্তু মান-সম্মান ও লোকলজ্জার ভয়ে এবং প্রভাবশালী হওয়ায় ওই নেতার বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী ছাত্রীরা এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেননি।
তবে গত ১৮ মে বরাকোঠা মাধ্যমিক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ওই নেতার বিরুদ্ধে বরিশাল জেলা প্রশাসক ও উজিরপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করে। এ ছাড়া ২৭ মে ওই নেতার বিরুদ্ধে এক ছাত্রীর বাবা শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনে উজিরপুর থানায় মামলা করেন। কিন্তু মামলা করার এক মাস পেরিয়ে গেলেও পুলিশ ওই নেতাকে গ্রেপ্তার করেনি। ওই নেতার নাম মো. মামুন হাওলাদার (২৮)। তিনি বরাকোঠা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহ আলম হাওলাদারের ছেলে।
মামলার বাদী অভিযোগ করেছেন, প্রভাবশালী হওয়ায় পুলিশ আসামি মামুন ও তাঁর সহযোগীকে গ্রেপ্তার না করে তদন্তের নামে সময়ক্ষেপণ করছে।
মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, তাঁর মেয়ে বরাকোঠা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী (১২)। স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে মামুন ও তাঁর সহযোগী সুজন তাকে প্রায়ই কুপ্রস্তাব দিয়ে উত্ত্যক্ত করতেন। ১৫ মে স্কুলে যাওয়ার পথে চৌমুহনী রাস্তার কাছে তাঁরা তাঁর মেয়ের শ্লীলতাহানি করেন। বখাটে মামুন এর আগে বরাকোঠা স্কুলের আরও কয়েকজন ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করেছেন বাদী।
সরেজমিনে বরাকোঠা গ্রামের আবদুর রহিম বেপারি, মো. সেলিম ফকিরসহ আরও কয়েকজন গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত ডিসেম্বরে মামুন হাওলাদার স্কুলে যাওয়ার পথে ওই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করেন। তিনি এর আগে আরও কয়েকজনকে একইভাবে ধর্ষণ করেন। কিন্তু মামুন প্রভাবশালী হওয়ায় এবং লোকলজ্জার ভয়ে ভুক্তভোগী ব্যক্তিরা বিষয়টি গোপন রাখেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বরাকোঠা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক অভিযোগ করেন, গত এক বছরে কমপক্ষে ৩০ জন ছাত্রী বখাটে মামুনের ভয়ে স্কুল ছেড়েছে।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.