‘হাসিনা সরে গেলে আসতে পারে বিএনপি’

Ershadউইমেন চ্যাপ্টার: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ বলেছেন, বিএনপি যেহেতু সংসদে প্রধান বিরোধী দল, তাই তিনি আশা করেছিলেন সবার অংশগ্রহণেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তা যেহেতু হচ্ছে না, এ নির্বাচন মানুষ মেনেও নেবে না। এতোসব ভেবেই তিনি নির্বাচন থেকে সরে গেছেন। গতকাল রোববার বিবিসি বাংলাকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে একথা বলেন।

তিনি এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, বিএনপি নির্বাচনে না এলে তাঁর দল নির্বাচন করবে না। তাঁর এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত এবং এ নিয়ে কোনো বিভ্রান্তি থাকা উচিত নয়। তিনি বলেন, তাঁর বিশ্বাস শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রিত্বের পদ ছাড়লে সংকটের সমাধান হতে পারে। তিনি বলেন, তাঁর ধারণা, হাসিনা সরে দাঁড়ালে বিএনপি নির্বাচনে আসবে, এছাড়া নয়।

এরশাদ বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার থেকে তাঁর দলের নেতারা পদত্যাগ করেছেন। পদত্যাগপত্রগুলো ডাকযোগে পাঠিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। গত মঙ্গলবার নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেন এরশাদ।

জাতীয় পার্টি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে অংশ নেবে বলে সরকারি দলের নেতারা বিশ্বাস করেন, এ ব্যাপারে জানতে চাইলে এরশাদ বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘এটা সরকারের উইশফুল থিংকিং (সরকার এ রকমই ভাবতে চায়)। চার বছর ধরেই আমি বলে আসছি, আমি এককভাবে নির্বাচন করব। আমি কারও ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি হব না।’

এরশাদ জানান, সব দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে না এবং সে রকম কোনো নির্বাচনেও তিনি অংশ নেবেন না। নির্বাচনের কোনো পরিবেশও নেই বলে দাবি এরশাদের।

সাবেক রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বিএনপি দেশের প্রধান বিরোধী দল। তাদের ছাড়া নির্বাচন হলে সেটা গ্রহণযোগ্য হবে না। অশান্তি বন্ধ হবে না। আন্দোলন চলতে থাকবে। মানুষ মরতেই থাকবে। মানুষ জ্বলে মরতে থাকবে। এ অবস্থায় নির্বাচন করা কোনোভাবেই সমীচীন হবে না।’

এরশাদ বলেন, তিনি আন্দাজ করেছিলেন যে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে না। কিন্তু ভেতরে ভেতরে দলটির অনেকেই নির্বাচনে আসতে চাইছিল। অনেক প্রার্থী নির্বাচনী প্রচারও চালাচ্ছিলেন—যা দেখে তাঁর মনে হয়েছিল যে বিএনপি হয়তো শেষ মুহূর্তে নির্বাচনে অংশ নিতে পারে। আর সেই আশাতেই তিনি নির্বাচনে গিয়েছিলেন; যার মধ্য দিয়ে সরকার পরিবর্তনের একটা সুযোগ তৈরি হবে।

সরকারের সঙ্গে শর্ত নিয়ে প্রকাশিত নানা খবরের বিষয়ে জানতে চাইলে সর্বশেষ মহাজোট সরকারের অন্যতম এই শরিক বলেন, সরকারের সঙ্গে তাঁর কোনো শর্ত ছিল না।

বর্তমান সংকটের সমাধান কীভাবে হতে পারে—এর জবাবে এরশাদ বলেন, শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর পদে না থাকলে বিএনপি নির্বাচনে আসতে পারে বলে তিনি মনে করেন। কারণ বিএনপির আশঙ্কা নির্বাহী ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে থাকলে নির্বাচনে কারচুপি হতে পারে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.