‘তেঁতুল নয়, নারীরা হলো ফুল-রাণী’

Shafi Hujurউইমেন চ্যাপ্টার: বহুল আলোচিত-সমালোচিত তেঁতুল তত্ত্ব নিয়ে অবশেষে মুখ খুলেছেন খোদ হেফাজতে ইসলামীর আমির শাহ আহমদ শফী। তিনি বলেছেন, নারীদের তিনি তেঁতুল বলেননি, অকারণেই তার নামে ‘বদনাম’ করা হচ্ছে।

শনিবার বিকালে চট্টগ্রামের হাটহাজারী পাবর্ত্য উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এক সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, কোন জায়গায় একটা ওয়াজ করার সময় তিনি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছিলেন। কিন্তু আগে-পরের কথা কিছু না এনেই শুধু ‘মহিলাদের’ ব্যাপারে তার করা কিছু মন্তব্যকে বিকৃত করা হয়েছে। ‘মহিলাদের আমি কোনো সুযোগ দেব না’ বলে যা বলা হচ্ছে তা একেবারে মিথ্যা কথা, ভুয়া কথা’।

তিনি বলেন, ‘মহিলাদেরকে বলছি, আমি মহিলাদেরকে রানীর সাথে তুলনা দিয়েছি। আমি মহিলাদেরকে ফুলের সাথে তুলনা দিয়েছি’।

তিনি বলেন, “শুধু এ কথা বলেছিলাম, ফুল দেখলে সবাই নাকে লাগাইতে চায়। তার ঘ্রাণ নিতে চায়। সেজন্য তাদেরকে বলেছি তোমরা উলঙ্গ অবস্থায় এদিক-সেদিক ঘোরাফেরা করবে না।

‘কিন্তু তারা আমার এ কথা বুঝে নাই। সরকারও বুঝে নাই। সরকারের মন্ত্রীরাও আমার কথা বুঝে নাই। আমি মহিলাকে তেঁতুলের মতো বলেছি, তেঁতুল বলি নাই। এরা কিছু বুঝে না।”

সমাবেশে শফী বলেন, “তেঁতুল গাছের নিচ দিয়ে হেঁটে গেলে ছোট ছোট ছেলেদের তেঁতুল খাইতে দেখলে মুখের মধ্যে লালা আসে।

“একজন সাংবাদিক আমার কাছে গিয়ে এ কথা বলেছিল। বলেছি, আপনি বসেন। একটি সুন্দরী মেয়ে আপনার কাছে পাঠিয়ে দেব। তারপর আপনার দিলের কি অবস্থা হয় আমাকে জানাইবেন। একথা বলার সাথে সাথে উনি কোনো জবাব না দিয়ে চলে যান।”

মন্ত্রীদের উদ্দেশ্য করে হেফাজত নেতা বলেন, “মন্ত্রীরা যারা আমার বিরুদ্ধে বলছে তাদের আমার কাছে নিয়ে আসেন। আমি একজন সুন্দরী মহিলা উনার কাছে পৌঁছায়ে দিব। দু’চার মিনিট কথাবার্তা বলুক তারা। তারপর মন্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করব। তুমি যদি পুরুষ হইয়া থাক তাহলে তোমার দিলের অবস্থা বাতাও।”

আহমদ শফী বলেন, “আমার নামে শুধু বদনামি। আমি মহিলাদেরকে লেখাপড়া করতে দিব না। চাকরি-বাকরি করতে দেব না। এটা সবসময় বলা হইতেছে।

“আমি মহিলাদেরকে লেখাপড়া করানোর জন্য আদেশ দিতেছি। কিন্তু লেখাপড়া করবেন আমার ভগ্নিরা আল্লাহর ওয়াস্তে একটু পর্দার মাধ্যমে। চাকরি করবেন পর্দার মাধ্যমে, এটাই বলতেছি।”

কওমি মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ আইন বিষয়ে তিনি সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “কওমি মাদ্রাসা নিয়ে তিনবার বৈঠক করেছি। আপনাদের টাকা আমরা নেব না। শর্ত যদি মানেন তাহলে স্বীকৃতি নিতে পারি। না হয় নেব না।’

সমাবেশে হেফাজতের মহাসচিব জুনায়েদ বাবু নগরী বলেন, “মন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর বলেছেন, হেফাজতের মহাসমাবেশ হতে দেওয়া হবে না। যেখানে মহাসমাবেশে বাধা দেওয়া হবে সেখান থেকে শুরু হবে জেহাদ।”

নারীরা সবকিছু পর্দার সাথে করতে পারবেন মন্তব্য করে বাবুনগরী বলেন, “আমরা গার্মেন্টস বন্ধ করতে বলিনি। তবে মহিলাদের কর্মক্ষেত্র হবে আলাদা।”

শেয়ার করুন:
  • 88
  •  
  •  
  •  
  •  
    88
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.