তসলিমার নাগরিক অধিকার ফিরিয়ে দেয়া হোক

Taslima 3উইমেন চ্যাপ্টার: তসলিমা নাসরিন, যিনি নারীর পক্ষে, সত্যের পক্ষে, প্রগতির পক্ষে, অন্যায়ের বিপক্ষে কলম ধরেছিলেন আশির দশকে। তিনি আজ প্রায় একুশ বছর ধরে নিজ মাতৃভূমিতে নিষিদ্ধ হয়ে আছেন। তাঁর বইগুলো নিষিদ্ধ করা হয়েছে একের পর এক। কিন্তু আমরা কেউ এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলিনি, নারীর জন্য লিখতে গিয়ে যেই মানুষটিকে নিজের জীবন বিপন্ন করতে হয়েছে, দেশ ছাড়া হতে হয়েছে, তাঁর কথা আমরা যেন ভুলে থাকতে পারলেই বাঁচি।

তাঁর কথা মনে করলে তো, তাঁর এত এত ত্যাগের বিনিময়ে আমরা তাকে কি দিলাম- এর একটা সমীকরণ মেলানোর প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু আমাদের কর্ম তো শূন্য। তাই তাঁর অবদানকে ভুলে গিয়ে তাঁকে যত ভুলে থাকা যায় ততই ভালো। কারণ তসলিমার পক্ষে কথা বললে তো লাভ কিছু নেই, উল্টো উগ্রবাদীদের আক্রমণে নিজের মুণ্ডু হারানোর ভয় থাকে।

আমাদের মনে রাখতে হবে, তসলিমা নাসরিনের নির্বাসন কেবল একজন মানুষ তসলিমার নির্বাসন নয়। এটা মুক্তবুদ্ধি, মুক্তচিন্তার আর মানবাধিকারের নির্বাসন। তসলিমা যতদিন বাংলাদেশে নিষিদ্ধ থাকবে ততদিন বাংলাদেশে মুক্ত চিন্তা নিষিদ্ধ থাকবে, সমাজের প্রগতি নিষিদ্ধ থাকবে, স্বাধীনতার চেতনা নিষিদ্ধ থাকবে। মাতৃভূমি যদি হয় মা, তবে কারও অধিকার নেই, সন্তানকে মায়ের ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত করার। তবে তসলিমা নাসরিনের অধিকারে আমরা বাধা দিচ্ছি কোন আইনে?

আমরা তসলিমা পক্ষ আগামী ১৩ই মার্চ, শুক্রবার, দুপুর তিনটায়, ঢাকা শাহাবাগে তসলিমা নাসরিনের নাগরিক অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার দাবীতে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করছি।

আমাদের এই কর্মসূচীকে সফল করতে আপনাদের অংশগ্রহণ কামনা করছি।

ধন্যবাদান্তে, ইতু ইত্তিলা আহবায়ক, তসলিমা পক্ষ

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.