মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, কাদের সাথে আপনার সংসার?

0

PM 1সুমন্দভাষিণী: মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন, আপনি আসলে কাদের নিয়ে আপনার সংসার সাজিয়েছেন? যোগ্যতা ছাড়া শুধুমাত্র দলীয় আনুগত্য দেখেই কি কাউকে গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন করা যায়? নাকি করা উচিত? একবার ভেবে দেখুন তো প্রধানমন্ত্রী, দুদিন পর পর আপনার মন্ত্রী-সাংসদ-আমলারা একেক ঘটনা ঘটায়, একেক মন্তব্য করেন, আর আপনাকে সেইসব সামাল দিতে হয়!

এই যে দেখুন না, যে নারীদের ক্ষমতায়নের কথা আপনি বলেন, যাদের উন্নয়নে আপনার প্রচেষ্টার কথাও আমাদের অজানা নয়, সেই নারীদের সম্পর্কেই কেমন বেফাঁস মন্তব্য করলেন আপনারই মহিলা ও শিশু বিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান রেবেকা মোমেন।

আপনি কি জানেন যে  তিনি বলেছেন, ‘নারীর অশালীন চলাফেরা ও পারিবারিক শৃঙ্খলা না থাকার কারণেই দেশে ধর্ষণ এবং নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে গেছে’। তিনি আরও বলেছেন, ‘আমরা স্বামীর সংসারে মানিয়ে চলতে শিখেছি। এখনকার মেয়েদের মাঝে তা দেখতে পাচ্ছি না।’ স্বামীর সংসারে মানিয়ে না নেয়ার কারণে বেশি মাত্রায় বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বাহ্ সংসদ সদস্য রেবেকা মোমেন, বাহ্। যোগ্য নেত্রীর মতোনই কথা বলেছেন তিনি। তাকে দিয়েই এই ঘূণে ধরা রাষ্ট্রে নারী ও মেয়েশিশুদের প্রকৃত কল্যাণই হবে। একজন বন্ধুর মুখে প্রথম তার এ ধরনের মন্তব্যের কথা শুনেও ভয়াবহতা অতটা  ভাবতে পারিনি। কিন্তু ফেসবুক খুলে পুরো নিউজটা পড়ে যারপরনাই বিস্মিত হয়ে গেলাম তার জ্ঞানের পরিধির বলিষ্ঠতা এবং সমৃদ্ধি দেখে। সংসদের যোগ্য অলংকারই তিনি।িএ কেমন প্রতিনিধি আপনার প্রধানমন্ত্রী?

ফেসবুকে রেবেকা মোমেনের এমন বক্তব্য নিয়ে সমালোচনার এক পর্যায়ে মাহমুদা শেলী আরেকটি তথ্য দেন। তিনি লিখেছেন, ‘মেহের আফরোজ চুমকীও টাঙ্গাইলের প্রেসক্লাবে বক্তব্য রেখেছিলেন,” ঢাকা ইউনিভাসিটির অনেক মেয়েরা যৌনকাজ করে লেখাপড়ার খরচ যোগায়”। তার এই বক্তব্যটির তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম সেদিন। এবং তাকে এই অশালীন, ভিত্তিহীন বক্তব্যটি প্রত্যাহার করার জন্য তুমুল ঝড় উঠেছিল। দেশের নীতিনির্ধারণী জায়গায় যোগ্য নারী না হলে মেয়েরা যতটুকু এগিয়ে আসতে চায় তা কস্মিনকালেও সম্ভব নয় তার লক্ষ্যে পৌঁছাবার..! রাজনৈতিক ভূমিকা এবং লবিংই একমাত্র যোগ্যতার মাপকাঠী একজন “মনোনীত নারী সাংসদ” হবার..! সুতরাং এই মূর্খ, অসভ্য, পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার বহি:প্রকাশ খুব স্বাভাবিক ।

বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ আয়োজিত ‘নারী নির্যাতন প্রতিরোধে আমাদের অর্জন ও ব্যর্থতা’ শীর্ষক সেমিনারে রেবেকা মোমেন আরও বলেছেন, পুরুষরা আক্রমণ করবে এটা তার স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্য। কিন্তু নারী যদি শ্রদ্ধাবোধ পাওয়ার যোগ্যতা অর্জন না করতে পারে তবে দেশে নারী নির্যাতন বাড়বেই, কমবে না। তো, পুরুষদের আক্রমণ থেকে বাঁচতে এই জাতীয় শ্রদ্ধাবোধ আমাকেই নারী হয়ে অর্জন করতে হবে, উনার ভাষ্যমতে।

Rebeka Momen

রেবেকা মোমেন

এ সময় তিনি আরো বলেন, আমি পুরুষের কোন দোষ দেখি না। এখনকার মেয়েদের মাঝে শালীনতাবোধের অভাব লক্ষ্য করে মন কাঁদে। তারা অশালীনভাবে চলাফেরা করলে পুরুষ আক্রমণ করবে। নারীদের উদ্দেশ্যে রেবেকা মোমেন বলেন, আমি আপনাদের মানুষ। আমার কথায় নারীরা রাগ করবেন না। তবে আপনাদের আরো সহনশীল  ও সচেতন হতে হবে। তাহলেই নারী নির্যাতনের মাত্রা কমবে।

ফেসবুকে একজন প্রতিক্রিয়ায় লিখেছেন, একমাত্র গাড়লের পক্ষেই এরকমটি বলা সম্ভব। পুরুষতন্ত্রের কাছে আপাদমস্তক মাথা বিক্রি। ভগবান জানেন, দেশের সরকারগুলিরও মনোভাব এমন কিনা। তিনি যে পুরুষদের কোন দোষ দেখতে পান না, এতে করে কি পুরুষকূলের খুশি হওয়া উচিত না? নিদেনপক্ষে তার নিজের ঘরের পুরুষকূলের?

বুশরা সুলতানা নামের একজন লিখেছেন, নারীর অশালীন চলাফেরা বলতে উনি কী বুঝাতে চান? পুরুষরা আক্রমণ করবে, স্বভাবজাত বৈশিষ্ট্য, এহেন কথা তো পুরুষদের জন্যও অপমানজনক।

তাই প্রধানমন্ত্রীকেই বলছি, আপনি কি এদের নিয়েই বাকিটা পথ চলতে চান? এই ধ্যানধারণা পোষণকারী ব্যক্তি তো সমাজের সবার জন্য হুমকিস্বরূপ। আমরা মানবকূল মহান এই সাংসদের বক্তব্য শুনে থ হয়ে গেছি, ভাষা হারিয়ে ফেলেছি সঠিকভাবে প্রতিক্রিয়া জানানোরও। নিজেদের উন্নয়নই বলুন, আর অবস্থান সুদৃঢ় করাই বলুন, মোটেও নিরাপদ ভাবছি না এসব আবাল লোকেদের কাছে। এদের কাছে আর যাই হোক, নারী ইস্যুর মতোন স্পর্শকাতর একটা ইস্যু মোটেও নিরাপদ নয়। দেশ তো নয়ই।

উনার মূর্খতাপূর্ণ, অবিবেচকের মতোন মন্তব্যগুলো আমাদের গায়ে কাঁটার মতো বিঁধছে। তাই প্লিজ প্রধানমন্ত্রী, দয়া করে এদের বিবেকবুদ্ধি জাগ্রত করার উদযোগ নিন, আপনিই তো আছেন একজন, আপনাকেই নিতে হবে এই দায়িত্ব।

সবশেষ আমাদের অনুরোধ, আপনি একটু দেখুন বিষয়টা। যথেষ্ট অপমান বোধ করছি, কিছুটা হলেও রক্ষা করুন আমাদের।

রেবেকা মোমেন যেসব মন্তব্য করেছেন এর প্রত্যেকটা প্রশ্নের জবাব তাকে জনসমক্ষে দেওয়ানোর ব্যবস্থা করা হোক।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখাটি ২৮ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.