জাপানের জিরোমন কিমুরা মারা গেলেন ১১৬ বছরে

116 yearsউইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক (জুন ১৩): বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বয়সী জাপানের জিরোমন কিমুরা মারা গেছেন ১১৬ বছর বয়সে। স্থানীয় কর্মকর্তারা একথা জানিয়েছেন। তিনি বিশ্বের সর্বাধিক বয়সী বলে বিবেচিত ছিলেন।

জাপানের এক সরকারি বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, গত বুধবার কিয়োটোর কিয়োতাঙ্গো হাসপাতালে তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। গত বছর (২০১২) ডিসেম্বরে গিনেস ওয়াল্ড রেকর্ডে মি. কিমুরা স্থান করে নেন জীবিত সর্বাধিক বয়সী হিসেবে।

তার সাত সন্তান, ১৪জন নাতি-নাতনি এবং ২৫ জন দৌহিত্র এবং ১৩ প্রপৌত্র জন রেখে গেছেন। মি. কিমুরা জন্ম নিয়েছিলেন ১৮৯৭ সালের ১৯ এপ্রিল। তিনি কাজ করেছে স্থানীয় একটি পোস্ট অফিসে অবসর নেয়ার আগ পর্যন্ত এবং ৯০ বছর বয়স পর্যন্ত তার ছেলেকে তিনি খামার বাড়িতে সহায়তা দিয়েছেন। গত বছর ডিসেম্বরে আগের বেশি বয়সী ব্যক্তির মৃত্যুর পর তিনিই এই উপাধি পান।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবি গত ১৯ এপ্রিল তার ১১৬তম জন্মদিন পালনের সময় ভিডিও অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। পশ্চিম জাপানের মেয়র কিয়োটাঙ্গো মি. কিমুরোর মৃত্যুর খবর পেয়ে দেখা করে এসেছেন।

গত ডিসেম্বরে এক সাক্ষাতকারে মি. কিমুরোর বরাত দিয়ে তার ভাতিজা তমাৎসু মিয়াকি বলেছিলেন, কিমুরোর বাঁচার ইচ্ছা ছিল দেখার মতো, খুব শক্তিশালী সেই ইচ্ছা। তাছাড়া তিনি জীবনে কোনটা সঠিক এবং ভাল সেই ব্যাপারে খুবই আত্মবিশ্বাসী ছিলেন। এটাও বলেছিলেন, বেশিদিন বাঁচার জন্য কম খেতে হবে।
বিশ্বের সর্বজ্যেষ্ঠ মানুষের তালিকা:
• ইতিহাসে সর্বোচ্চ বয়সী নারী জোয়ান ক্যালমেট ১৯৯৭ সালের ৪ আগস্ট ফ্রান্সে মারা যান ১২২ বছর বয়সে।
• জিরোমন কিমুরা ২০১৩ সালের ১২ জুন জাপানে মারা যান ১১৬ বছর বয়সে।
• এখনও বেঁচে আছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১১১ বছর বয়সী জেমন ম্যাককুবরে।
• এখনও বেঁচে আছেন জাপানের নারী মিসাও ওকাওয়া ১১৫ বছর বয়সী।
(বিবিসি থেকে সংগৃহীত)

১১৫তম জন্মদিনে মি. কিমুরা এক সাক্ষাতকারে বলেছিলেন, তিনি নিশ্চিত নন যে, এতোদিন কেন তিনি বেঁচে আছেন। তবে হতে পারে যে, তাঁর মাথার ওপর যে সূর্য আছে, তারই কল্যাণে তিনি বেঁচে আছেন। তিনি জানান, প্রতিদিনই তিনি একবার করে আকাশের দিকে তাকাতেন, হয়তো সেজন্যই তার এই বেঁচে থাকা’।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.