ধর্ষণ নিয়ে একজন পুরুষের প্রতিক্রিয়া

Rapeউইমেন চ্যাপ্টার: ভাই থামেন, একটা প্রশ্নের জবাব দিয়ে যান অথবা শুনে যান… বলেন তো আপনি কয়টা ধর্ষণের খবর রাখেন?

….ধর্ষণ কাকে বলে? খুবই সিম্পল, জোরপূর্বক কাউকে যৌনতায় বাধ্য করলে সেটা ধর্ষণ। আপনার কি মনে হয় বাংলাদেশ কয় ধরণের ধর্ষণ আছে? আপনি কি খবর রেখেছেন সেই স্ত্রীটির কথা যে স্ত্রী তার স্বামীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করেছিলো? আপনি কি খবর রেখেছেন, যে মা তার মেয়েকে জোরপূর্বক বিয়েতে বাধ্য করে তাকে আরেকজনের বিছানায় পাঠায় বিয়ের নাম করে। সেই বাবা, যার কাছে মেয়ে কান্না করেও কোন দাম পায় না। আবার পাঠায় নির্যাতিত হতে। আপনি কি জানেন, বাংলাদেশে ধর্ষণের প্রতিবাদ করতে আসার জন্য ঘর থেকে বেরুবার সময় মেয়েকে মা আটকায়। বলে তোর যেয়ে কাজ কি! আপনি জানেন কি, আপনিও কোন না কোনভাবে ধর্ষণের সাথে জড়িত?

আজ আপনাকে স্বাধীনতা দিলাম আমাকে ইচ্ছামত গালাগাল করার। আমাকে গালি দিয়ে ফাটায়ে ফ্যালেন কিছুই কমুনা। আজ আপনি পড়েছেন ধর্মান্তর নিয়ে। ধর্মান্তর করে ৫৫ দিন ধরে রেপ করা নিয়ে। ১৭ মাসের বাচ্চার রেপ নিয়ে। এবং আমার স্পষ্ট মনে আছে আপনি এর আগেও ফেসবুকে আগুন ধরা স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন মিডিয়াতে আসা প্রতিটি খবর নিয়ে। কিন্তু কখনো কি ভেবে দেখেছেন যে, আপনার বোন অথবা ভাগ্নিটাকে আপনিই কোথাও পাঠিয়ে দিয়েছেন ধর্ষিতা হওয়ার জন্যে। না এসব বলা যাবে না অবশ্যই এসব বলা পাপ। কারণ বাংলাদেশে ধর্মীয় উপায়ে ধর্ষণের একটা আনকোরা উপায় আছে। যেটার খবর কেউ রাখে না। আপনার মত বহু মানুষ দেখেছি আমি। কিন্তু কখনো আপনি নিজের বিছানার দিকে তাকিয়ে দেখেন না যাকে আপনি এতোদিন থেকে ভোগ করছেন, সেটা কি ধর্ষণ নাকি বৈধ? আমি জানি যেই আপনি আজ পত্রিকায় ধর্ষণের খবর পড়ে ধর্ষকের গুষ্ঠি উদ্ধার করেন সেই আপনিই বাসায় গিয়ে রাতে বউকে বলেন, ‘ধ্যাত্তেরি তোর ভালোবাসা, তুই আগে শাড়ী খোল।’ সেই আপনিই আপনার মেয়েটিকে পাড়ার ধর্ষকের ভয়ে অপ্রাপ্ত বয়সে আরেকজন ধর্ষকের হাতে ধর্মীয় বিধান মেনে তুলে দেন। আর আপনার মেয়ে ধর্ষিতা হলে আপনি সেটা লোকলজ্জার ভয়ে গোপন করেন। কারণ আপনার মনে হয় ধর্ষিতা হলো তো জাত গেলো। মেয়েটি নষ্টা হয়ে গেলো।

আপনি নিশ্চয়ই এখন প্রশ্ন তুলবেন তাহলে কি আমি ধর্ষকের পক্ষে কথা বলছি? মোটেই না। ধর্ষণ একটি ভয়ানক অপরাধ যেটার দুটি পক্ষ থাকে অপরাধী আর ক্ষতিগ্রস্ত। সেখানে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি বহুকাল থেকেই করে আসছি। কিন্তু উপায় কি হলো? ঐ মেয়েটির কথা কি মনে আছে? যে মেয়েটিকে তার বাবা ঘরে উঠতে দেয়নি ধর্ষিতা বলে। ওর মাকেও ঘরে উঠতে দেয়নি মেয়েটির পক্ষ নিয়েছিলো বলে। আমি জানি আপনার কাছে এসব মোটেও ‘ম্যাটার’ করে না। এসব খবর তো আপনার সকালের চা’কে জমিয়ে দেয়। আজ আপনার মনে হচ্ছে ধর্মান্তর একটা অপরাধ। কিন্তু কালই যখন শুনবেন কেউ একজন হিন্দু থেকে মুসলমান হয়েছে তখন আপনার মুখেই ‘আলহামদুলিল্লাহ’ ফুটে উঠবে।

বাংলাদেশে বেশিরভাগ ধর্ষণের জন্য কোন না কোনভাবে সবাই দায়ী। যেই ‘শুওরের বাচ্চা’ ধর্ষণ করেছিলো সে আপনার আমার সামনে দিয়েই হয়তো ঘুরেছিলো। কিন্তু আপনি নিজের পরিবারকে সালামত রাখার জন্য তাদের বিরুদ্ধে একটা কথাও বলেননি। তার পরে যখন আপনি ধর্ষকের বিচার নিয়ে লম্বা লম্বা কথা বলেন তখন আমার মুখে অনেক থুথু আসে আপনার মুখে ছিটানোর জন্য। কেন আপনাদের কি ক্ষমতা ছিলো না শুওরের বাচ্চাগুলোকে গণধোলাই দিয়ে মেরে ফেলার? তার পর দেখা যেত কে কি বলে আর করে। দেখতেন আর ঐ এলাকায় কয়টা ধর্ষণ হয়। না আমি খুনে উদ্বুদ্ধ করছি না। কিন্তু আইন যেখানে ধর্ষকের মামলা নেবার আগে ভাবে তখন কার কি করার আছে আইন হাতে নেওয়া ছাড়া? কিন্তু আপনি তা করবেন না। কারণ আপনার কাছে এখন ধর্ষণের খবর পড়া ‘পাব্লিকলি চটি বই’ পড়ার মতোই আনন্দদায়ক।

পরিশেষে শুধু এটুকুই বলবো, যদি আপনি আপনার স্টাটাসের মতই জ্বালাময়ী হন তাহলে যান যে দুধের বাচ্চাটিকে ধর্ষণ করে খুন করেছিলো তার পুরুষাঙ্গ কেটে কুত্তারে খাওয়ান। যে ধর্মান্তর করে তাকে ……। যে ৫৫ দিন আটকে রেখে ধর্মীয় উপায়ে ধর্ষণ করে তাকে ইতিহাসের ঘৃণ্যতম শাস্তি দেন। আপনার চিন্তায় যেটা সবচাইতে নৃশংস শাস্তি মনে হবে সেটাই দেন।

আর নারীদের বলছি, কেউ আপনাদের অধিকার দিবে না। ঘরে বসে নারী অধিকার, নারী অধিকার বলে চিল্লাইলে নারী অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে না। রাস্তায় আসুন, নিজের অধিকার বুঝে নিন। আপনার মেয়েটি আপনার দিকে তাকিয়েই বড় হয়। আপনার উপরেই নির্ভর করে আপনার মেয়েটি ধর্ষিতা হবে কিনা। যদি না পারেন তাইলে চুপচাপ থাকেন। মনে রাখবেন আপনার মেয়েটির সাথে এমন হওয়ার পরও আপনি এমনই একা হয়ে যাবেন, যতটা আজ সেই ধর্ষিতার পরিবারগুলো। কিচ্ছু করার নাই…

জাগতে পারলে জাগো, নইলে ঘুমায়ে থাকো। ততক্ষণ পর্যন্ত যতক্ষণ সেই ভয়ানক কলিংবেলটা না বাজে আর দরজা খুলে দেখবা তুমি নিঃস্ব…

লেখক: ং-সংষ্কৃতি
(নাগরিকব্লগ থেকে সংগৃহীত)

শেয়ার করুন:
  • 52
  •  
  •  
  •  
  •  
    52
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.