স্যালুট তোমাকে ছন্দা

Chhonda 2
ছন্দা গায়েন

রাজীব তেমুজিন: ছন্দা, বেশ করেছ তুমি। যে যাই বলুক তুমি বেশ করেছ। আজ বহু লোক বহু কথা বলছে। বলছে, তোমার নাকি উচিত হয়নি একটা পাহাড় জয় করে আবার অন্য পাহাড়ে পাড়ি দেওয়া, নিজের ক্ষমতার বাইরে অতিরিক্ত ক্ষমতা দেখাতে গিয়ে নাকি তোমাকে এর মাসুল দিতে হল……

আসলে জানো কি! আমাদের মত অতি সাবধানী কেরানি সুলভ মানসিকতায় এর থেকে বেশি আর কি আশা করতে পারো? আমরা একপা ফেলার আগে একশোবার ভাবি। এরপর যদি সফল হই তাহলে তো আর কথাই নেই, চার প্রজন্ম ধরে তার কাহিনি শোনাবো। কিন্তু পরপর দুটো পাহাড় যে ছোঁয়া যায় সেই সাহস দেখাবার ক্ষমতা বা সাধ্য আমাদের নেই। তাই ওই একটাই কাজ, যে হিম্মত দেখিয়েছে তার নামে যাতা বলা।
কই পরোয়া নেই, তুমি যা করেছ বেশ করেছ। আমাদের মত ছাপোষা মানুষদের ঝুটি ধরে নাড়িয়ে দিয়েছ তুমি। তোমার মত মানুষকে দেখেই তো আগামী দুনিয়া জানবে নিজের থেকে নিজেকে আরো কত উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া যায়। “ভেড়া হয়ে একশো বছর বাঁচার চাইতে আরো ভালো অল্প দিন বাঁচবো কিন্তু বাঘের মত বাঁচবো”।
তুমি নেই কে বলে! দুনিয়াতে বহু কিছু আসবে যাবে, কিন্তু ইয়ালুই খাঙ এর নাম উঠলেই তোমার নাম সবাই করবে, ছন্দা ওই পাহাড়ে মনের সুখে এখনো চড়ে বেড়াচ্ছে।
আরে, রাস্তায় নেমে সবাই চায় তাড়াতাড়ি গন্তব্যে পৌছঁতে। খুব কম মানুষ আছে যারা তোমার মত গন্তব্যে নয় রাস্তায় চলাতে বিশ্বাস করে।
এগিয়ে চল বন্ধু আমাদের রাস্তা দেখিয়ে, যদি তোমার মত কিছুটা সাহস আমরা পেতাম ধন্য হয়ে যেতাম।
খুব হিংসা হয় তোমার কথা ভাবলে। যে হিমালয়ে যাবে বলে মানুষ সারাজীবন ভেবে যায়, সেই হিমালয় কে তুমি তোমার রাজত্ব করে নিলে। খুব ভালো থেকো বন্ধু, আমার ভাগ্য ভালো যে তোমার মত সাথীর সাথে পাহাড়ে কিছুটা রাস্তা হাঁটতে পেরেছিলাম। দেখি আবার কবে দেখা হয় তোমার সাথে, সেই আশায় রইলাম।
“জীবন উৎসর্গ করে সবহারা জনতার তরে মরণ যদি হয়,
ওরে তাহার ভারে হার মানে ওই পাহাড় হিমালয়……”

বন্ধু, আবার দেখা হবে………। কিছুদিন আগে হিমালয়ের কাঞ্চন জঙ্ঘা পাহাড়ে উঠতে গিয়ে তীব্র তুষার ঝড়ে আটকা পড়ে যান ছন্দা। এরপর থেকে তাকে আর পাওয়া যায়নি। ছন্দাকে স্মরণ করে তারই এক বন্ধুর স্ট্যাটাস এটি।এদিকে বিবিসি বাংলার এক খবরে বলা হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গের এভারেস্টজয়ী পর্বতারোহী ছন্দা গয়েনকে মৃত বলে ঘোষণা করেছেন নেপাল সরকার। আজ মিস গায়েনের পরিবার কলকাতায় জানিয়েছে যে গত ১৭ই মে নিখোঁজ হন ছন্দা, আর নিয়ম অনুযায়ী তিন দিন কেউ নিখোঁজ থাকলেই তাঁর নামে ডেথ সার্টিফিকেট দেওয়া হয়। গতমাসে কাঞ্চনজঙ্ঘা শিখর জয় করার ঠিক পরেই পাশ্ববর্তী  ইয়ালুংকা শিখর ছোঁয়ার জন্য অভিযান শুরু করেছিলেন তিনি ও আরও তিন শেরপা। হঠাৎই তুষারঝড় আর ধসে তলিয়ে যান ছন্দা ও দুজন শেরপা। একজন শেরপা জীবিত অবস্থায় ফিরে আসেন। গতবছর এভারেস্ট শিখর ছুঁয়েছিলেন কলকাতার পাশ্ববর্তী হাওড়ার বাসিন্দা তরুণী ছন্দা গায়েন।

আবহাওয়া দ্রুত খারাপ হয়ে যাওয়ায় তাঁদের দেহ উদ্ধারের অভিযান এখনও শুরু করা যায় নি আর আগামী কয়েক মাসে তা করা সম্ভব নয় বলেই মনে করছেন পর্বতারোহীরা।

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.