এদিক সেদিক মাথা না ঘুরিয়ে সংলাপে আসুন: সুরঞ্জিত

suronjitউইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক (৯ জুন): ‘সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের সব কার্ড খেলেছেন খালেদা জিয়া। সবকটিতেই ফেল করেছেন। সর্বশেষ ধর্ম নিয়ে খেলতে গেছেন। কিন্তু এখানেও তিনি কিছুই করতে পারেননি।’ শনিবার বিকেলে বোয়ালখালী উপজেলা পরিষদ চত্বরে ১৪ দলের উদ্যোগে আয়োজিত গণসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ও মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত কিছুটা এভাবেই বিরোধীদলের রাজনৈতিক পরাজয়কে তুলে ধরেন।

খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘এদেশ হাজার বছর ধরে ধর্মনিরপেক্ষ। এখানে সকল ধর্মের পাশাপাশি অবস্থানের ফলাফল এই জাতি। তাই এখানে ধর্মের কার্ডে লাভ হবেনা। উপাশনালয়ে আগুন দিয়ে নিজেদের উদ্দেশ্য হাসিলের রাজনীতি করবেননা। এদেশে কেউই বানের জলে ভেসে আসেনি। সবাই আমরা বাঙ্গালি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখনো সময় আছে এদিক সেদিক মাথা না ঘুরিয়ে সংলাপে আসুন। যেখানে খুশি সেখানে। জনগনের অধিকার রক্ষার রাজনীতি করুন।’

হেফাজতের ঢাকা অবরোধ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘হেফাজত ঢাকা অবরোধ করেছে আর সবাই তৈরি হয়ে গেছে কে কি হবে সেই হিসাব করতে। আর যখন ঢাকাকে মুক্ত করা হলো কোন প্রকারের গোলাগুলি ছাড়াই তখন উনারা সরকারের সমালোচনা করা শুরু করলেন। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যেখানে জঙ্গিবাদ দমনের জন্য হাসিনা সরকারকে বাহবা দিচ্ছে সেখানে উনাদের পেরেশানি হচ্ছে।’

বাজেট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাজেটে যখন কৃষক থেকে শুরু করে সবাই খুশি তখন বেজার শুধু খালেদা জিয়া আর তার নেতা মওদুদ আহমেদ।’

মওদুদ আহমেদ সম্পর্কে তিনি যোগ করেন, ‘মওদুদের বইয়ের কথা আর মুখের কথার পার্থক্য নিয়ে বড়ই পেরেশানিতে আছেন খালেদা জিয়া।’

অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু জুনের মধ্যে যুদ্ধাপরাধীর বিচার কাজ শেষ হবে উল্লেখ করে বলেন, ‘আমরা ক্ষমতায় এসেছি, যুদ্ধাপরাধীদের সাজা আমরা কার্যকর করে যাব। সকল যুদ্ধাপরাধীর বিষদাঁত আমরা ভেঙ্গে যাবোই।’

জামায়াতের নিষিদ্ধের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দেশ ও জাতির শত্রু জামায়াতকে নিষিদ্ধ করা উচিৎ এবং করা হবে।’

ইনু আরো বলেন, ‘খালেদা জিয়া ক্ষমতা হারানোর যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে একের পর এক সরকার হটানোর ষড়যন্ত্র করেই গেছেন। বিডিআর বিদ্রোহে উসকানি থেকে শুরু করে হেফাজতকে সমর্থন সবকিছুই করেছেন তিনি।’

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এসএম আবুল কালাম। আরো উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম-৭ আসনের সাংসদ মাঈনুদ্দিন খান বাদল, পাশের উপজেলা আনোয়ারা থেকে নির্বাচিত সাংসদ সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ইন্দুনন্দন দত্ত।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.