আত্মরক্ষায় অনন্য দৃষ্টান্ত কিশোরগঞ্জে মেয়েদের

Karate girlsউইমেন চ্যাপ্টার: মেয়েরা শুধু অসহায়ের মত মুখ বুঁজে সবকিছু সহ্য করে যাবে, এটা বোধ হয় আর বেশীদিন চলবে না। শুধু মুখে প্রতিবাদ নয়, এখন থেকে শারীরিক আঘাতের মাধ্যমে নির্যাতনকারীকে সমুচিত জবাব দিতে তৈরি হচ্ছে কিশোরগঞ্জের মেয়েরা। এজন্য মেয়েরা কঠোর প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আয়ত্ব করছে খালি হাতে আত্মরক্ষার বিভিন্ন কলা-কৌশল।

স্কুল-কলেজে যেতে-আসতে বখাটে ছেলেদের করা অশ্লীল মন্তব্যে এবং বিভিন্ন ধরনের হয়রানিতে ছাত্রীদের নাকাল হওয়ার বিষয়টি ছিল এখানকার নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা। এসব সহ্য করে মাথা নিচু করে মুখ বুঁজে সব সয়ে যাওয়াই যেন ছিল তাদের নিয়তি। কিন্তু আনন্দের বিষয় এখন পাল্টাতে শুরু করেছে সেই পরিস্থিতি।

মেয়েদের শারীরিক সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি মানসিক দৃঢ়তা বৃদ্ধিতে পাশে এসে দাঁড়িয়েছে নারী উদ্যোগ কেন্দ্র (নউক) নামে একটি বেসরকারি সংস্থা। ইতিমধ্যে মার্শাল আর্ট ও বক্সিংয়ের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেছে সহস্রাধিক স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী। প্রশিক্ষণের ধরন দীর্ঘমেয়াদি ও কঠিন হলেও হাসি মুখেই সব কষ্ট মেনে নিয়েছে অংশগ্রহণকারী মেয়েরা।

খালি হাতে আত্মরক্ষা বা মার্শাল আর্ট এবং বক্সিংয়ের মত কঠিন বিষয়টি শেখার সুফলও মেয়েরা পাচ্ছে হাতে-নাতে। সেখানে এখন মেয়েরা মাথা উঁচু করে সাহসী মনোবল নিয়ে দৃঢ়তার সাথে চলা-ফেরা করছে। বখাটেদের আক্রমণের শিকার হলে দৃঢ়তার সাথে প্রতিরোধ গড়ে তুলছে। প্রতিবাদের পাশাপাশি প্রয়োজনে শারীরিক আঘাতের মাধ্যমে বখাটেদের শায়েস্তা করতে পিছপা হচ্ছে না কিশোরগঞ্জের মেয়েরা। সেরকম কথাই শোনা গেল মেয়েদের মুখে।

সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী যমুনা আক্তার বলছিল, বক্সিং-কারাতে শেখার কারণে সাহস অনেক বেড়ে গেছে। এখন আর রাস্তায় কেউ কিছু বলতে পারে না। আগে রাস্তাঘাটে নানা কথা শুনতে হতো।

অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী সুমাইয়া ইসলাম শৈলীর মতে, আগে নিজের প্রতি যে বিশ্বাস ছিল না, এখন সে বিশ্বাস সে ফিরে পেয়েছে। আগে রাস্তাঘাটে নানা কথা শুনতে হতো, এখন কেউ কিছু বলে না।

অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী সুমাইয়া আক্তার মুন বলে, আজকাল মেয়েরা প্রায়ই ইভ টিজিংয়ের শিকার হচ্ছে, আগে আমরাও হতাম। যেদিন থেকে আমরা কারাতে শিখতে শুরু করি সেদিন থেকে আমাদের সাহস অনেক বেড়ে গেছে। এখন আর মাথা নিচু করে থাকি না।

নবম শ্রেণীর ছাত্রী রাজিয়া আফসার হিমু বলেন, কারাতে শেখার পর কেউ ইভ টিজিং করতে এলে এখন উল্টো তাকে শাস্তি দেই। আগের লজ্জা ও মেয়েলি ভাবটা কেটে গেছে।

প্রশিক্ষকদের মতে, মেয়েদেরকে রাস্তা-ঘাটে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাই তারা অনেক আগ্রহ নিয়ে সব কষ্ট মেনে নিয়ে কারাতে ও বক্সিং শিখছে এবং দ্রুত সবকিছু আয়ত্ব করছে।

শুধু আত্মরক্ষাই নয়, এটি একটি খেলা এবং ভবিষ্যতে উপার্জনের বিষয়টি মাথায় রেখে অনেকে কারাতে ও বক্সিং শিখছে। এখান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে অনেকেই জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় কৃতিত্ব প্রদর্শন করছে।

২০০৯ সালে এই প্রতিষ্ঠানের চারজন মেয়ে নেপালে দক্ষিণ এশীয় কারাতে প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ১টি স্বর্ণ পদক, ১টি রৌপ্য পদক ও ১টি ব্রোঞ্জ পদক পায়। এছাড়া সম্প্রতি কারাতে ও কুংফু জানার কারণে দুইজন মেয়ে পুলিশে নিয়োগ পেয়েছে।

মার্শাল আর্টের প্রশিক্ষক তানিয়া আক্তার রুপা বলেন, মেয়েরা অনেক আগ্রহ নিয়ে এসব শিখছে। অভিভাবকরাও উৎসাহ দিচ্ছে। এসব শেখা থাকলে মেয়েরা সাহস নিয়ে চলাফেরা করতে পারবে।

বক্সিংয়ের প্রশিক্ষক তানিয়া সুলতানা বলেন, শুরুতে পরিস্থিতি এমন সহজ ছিল না। মেয়েধের কারত ও বক্সিং শেখার বিষয়টি বাঁকা দৃষ্টিতে দেখত সমাজের বড় একটি অংশ। এরফলে প্রতিবন্ধকতাও ছিল প্রচুর। কিন্তু বর্তমানে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটেছে। উল্টো মেয়েদের পাশাপাশি অনেক অভিভাবক এসব শিখতে চাইছেন।

তেমনই একজন অভিভাবক মো: শিহাব উদ্দিন। তিনি বলেন, মেয়েদের কারাতে ও বক্সিং শেখা নিয়ে আমার খারাপ মনোভাব ও অনীহা ছিল। কিন্তু এখন আমার দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ঘটেছে। মেয়েদের এসব শেখা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।

স্কুলটির তথ্যমতে, ইতিমধ্যে এখান থেকে কারাতে ও বক্সিং প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেছে সহস্রাধিক স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী। এত ব্যাপক হারে মেয়েদের মার্শাল আর্ট ও বক্সিংয়ে প্রশিক্ষিত হওয়ার নজীর  বাংলাদেশে আর কোথাও নেই বললেই চলে।

নারী উদ্যোগ কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক মাশহুদা খাতুন শেফালী জানান, নারী সুরক্ষার স্বপ্ন নিয়েই এই ব্যাতিক্রমী উদ্যোগটি গ্রহণ করেন। ২০০৮ সাল থেকে শুরু হয় খালি হাতে আত্মরক্ষার প্রশিক্ষণ প্রদানের কার্যক্রম।

স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে মেয়েদেরকে যেন কেউ উত্যক্ত করতে না পারে, যেন তারা আক্রান্ত হলে নিজেরাই দক্ষতার সাথে প্রতিরক্ষা করতে পারে। মেয়েরা যেন আত্মরক্ষার মাধ্যমে নিজেরাই নিজেদের পরিত্রাতা হয়ে উঠতে পারে, তাহলেই সাফল্য আসবে এই উদ্যোগের। এমনটিই আশা করছেন শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং সংগঠকরা।

মারুফ আহমেদ

সাংবাদিক

(এনটিভি থেকে নেয়া)

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.