‘মা’ হলেন সন্ন্যাসিনী!

ma-meyeউইমেন চ্যাপ্টার: গত শনিবার ইতালির রিয়েতি শহরের এক সন্ন্যাসিনী (নান) হঠাৎই পেটে ব্যথা অনুভব করেন। হাসপাতালে নেয়ার পর তিনি ছেলে সন্তানের জন্ম দেন। তিনি দাবি করেছেন, অন্ত:সত্ত্বা হওয়ার খবর তিনি জানতেনই না। সন্তান প্রসবের আগের মূহূর্তেও তিনি বুঝতে পারেননি যে, মা হতে চলেছেন।

নানের মা হওয়ার খবরে বিব্রত বোধ করছে ইতালির ক্যাথলিক চার্চ। স্থানীয় বিশপ বলেছেন, নানকে তার কনভেন্ট ছেড়ে চলে যেতে হবে। কিন্তু তার আগে তাকে অঙ্গীকার ভঙ্গের জন্য ক্ষমা চাইতে হবে। দেলিও লুকারেলি নামের ওই বিশপ বলেন, ভাল হয়, তিনি যদি এখন ‘সেক্যুলার’ জীবনযাপন শুরু করেন ছেলেকে নিয়ে, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান থেকে তাঁর এখন দূরে থাকাই ভাল।

শনিবার বিবিসির এক খবরে বলা হয়, ইতালির রিয়াতি শহরের একটি হাসপাতালে ছেলে হয় স্থানীয় এক গির্জার ওই নানের। এল সালভাদরের ৩১ বছর বয়সী ওই নারী বর্তমান পোপের নামে তাঁর ছেলের নাম রেখেছেন ‘ফ্রান্সিস’।

স্থানীয় একটি সংবাদ সংস্থাকে তিনি বলেন, বুধবার পেটে ব্যথা অনুভব করার পর তিনি নিজেই অ্যাম্বুলেন্স ডেকে পাঠান। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মা হন তিনি। এক রিপোর্টে বলা হয়, নান নিজে জানতেন, কিন্তু তিনি খবরটি গোপন করেছেন। তিনি বলেন, ‘এটা অসম্ভব, আমি একজন সন্ন্যাসিনী’।

এদিকে নানের মা হওয়ার খবরে রীতিমতোন হুলস্থূল বেঁধে গেলেও সবাই তাঁকে সাহায্যে উঠেপড়ে লেগেছেন। হাসপাতালে থাকা মানুষজন নবাগত শিশু ও তার মায়ের জন্য কাপড়চোপড় ও অর্থ সংগ্রহ করা শুরু করে দেন।

ঘটনার পর রিয়াতি শহরের মেয়র সিমন পেট্রানজেলি সদ্য মা হওয়া ওই নারীর ব্যক্তিগত গোপনীয়তার প্রতি সম্মান দেখানোর জন্য সবাইকে অনুরোধ করেছেন।

ওই সন্ন্যাসিনী রিয়েতের কাছে একটি খ্রিস্টসংঘের সদস্য, যারা একটি বৃদ্ধাশ্রম পরিচালনা করেন।

অনেকেই আবার এই ঘটনাকে ‘মিরাকল’ বলে ভাবতে শুরু করেছেন। তারা বলছেন, সব নানই যীশু খ্রিস্টের সাথে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ। যদি ডিএএনএ টেস্টে কোন মানব পিতার সন্ধান পাওয়া না যায়, তবে এই শিশুকে দৈবশিশু বা স্বয়ক যীশুশিশু হিসেবেই ধরে নেয়া হবে বলে দাবি তুলেছেন তারা।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.