একাত্তরের মতো ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান

Monchoউইমেন চ্যাপ্টার: সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস রুখতে যশোরের মালোপাড়ায় গণজাগরণ মঞ্চের রোড মার্চ পৌঁছে গেছে ।শনিবার সকাল ১১টার দিকে রোডমার্চটি যশোর থেকে এখানে এসে পৌঁছে।

শুক্রবার সকালে ঢাকার শাহবাগ থেকে রওনা হয়েছে পথে পথে বেশ কয়েকটি পথসভায় যোগ দেয় মঞ্চ। যশোরে রাত ভোর করে শনিবার সকালে আবারও যাত্রা শুরু করেছেন মঞ্চের নেতাকর্মীরা।

বিভিন্ন পথসভায় স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতে ইসলামীসহ সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে মোকাবেলায় একাত্তরের মতো ঐক্যবদ্ধ হতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ।

গণজাগরণ মঞ্চের রোডমার্চ শুক্রবার সন্ধ্যায় ফরিদপুর শহরে পৌঁছানোর পর সেখানে মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেন, “জামায়াত-শিবির দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা ও নির্যাতন করে যে তাণ্ডবলীলা চালাচ্ছে তার প্রতিবাদে সারা দেশের মানুষকে একাত্তরের মতো ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।”

এই ঐক্যের ডাক দিয়েই সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত মালোপাড়া অভিমুখে গণজাগরণ মঞ্চের দুই দিনের রোডমার্চ শুরু হয়েছে বলে জানান তিনি।

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে তরুণ সমাজ ও মুক্তিযোদ্ধাদের দুর্বার গণঅন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে ইমরান বলেন, “ফরিদপুর জেলা হলো সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির রোল মডেল। এই আন্দোলনে সকলকে অংশ নিতে হবে।”

জনসভায় গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে তিন দফা দাবি তুলে ধরেন ইমরান।

এগুলো হলো- সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধে আলাদা আইন প্রণয়ন, হামলা ও নির্যাতনের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত শাস্তি নিশ্চিত করা এবং সারা দেশে আক্রান্ত ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেয়া।

গত ৫ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর দেশের যশোর ও দিনাজপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু ধর্মাবলম্বী সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা ও লুটপাট চালানো হয়। এরপর গত মঙ্গলবার ক্ষতিগ্রস্ত মালোপাড়ার উদ্দেশ্যে রোডমার্চ কর্মসূচির ঘোষণা দেয় গণজাগরণ মঞ্চ।

যাত্রাপথে দুপুরে প্রথমে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং পরে মানিকগঞ্জে দুটি পথসভা করেন তারা।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ফরিদপুর শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আমিনুর রহমান ফরিদের সভাপতিত্বে  জনসভায় অন্যদের মধ্যে বাপ্পাদিত্য বসু, লাকী আক্তারসহ গণজাগরণমঞ্চের সংগঠক ও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা বক্তব্য দেন।

সন্ধ্যা ৬টার দিকে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা শহরের জনতা ব্যাংকের মোড়ে সমাবেশস্থলে পৌঁছালে উপস্থিত কয়েক হাজার মানুষ শ্লোগানে শ্লোগানে পুরো এলাকা মুখরিত করে তোলেন।

এর আগে বিকেল থেকে সভামঞ্চে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করেন স্থানীয় শিল্পীরা। মুক্তিযুদ্ধের আলোকচিত্র প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হয় সেখানে।

সমাবেশ শেষে যশোরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে গণজাগরণ মঞ্চের গাড়ির বহর।

এরপর ফরিদপুরের মধুখালীতে মধুবন মার্কেটের সামনে এবং মাগুরা পৌঁছে খানপাড়া বটতলায় পথসভা করবে গণজাগরণ মঞ্চ।

রাতে যশোর পৌঁছে শেষ হবে রোড মার্চের প্রথমদিন। সেখানেই রাত কাটাবেন মঞ্চের কর্মীরা। শনিবার সকাল ৮টায় তারা যাত্রা করবেন অভয়নগর উপজেলার সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস কবলিত মালোপাড়ার উদ্দেশ্যে।

সেখানে পৌঁছে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত মালোপাড়া এলাকার আক্রান্ত এলাকা পরিদর্শন, আক্রান্ত মানুষদের সঙ্গে মতবিনিময়, সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস রোধে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে স্থানীয় জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধকরণ এবং দুর্গত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করার ইচ্ছার কথাও জানিয়েছেন ইমরান।

সবশেষে ফেরার পথে যশোর চিত্রামোড়ে আরেকটি সমাবেশ করবে গণজাগরণ মঞ্চ।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.