‘নির্বাচন বর্জনের আহ্বান’

Khaleda 5উইমেন চ্যাপ্টার: ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে ‘কলঙ্কময় প্রহসন’ বলে উল্লেখ করেছেন বিরোধী দলীয় নেতা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। পাশাপাশি তিনি এই নির্বাচন বর্জনের জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি। আজ শুক্রবার এক বিজ্ঞপ্তিতে খালেদা জিয়া এ আহ্বান জানান।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, এই প্রহসনকে দেশে-বিদেশে কোথাও কেউ নির্বাচন হিসেবে বৈধতা দেবে না। এর মাধ্যমে বৈধতার খোলস ছেড়ে অবৈধ মূর্তিতে আবির্ভূত হবে আওয়ামী লীগ সরকার।

এদিকে এই নির্বাচন ঠেকাতে অনির্দিষ্টকালের অবরোধের মধ্যেই আবার কাল শনিবার সকাল ছয়টা থেকে সারা দেশে টানা ৪৮ ঘণ্টার হরতাল ডেকেছে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৮-দলীয় জোট। ১৮-দলীয় জোটের হরতাল কর্মসূচি ঘোষণার পরই খালেদা জিয়া এক বিবৃতিতে নির্বাচন বর্জনের আহ্বান জানালেন।

বিবৃতিতে বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ‘দেশের মানুষের ভোটের, সাংবিধানিক, গণতান্ত্রিক ও মৌলিক মানবিক সমস্ত অধিকার কেড়ে নিয়ে আওয়ামী লীগ অপকৌশল ও সন্ত্রাসের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা কুক্ষিগত রাখার উদ্দেশ্যে আগামী ৫ জানুয়ারি জাতীয় সংসদের অর্ধেকেরও কম আসনে নির্বাচনের নামে এক নির্লজ্জ প্রহসনের আয়োজন করেছে। আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশনের সহযোগিতায় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীগুলোকে ভয়ংকরভাবে অপব্যবহার করে গণতন্ত্র নাশের কদর্য অধ্যায় রচনা করা হচ্ছে। তাই ৫ জানুয়ারি চিত্রিত হয়ে থাকবে জঘন্য কলঙ্কময় এক কালো তারিখ হিসেবে।’

খালেদা জিয়া বলেন, ‘ইতিমধ্যে সংবাদমাধ্যমে খবর এসেছে যে, অল্প কিছু দলীয় লোক সারা দিন ভোটকেন্দ্রে লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে জালভোট দিয়ে ভোটার উপস্থিতির সংখ্যা বাড়িয়ে দেখাবার জন্য আওয়ামী লীগের এক সাংসদ নির্দেশ দিয়েছেন। সেই নির্দেশের প্রমাণ হিসেবে “অডিও ক্লিপ” সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে। এই প্রহসন ও ভোটাধিকার কেড়ে নেওয়ার বিরুদ্ধে জনগণ যাতে বৈধভাবে প্রতিবাদ জানাতে না পারে, তার জন্য সবখানে এখন চালু করা হয়েছে বন্দুকের শাসন।’

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.