আমরা যারা একলা থাকি – ৭

imp 1উইমেন চ্যাপ্টার: নতুন বছরের প্রথম দিনে ফোনে শুভেচ্ছা বিনিময় করছিলাম একজন সহকর্মীর সাথে। তিনি অন্য প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। কারোরই হাতে তেমন কাজ না থাকায় এটা সেটা কথাবার্তা, এলো বর্তমান রাজনৈতিক অস্থিরতার বিষয়। সন্তানদের লেখাপড়ার কি পরিমাণ ক্ষতি হচ্ছে সেই সব। চাকরিরত মায়েদের যে দুশ্চিন্তার বোঝা দ্বিগুণ, সেই আলাপও করলাম। তাঁর স্ত্রীও চাকরি করেন এবং আমার বন্ধু। তো আমার সহকর্মীর স্ত্রীকেই অফিসের কাজ, হাজার ঝক্কি ঝামেলা সামলে এই কাজটি করতে হয়। আমার সহকর্মীটি কোন কোন সময় বাচ্চাদের স্কুলে নিয়ে যান আসেন, বেশিরভাগ সময়েই করেন না।

তো কথা বার্তার এক পর্যায়ে তিনি বলে বসলেন, আপনাদের তো সুবিধা, সংসারের তেমন কোন কাজ করতে হয় না ইত্যাদি। জানতে চাইলাম কেন তাঁর এমন মনে হল, উত্তর শুনে বেকুব হয়ে রইলাম। রাগ নয়, কষ্ট নয় স্রেফ বেকুব ফিল করলাম।

আমার দীর্ঘদিনের পরিচিত, একসাথে কাজ করেছি, অত্যন্ত উদার বলে পরিচিত এই মানুষটি যা বললেন তার সারমর্ম হলো, একলা নারী যেহেতু বাড়ীতে স্বামী নামক একজন পুরুষ প্রভুর রাজত্ব নাই কাজেই মানুষের সংসার জীবনে যে কাজ বা দায়িত্বগুলো থাকে, তা থেকে মুক্ত। যেন একলা নারীটিকে বাজার-ঘাট করতে হয় না, সন্তানদের জন্য রান্না করতে হয় না, ঘরের অন্যান্য কাজকর্ম করতে হয় না।

কিভাবে একজন মানুষ বুঝতে পারে না যে, একলা মায়ের দায়িত্বের ভার আরও বেশী। তাকে চাকরি সামাল দিয়ে সংসারের অন্য যাবতীয় কাজের চাপ সামলে একই সাথে সন্তানদের পড়ালেখার বিষয়েও খেয়াল রাখতে হয়। বরং বেশিই রাখতে হয় এই কারণে যে, একলা মায়ের সন্তানদের সামান্য ভুল-ত্রুটিও আমাদের পরিবার বা সামাজিক বলয়ে আলোচিত হয় অত্যন্ত রুঢ়ভাবে।

আমারই এক আত্মীয়ার ছেলেটি একটু বখে যাচ্ছিল, তখন কোন এক পারিবারিক সভায় আমাদেরই আরেকজন বয়স্ক আত্মীয় বলে উঠলেন, ‘যেমন মা, তেমন ছা!’ আমি প্রতিবাদ করতে গিয়ে অনেকের বিরাগভাজন হলাম। অথচ আমরা সবাই জানতাম যে একলা মা’টি নিজের জানের ওপর কষ্ট দিয়ে ছেলেটিকে ভাল স্কুলে পড়ালেখা আর প্রাইভেট কোচিং করাচ্ছিলেন, যেখানে ছেলেটির পিতা কোন ধরনের দায়িত্বই নেয় নাই। এবং ধারণা করি আমার অনুপস্থিতিতেও আমার বা আমার সন্তানদের সম্পর্কে এমন মন্তব্যই হয়তো করা হয়ে থাকে।

আমি আমার এই সহকর্মীটির সাথে আর কোন ধরনের যুক্তিতে না গিয়ে ফোন রেখে দিলাম!

হায় সেলুকাস! ‘বিবাহিত’ সার্টিফিকেট ধারীদের অভিবাদন আর যারা, বিশেষ করে যেই নারীরা এই সার্টিফিকেট ছিন্ন করার মতন মতিভ্রমে পড়েছে, ধিক তাদের। ধিক ধিক !

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.