কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের প্রক্রিয়া শুরু

Kader Molla 2উইমেন চ্যাপ্টার: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন খারিজ করে দেয়ার পর এখন ফাঁসি কার্যকরের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে কাদের মোল্লার সাথে দেখা করে এসেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। তার দুই ছেলে এবং চার মেয়ে দেখা করেন।

এর আগে আবেদন খারিজ হওয়ার পর তাঁর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে আইনগত আর কোনো বাধা নেই বলে জানান অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ছয় মিনিটে এ আদেশ দেন।

প্রধান বিচারপতি মাত্র কয়েক শব্দে রায় ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ‘বোথ দ্য রিভিউ পিটিশনস আর ডিসমিসড’ (দুটি পুনর্বিবেচনার আবেদনই খারিজ করা হলো)।

এর আগে আজ বেলা ১১টা ৪৫ মিনিটে আসামিপক্ষের আইনজীবী আবদুর রাজ্জাকের বক্তব্য উপস্থাপনের মধ্য দিয়ে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের গ্রহণযোগ্যতা ও পুনর্বিবেচনার বিষয়ে শুনানি শেষ হয়।

আজ সকাল সোয়া নয়টায় দ্বিতীয় দিনের শুনানি শুরু হয়। শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আবদুর রাজ্জাক। বেলা ১১টার দিকে বিরতিতে যান আদালত। ১১টা ৩৫ মিনিটে আবার শুনানি শুরু হয়। দুপুর ১২টা ছয় মিনিটে আদেশ দেন আদালত।

আদেশ শেষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম প্রথম আলো ডটকমকে বলেন, ‘আদালত রিভিউ আবেদন খারিজ করেছেন। ফলে কাদের মোল্লার মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে আইনগত আর কোনো বাধা নেই।’

একই বিষয়ে একই বেঞ্চে গতকাল বুধবারও শুনানি হয়।

গত মঙ্গলবার কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের প্রস্তুতি নেয় কারা কর্তৃপক্ষ। সরকারের দুই প্রতিমন্ত্রীও রাত ১২টা এক মিনিটে ফাঁসি কার্যকর হবে বলে আনুষ্ঠানিকভাবে জানান। এর পরই ফাঁসির কার্যক্রম স্থগিতের আবেদন নিয়ে চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের বাসায় হাজির হন কাদের মোল্লার আইনজীবীরা। রাত সাড়ে ১০টার দিকে তিনি পরদিন বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ফাঁসির কার্যক্রম স্থগিত রাখার আদেশ দেন।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.