শাপলা চত্বরে আবারও সমাবেশ করবে হেফাজত

Hefajot Islamউইমেন চ্যাপ্টার: গত ৫ মে নারকীয় তাণ্ডবের পর ফের রাজধানীর মতিঝিলের শাপলা চত্বরে আগামী ২৪ ডিসেম্বর মহাসমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ। আজ রোববার বিকেলে হেফাজতের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, চট্টগ্রামের হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল মাদ্রাসায় সংবাদ সম্মেলনে হেফাজতের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী এ ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, আহমদ শফীর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করে যারা দেশে ‘নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি’ সৃষ্টিতে ইন্ধন জোগাচ্ছে, তাদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা, নতুনভাবে গজিয়ে ওঠা নাস্তিক ব্লগারদের অপতৎপরতা কঠোর হস্তে দমন করা, সংবিধানে মহান আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস পুনঃ স্থাপন, মহানবী (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তিকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে আইন পাস, গ্রেপ্তারকৃত হেফাজতের নেতা-কর্মীদের মুক্তি, দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, ৫ ও ৬ মে শাপলা চত্বরে শহীদ ও পঙ্গু হয়ে যাওয়া তৌহিদি জনতার নিরপেক্ষ তদন্ত করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া এবং ১৩ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে এ কর্মসূচি দেওয়া হচ্ছে।

নতুন কর্মসূচি অনুযায়ী কাল সোমবার বেলা তিনটায় হাটহাজারীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করবে হেফাজতে ইসলাম। এ ছাড়া ২৯ নভেম্বর দেশের সব উপজেলায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করবে তারা।

ঢাকায় মহাসমাবেশের আগে ৩০ নভেম্বর টাঙ্গাইলে, ৯ ডিসেম্বর দিনাজপুরে, ১২ ও ১৩ ডিসেম্বর চট্টগ্রামে, ২০ ডিসেম্বর ফেনীসহ নোয়াখালী, কুমিল্লা, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, ময়মনসিংহ, হবিগঞ্জ, বগুড়া, সিলেট, খুলনা, রাজশাহী প্রভৃতি জেলা ও বিভাগীয় শহরে শানে রেসালাত মহাসমাবেশ করা হবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহি বলেন, হেফাজত কাউকে ক্ষমতা থেকে সরানো এবং ক্ষমতায় বসানোর জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করছে না। ইসলাম, ইমান ও আকিদা রক্ষার জন্য নবী প্রেমিকদের নিয়ে তারা আন্দোলন সংগ্রাম করছে। হেফাজতে ইসলামকে বিএনপির জামায়াতের তকমা লাগিয়ে একটি চক্র দেশে বিস্ফোরণমুখ পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে চায়।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘আবার কতিপয় নাস্তিক-মুরতাদ নতুনভাবে ব্লগে মহান আল্লাহ, বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে জঘন্য ভাষায় লেখালেখি শুরু করেছে। সরকার তথ্যপ্রযুক্তি আইন করে এক চেটিয়া ইসলামপন্থীদের বিরুদ্ধে অপপ্রয়োগ করে চলছে। অথচ নাস্তিক-মুরতাদরা অহরহ সেই আইন লঙ্ঘন করলেও তাদের বিরুদ্ধে কার্যকর কোনো ব্যবস্থা সরকার নিচ্ছে না।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন হেফাজতের নায়েবে আমির মাওলানা শামসুল আলম, নায়েবে আমির তাজুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় সাহিত্য সম্পাদক আশরাফ আলী নিজামপুরী, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী, কেন্দ্রীয় সহ-অর্থ সম্পাদক ইলিয়াছ ওসমানী, চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক মীর ইদ্রিছ প্রমুখ।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.