শফীর দোয়া নিলেন এরশাদ, ১৩ দফায় ‘আশ্বাস’

ershad_shafiউইমেন চ্যাপ্টার: হেফাজতে ইসলামের আমীর আহমদ শফীর ‘দোয়া’ নিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। এরপরই তিনি ‘মহাজোট সরকারের বিরুদ্ধে নির্বাচন করার ঘোষণা দেন।  শনিবারই তিনি মহাজোটে না থাকার ঘোষণা দিয়েছিলেন। আজ রোববার চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসায় শফীর সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। ক্ষমতায় গেলে এরশাদ হেফাজতের ১৩ দফা বাস্তবায়নের আশ্বাস দিয়েছেন বলেও জানা গেছে।

এরশাদ বলেন, ‘আমি শুধু দোয়া নিতে এসেছিলাম, হুজুর দোয়া করেছেন। উনি রাজনীতি করেন না। তার সাথে রাজনীতির কথা হয়নি’। ঢাকা থেকে বিমানে চট্টগ্রামে পৌঁছানোর পর বেলা ১১ টা ৪০ মিনিটে হাটহাজারী মাদ্রাসায় পৌঁছান সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ। এরপর ওই মাদ্রাসার মহাপরিচালক শফীর কক্ষে প্রায় ৫০ মিনিট অবস্থান করেন তিনি।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সাংসদ ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সাবেক মন্ত্রী জিয়াউদ্দিন বাবলু, নগর জাতীয় পার্টির সভাপতি সোলায়মান আলম শেঠ এবং হেফাজতের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এরশাদ বলেন, ‘উনি রাজনীতি করেন না, হেফাজত রাজনৈতিক দলও না, উনি একজন ইসলামী চিন্তাবিদ, তাদের মধ্যে ইসলামের কথা হয়েছে।”

জাতীয় পার্টি নতুন জোট থেকে নির্বাচন করবে কি-না জানতে চাইলে দলের চেয়ারম্যান বলেন, “যদি আলাদা জোট করতে পারি, ইনশাল্লাহ নির্বাচন করব।… জোট করে এ সরকারের বিরুদ্ধে নির্বাচন করব।”

তবে বাবুনগরী বলেন, রাজনৈতিক বিষয়ে আলোচনা না হলেও ক্ষমতায় যেতে হলে বা ক্ষমতায় থাকতে হলে হেফাজতের তের দফা দাবি মানতে হবে। এরশাদ সেই আশ্বাস দিয়েছেন। গত ৬ মার্চ মতিঝিলে সমাবেশ করে ১৩ দফা দাবি উপস্থাপন করে হেফাজতে ইসলাম। ১৩ দফার চার নম্বর দাবিতে বলা হয় ‘ব্যক্তি ও বাকস্বাধীনতার নামে সব বেহায়াপনা, অনাচার, ব্যভিচার, প্রকাশ্যে নারী-পুরুষের অবাধ বিচরণ, মোমবাতি প্রজ্বালনসহ সব বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ বন্ধ করতে হবে।’ 

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.