বিএনপির ৫ নেতা আট দিনের রিমান্ডে

BNP leaders 2উইমেন চ্যাপ্টার: বিএনপির স্থায়ী কমিটির তিনজন সদস্যসহ পাঁচ নেতাকে আট দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। তাদের বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলা, গাড়ি ভাংচুর ও বিস্ফোরণের দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মহানগর হাকিম রেজাউল করিম বৃহস্পতিবার সকালে আসামিদের জামিন আবেদন নাকচ করে রিমান্ডে পাঠান।

এর মধ্যে একটি মামলায় তিন দিন ও অন্য মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বিচারক।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার, রফিকুল ইসলাম মিয়া এবং বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টু ও বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসের উপস্থিতিতেই তিনি এই আদেশ দেন।

দুই সপ্তাহে ছয় দিনের হরতাল শেষে  গত ৮ নভেম্বর তৃতীয় দফায় ৭২ ঘণ্টার হরতাল ঘোষণা করার পর বিএনপি নেতাদের আটক করা হয়।

গত ৫ নভেম্বর হরতালে কমলাপুরে হাতবোমা বিস্ফোরণ,পুলিশের ওপর হামলা এবং ২৪ সেপ্টেম্বর মতিঝিলে আইডিয়াল স্কুল ও কলেজের সামনে গাড়ি ভাংচুরের দুই মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

ওই দিন পাঁচ আসামিকে দুই মামলায় ১০ দিন করে ২০ দিন পুলিশ হেফাজতে পাঠানোর আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। কিন্তু মামলার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় বৃহস্পতিবার রিমান্ড আবেদনের শুনানির দিন রাখে আদালত।

বিএনপির ৫ নেতাকে শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে হাজির করা হয়।  পরে দুপুর পৌনে ১২টা থেকে দুই মামলার রিমান্ড ও জামিনের ওপর দীর্ঘ শুনানি হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের পিপি আবদুল্লাহ আবু এবং ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি খন্দকার আব্দুল মান্নান।

আসামিপক্ষে শুনানি করেন সাবেক মন্ত্রী ব্যরিস্টার আমিনুল হক, সুপ্রীম কোর্টের সাবেক সভাপতি জয়নাল আবেদীন, বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট এ জে মোহাম্মদ আলী, বার কাউন্সিলের হিউম্যান রাইটস এবং লিগ্যাল এইডের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা খান, অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সানাউল্লাহ মিয়া, ব্যরিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন এবং ঢাকা বারের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ মিয়া আলম।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.