সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাবে বিএনপি’র ‘না’

BNPউইমেন চ্যাপ্টার: বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সর্বদলীয় সরকারে বিএনপি কখনও অংশ নেবে না। এ ছাড়া ওই সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত কোনো নির্বাচনেও অংশ নেবে না দলটি।
আজ সোমবার বিকেলে নয়াপল্টনে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন মির্জা ফখরুল।

আওয়ামী লীগ একতরফা নির্বাচনের দিকে এগোচ্ছে দাবি করে নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারে অংশ নেওয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি।

মির্জা ফখরুল বলেন, স্পষ্ট ভাষায় বলে দিতে চাই, সর্বদলীয় কোনো সরকারে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না। সরকারের একতরফা নির্বাচনেও আমরা যাব না। এর একদিন আগেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারে বিএনপিকে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে সে বিষয়ে সংলাপে আসতে তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন।

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে ৬০ ঘণ্টা হরতালের প্রথম দিন বিকালে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ওই প্রস্তাবের প্রতিক্রিয়া জানান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব।

দেশকে অচলাবস্থার দিকে ঠেলে দেওয়ার জন্য সরকারকে দায়ী করে তিনি বলেন, “অহমিকা, গোয়ার্তুমি আর নিষ্ঠুরতায় সরকার হার্ডলাইন নিয়ে দেশকে এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

আন্তর্জাতিক মাস্টারপ্ল্যানে তারা একতরফা নির্বাচন করার পাঁয়তারা করছে উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন কার্যত একদলীয় বাকশালেরই নামান্তর।

মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, নির্দলীয় সরকারের দাবির প্রতি কোনো সাড়া না দিয়ে প্রধানমন্ত্রী একতরফাভাবে নিজেদের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানে অন্তর্বর্তীকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনের কথা বারবার বলছেন। এ ঘোষণা রাজনীতিতে আরও সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।
বিএনপি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হরতালের প্রথমদিনে সারা দেশে দুজন নিহত ও এক হাজার ৮০০ জনের মতো আহত হয়েছে বলে দাবি করেন।
হরতালের পুলিশি বেষ্টনির মধ্যে নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহ দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করীম শাহিন, কৃষক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তকদীর হোসন জসিম, বেলাল আহমেদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.