বুদ্ধিজীবী হত্যাকারী দুই ‘বদর নেতার’ রায় রোববার

0

Bodor netaউইমেন চ্যাপ্টার: একাত্তরে বুদ্ধিজীবী হত্যা মামলায় সেই সময়কার ‘বদর নেতা’ আশরাফুজ্জামান খান ও চৌধুরী মুঈনুদ্দীনের রায় হবে রোববার। এরা দুজনেই এখন পলাতক রয়েছেন।

তাদের বিরুদ্ধে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার ঠিক আগ মূহূর্তে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের নেতৃত্ব দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। উভয়পক্ষের যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন শেষে বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন ট্রাইবুনাল-২ গত ৩০ সেপ্টেম্বর মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখেন।

এ মামলার দুই তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ প্রসিকিউশনের পক্ষে মোট ২৫ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। ১৫ জুলাই প্রথম সাক্ষী হিসেবে নিজের জবানবন্দি উপস্থাপন করেন শহীদ অধ্যাপক গিয়াসউদ্দিন আহমেদের ভাগ্নি মাসুদা বানু রত্না।

চৌধুরী মুঈনুদ্দীন ও আশরাফুজ্জামানের অনুপস্থিতিতেই গত ২৪ জুন মানবতাবিরোধী অপরাধের ১১টি ঘটনায় অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল।

এর আগে গত ২৮ এপ্রিল আশরাফুজ্জামান খান ও চৌধুরী মাঈনুদ্দীনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করেন প্রসিকিউটর মোখলেসুর রহমান বাদল।

এতে বলা হয়, ১৯৭১ সালের ১১ থেকে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের ‘দায়িত্বপ্রাপ্ত’ আলবদর বাহিনীর ‘চিফ এক্সিকিউটর’ ছিলেন আশরাফুজ্জামান খান। আর চৌধুরী মুঈনুদ্দীন ছিলেন সেই পরিকল্পনার ‘অপারেশন ইনচার্জ’।

ওই সময় তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নয় জন শিক্ষক, ছয় জন সাংবাদিক ও তিনজন চিকিৎসকসহ ১৮ বুদ্ধিজীবীকে অপহরণের পর নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করেন বলে অভিযোগ এনেছে প্রসিকিউশন।

তারা দুজনেই জামায়াতে ইসলামীর তখনকার সহযোগী সংগঠন ইসলামী ছাত্রসংঘের নেতা ছিলেন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিপক্ষে ‘সক্রিয় অবস্থান’ নেন।

আশরাফুজ্জামানের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের বেজড়া ভাটরা (চিলেরপাড়) গ্রামে। আর চৌধুরী মাঈনুদ্দীনের বাড়ি ফেনীর দাগনভুঞার চানপুরে।

বর্তমানে আশরাফুজ্জামান যুক্তরাষ্ট্রে এবং চৌধুর মুঈনুদ্দীন যুক্তরাজ্যে রয়েছেন।

গত ২ মে আশরাফুজ্জামান ও চৌধুরী মুঈনুদ্দীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে ট্রাইব্যুনাল। সম্ভাব্য ঠিকানায় তাদের পাওয়া যায়নি বলে প্রসিকিউশন বিভাগ জানানোর পর ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রারকে দুটি জাতীয় দৈনিকে এই বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে বলা হয়।

বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ১০ দিনের মধ্যে আশরাফুজ্জামান ও চৌধুরী মুঈনুদ্দীনকে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু তারা হাজির না হওয়ায় তাদের অনুপস্থিতিতেই মামলার কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখাটি ০ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.