এবার পাঠ্যসূচিতে ‘আই অ্যাম মালালা’

mamalaউইমেন চ্যাপ্টার: পাকিস্তানী কিশোরী মালালা ইউসুফজাইর লেখা বই ‘আই অ্যাম মালালা’ পাঠ্যসূচিতে  অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়। পাকিস্তানে নারী ও শিশু শিক্ষার অধিকার আন্দোলনের অন্যতম নাম আজকের কিশোরী মালালা। তবে পুরো বইটাই পাঠ্য করা হবে না। এর অংশবিশেষ পড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ক্রমে তা স্কুলের পাঠ্যসূচিতেও স্থান পাবে।

তার এই অধিকার আদায়ের আন্দোলনের কারণে তালেবান জঙ্গিদের রোষানলের শিকার হয় মালালা। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গতবছর পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকায় তাকে লক্ষ করে গুলিও করা হয়। কিন্তু প্রাণে বেঁচে যায় মালালা। এ নিয়ে বিশ্ব গণমাধ্যমে ব্যাপক তোলাপাড় শুরু হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য তখন তাকে ব্রিটেনে আনা হলে সুস্থ হয়ে নিরাপত্তার কারণে এখানেই থেকে যায় মালালা।

 ‘আই অ্যাম মালালা’ বইটির প্রতি ছত্রে উঠে এসেছে পাকিস্তানের তালেবান অধ্যুষিত এলাকার মেয়েদের দুর্দশার কথা। সেসব অভিজ্ঞতার কথা জানতেই মার্কিন মুলুকে তার বইটি পাঠ্য করা হয়েছ বলে জানানো হয়েছে। তবে বইটির পুরোটাই পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তারা।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানিয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকরা বইটি পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা নিয়ে বইটির প্রকাশনা সংস্থার সঙ্গে বসবে। কোন অংশ কতটা ও কিভাবে পাঠ্যক্রমের অন্তর্ভুক্ত করা যায় তা নিয়ে আলোচনার পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শুধু নারীশিক্ষা নয়, মুসলিম দুনিয়ায় মেয়েদের অবস্থা জানার ক্ষেত্রেও মালালার অভিজ্ঞতার দলিল কাজে লাগবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.