ভেসেলকা গ্রাদিশকা

১৯৮৭ সাল থেকে সোভিয়েত ইউনিয়নের পড়ার সুবাদে ওর সাথে আমার পরিচয়। কালক্রমে দুবছর আমরা হোস্টেলের একই রুমে ছিলাম। ভাল নাম ভেসেলকা গ্রাদিশকা, আমরা তাকে ডাকতাম ভেসি বা আদর করে ‘ভেসকো’ ‘ভেসিচকা’ বলে। ফেসবুকে তার নাম ভেসি পেনকোভা। বুলগেরিয়াতে জন্ম ও বেড়ে উঠা। তারপর পড়তে আসা তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের লেনিনগ্রাদে (এখন সেন্ট পিটার্সবুর্গ)। আন্তর্জাতিক জার্নালিজমে সে রেডিও-টেলিভিশন নিয়ে পড়াশোনা করে। তখন থেকেই প্রচণ্ড উদ্যমী ভেসিকে দেখতাম তাদের দেশিদের নিয়ে রাত জেগে পত্রিকা বের করতে, কবিতা লিখতে, ছবি আঁকতে। ছবি তুলতে ভালবাসতো তখন থেকেই। কোনদিন ক্লান্ত হতে দেখিনি। পড়াশোনাতেও সে ছিল অদ্বিতীয়। …১৯৮৯ সালে আমি সেপ্টেম্বরে ছুটি শেষে লন্ডন থেকে হোস্টেলে ফিরে এসেছি। কিছুদিন পরই হঠাৎ ভেসি তড়িঘড়ি করে রুমে ঢুকলো, কিছু কাপড়চোপড় নিয়ে দৌড়াতে শুরু করলো। কি হয়েছে জানতে চাইলে সে বললো, বার্লিন ওয়াল ভাঙা হচ্ছে, সেখানে থাকতেই হবে। সেখান থেকে সে আমাকে এক টুকরো ওয়াল এনে দিয়েছিল।
…প্রায়ই প্রেমে পড়তো মেয়েটা। কিন্তু কোনদিন এ নিয়ে তাকে মর খারাপ করতে দেখিনি। বলতো, একটা প্রেম ভেঙ্গে গেলে সেই প্রেমের যাবতীয় স্মৃতি ফেলে দেবে, দেখবে মনটা হালকা হয়ে যাবে। কিছুদিন দমে থেকে আবার সে নতুন উদ্যমে প্রেমে পড়তো, কাজেও নামতো। এই হলো আমার ভেসি।
…হঠাৎই দু বছর আগে (২০১১) ফেসবুকে সে আমাকে আবিষ্কার করলো। ২০ বছর পর বন্ধুকে ফিরে পাওয়ার আনন্দই আলাদা। সে তখন ইতালিতে। জানালো, বিয়েটা ভেঙ্গে গেছে। আগের দুই সন্তান ১৮ বছর হয়ে যাওয়ায় ওরা এখন বাবার কাছেই থাকে। আর সে ফেসবুকে ফিরে পেয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথম প্রেম চিলির রেনেকে। রেনেও ততদিনে একা। আবারও শুরু নতুন জীবন। ইতালি থেকে ভেসি পাড়ি জমালো রেনের কাছে চিলিতে। নতুন করে জীবনটাকে দেখবে বলে। ওর ভাষায়, ‘ঈশ্বর যখন আবার মিলিয়েই দিয়েছে, দেখি না পরখ করে’। আমি কেবলই মুগ্ধ হই ওর প্রতি।
…কিন্তু ভেসি মনে হয় এবারও হার মানলো। রেনের মাদকাসক্তি চরম পর্যায়ে, পারলো না সে ওকে ফিরিয়ে আনতে। ওকে ছেড়ে বিদেশ-বিভুঁইয়ে একা হয়ে পড়লো ভেসি। কিন্তু স্প্যানিশ ভাষাটা আগে থেকে রপ্ত থাকাতে চাকরি খুঁজে নিতে বেগ পেতে হলো না। এখন সে চাকরি করে, ঘুরে বেড়ায়, সুযোগ পেলেই পাড়ি জমায় এ দেশ-ও দেশ। ছবি তোলে। মাচু-পিচু থেকেও ঘুরে এসেছে সে। ফটোগ্রাফির জন্য সে হণ্যে হয়ে ঘুরছে।
জয়তু ভেসি।
(আমি আমার এই অনলাইনে ভেসির অনুমতি নিয়ে ছবি শেয়ার করবো আপনাদের সাথে) – সুপ্রীতি ধর, সম্পাদক।
শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.