‘এখনও সময় আছে সংবিধান সংশোধন করুন’

উইমেন চ্যাপ্টার: সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই তারা নির্বাচনে যাবেন। তিনি বলেন, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জোরালো হয়ে উঠেছে। এখনও সময় আছে, সংবিধান সংশোধন করে নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা ফিরিয়ে আনুন, নির্বাচন দিন। পুলিশ, র‍্যাব, বিজিবি দিয়ে নির্বাচন করা যাবে না। সমানে সমানে দাঁড়ান, নির্বাচন দিন, দেখেন নির্বাচনে কে জেতে?

রোববার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিএনপিপন্থী পেশাজীবীদের এক সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। খালেদা বলেন, “বিএনপি শুধু নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনেই নির্বাচনে যাবে। এর বাইরে নয়।”

প্রথমে এই সম্মেলনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলে পরে শর্তসাপেক্ষে অনুমতি নিয়ে এই সম্মেলনের আয়োজন করে সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ। সন্ধ্যা ৬টার দিকে বক্তৃতার শুরুতেই সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, “সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে আপনারা যে কনভেনশন করছেন এজন্য অবশ্যই আপনারা ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য।”

প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, যেভাবেই প্রধানমন্ত্রী হোন না কেন, আপনি দেশের মানুষকে অনেক আশ্বাস দিয়েছিলেন, এই করবেন, সেই করবেন। কিন্তু কিছুই করেন নাই। এটাও তো বলেন নাই যে, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার চেয়েছিলাম, কিন্তু ক্ষমতায় এলে সেটা কেড়ে নেবো? জনগণ তো আপনাকে এ ব্যাপারে ম্যান্ডেট দেননি। চুপিচুপি পার্লামেন্টে একতরফাভাবে সংবিধান সংশোধন করেছেন। আদালতও তো আপনাদের কথাতেই চলে। কাকে ধরে নিয়ে যেতে হবে, কাকে ফাঁসি দিতে হবে, সবই তো আপনাদের নির্দেশে হচ্ছে।

পেশাজীবীদের প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন, আপনারাই বলেন, বাংলাদেশের কোন প্রতিষ্ঠান আজ নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে? কতজনের চাকরি চলে গেছে, কতজনকে ওএসডি করে রাখা হয়েছে? বাইরে যেভাবে পুলিশে অবস্থান নিয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে, এটা যেন একটা যুদ্ধক্ষেত্র। আপনাদের (সরকারের) আচরণে গণতন্ত্রের প্রমাণ মিলছে না। প্রতি কথায়ই মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছে। অনেক আগেই মানুষের সিদ্ধান্ত ন্য়ো উচিত ছিল, এরকম ভুল মানুষের হাতে দেশ পড়লে, দেশও ভুলপথেই যাবে।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে খালেদা জিয়া বলেন, আপনি যদি মনে করেন, আপনি অনেক জনপ্রিয়, আপনার দল অনেক জনপ্রিয়, নির্বাচন করে আপনারা আবার জিতে আসবেন, তাহলে সমানে সমানে দাঁড়ান, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেন, সমান ফিল্ড হোক, আমরা দেখি, জনগণ দেখুক, জনগণ জানে তারা কোথায় যাবে, সেটাই হোক।

 নির্বাচনের এখনও কোন খবর নেই, অথচ হেলিকপ্টারে করে আপনি নৌকায় ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন। আপনি কি জানেন, আপনার নৌকা ফুটো হযে গেছে? আপনার নৌকায় আর কোন মাঝি উঠবে না?

 খালেদা জিয়া বলেন, মুক্তিযুদ্ধ যেন আপনাদের একতরফা! মুক্তিযোদ্ধা কিন্তু আপনারা নন, মুক্তিযোদ্ধা তারাই যারা রণাঙ্গনে যুদ্ধ করেছেন। আপনারা শুধু সীমান্ত পাড়ি দিয়েছেন।

 দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের গ্রেপ্তার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তার দোষটা কোথায় ছিল? তাকে নিয়ে জেলে ভরে রাখা হলো। তাতেই কি সব বন্ধ হয়ে গেল? অবিলম্বে তাকে মুক্তি দেওয়া হোক।

 নারীশিক্ষার কথা বলেন আপনারা?এই নারীশিক্ষার জন্য আমরা কাজ করেছি সবচেয়ে বেশি। কিন্তু দেশের নেতাদের প্রতি আপনাদের এতোই বিদ্বেষ যে, আমাদের নামটা আপনারা বলতে পারেন না। পাকিস্তানের মালালাকে গিয়ে সমর্থন জানিয়ে আসতে পারেন, কিন্তু আমাদের কথা বলেন না।

 সবশেষে যুবসমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, মাদক খাওয়া চলবে না। আমরা মাদক বন্ধ করবো। এই প্রজন্মকে বাঁচাতে হবে। কারণ এরাই আমাদের নেতৃত্ব দেবে। আজ সময় এসেছে, আওয়ামী লীগকে হটান, দেশকে বাঁচান।

46_Khaleda+Zia_BBICC_201013ছবিটি বিডিনিউজ থেকে সংগৃহীত

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.