প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক নন: বিএনপি

Mirza Fakhrul
ফাইল ছবি

উইমেন চ্যাপ্টার: নির্বাচন নিয়ে যে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে তা নিরসনে সংলাপ আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক নন বলেই মনে করছে বিরোধী দল বিএনপি। দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ সাংবাদিকদের একথা জানিয়ে বলেছেন, সংলাপের প্রশ্নে এর আগেও প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাব দিয়েছেন, তারপর নিজে থেকেই সরেও এসেছেন। সরকার আসলে দেশে সংঘাত সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির এই নেতা।

রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ-আশঙ্কার মধ্যে জাতির উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণের নির্ধারিত সময়ের কয়েক ঘণ্টা আগে বিএনপি এই মন্তব্য করলো।

বিএনপি সংসদে প্রস্তাব দিলে সংলাপ হতে পারে- প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন তাতে তার আন্তরিকতা প্রকাশ পায় না। এর আগেও তিনি নির্বাচনকালীন সরকারের একটি প্রস্তাব দিয়েছিলেন। পরে তিনি তা থেকে সরে গেছেন। তিনি বলেছিলেন সংসদ ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে। তা থেকেও তিনি সরে গেছেন।

বিএনপির মুখপাত্র বলেন, জনগণকে বিভ্রান্ত করার জন্যই তিনি এসব বলছেন। সরকার দেশে সংঘাত সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে।

সংবিধান অনুযায়ী আগামী ২৫ অক্টোবর থেকে ২৪ জানুয়ারির মধ্যে দশম সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা। এই সময়ে সরকারে থাকবে আওয়ামী লীগ, সংসদও বহাল থাকবে।

এদিকে নির্দলীয় সরকার পদ্ধতি পুনর্বহালের দাবিতে আন্দোলনরত বিএনপি নেতারা ২৪ অক্টোবরের পর দেশ অচল করে দেয়ার হুমকি দিয়ে আসছেন।

এ দাবিতে ২৫ অক্টোবর রাজধানীতে জনসভার ঘোষণা দিয়ে সেদিন দা, কুড়ালসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দলীয় কর্মীদের প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেন বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা।

অবশ্য বুধবার ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় দুই  নেত্রীর বক্তব্যেই আলোচনার সম্ভাবনা নিয়ে ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যায়।

গণভবনে ঈদের শুভেচজ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন,  “আমাদের দরজা আলোচনার জন্য সব সময় খোলা। প্রস্তাব দিলে আলোচনা হবে। সংসদে আসুক। মুলতবি প্রস্তাব দিক। আলোচনা হবে।”

বিএনপি নেতারা ২৫ অক্টোবর চূড়ান্ত আন্দোলনের যে হুমকি দিচ্ছেন- তা ‘খামোখা’ বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী।

অন্যদিকে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা বলেন, “আমরা দেশে কোনো সংঘাত ও অশান্তি চাই না। নির্দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। সরকারকে বলব- আসুন এখনো সময় আছে, আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে দেশে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের পরিবেশ তৈরি করি।”

তবে ২৫ অক্টোবর জনসভা করার সিদ্ধান্তে অনড় থাকার কথাও জানান বিরোধী দলীয় নেতা।

এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারে তার ভাষণ সম্প্রচার করা হবে।

 

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.