অধিবেশন দীর্ঘ করা সরকারের ষড়যন্ত্র: ফারুক

faruk-tmউইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক: ২৪ অক্টোবরের পর সংসদ চালু রাখার সিদ্ধান্ত নির্দলীয় সরকারের দাবি ঠেকাতে সরকারের ‘দুরভিসন্ধি’ বলে উল্লেখ করেছেন সংসদে বিরোধীদলের চীফ হুইফ জয়নুল আবদিন ফারুক।

সংসদ ভবনের মিডিয়ার সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন সৈয়দা আসিফা আশরাফী পাপিয়া, রেহানা আখতার রানু, মাহবুবউদ্দিন খোকন, আবুল খায়ের ভুঁইয়া।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী চলতি অধিবেশনে অনেকবার এই সংসদের মেয়াদ ২৪ অক্টোবর শেষ বলে বলেন। কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকেও সিদ্ধান্ত হয়েছিল, ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত সংসদ চলবে।

বিএনপির আন্দোলনকে ঠেকাতেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমরা স্পষ্টভাষায় বলতে চাই, ২৪ অক্টোবরের পর সংসদ চলুক আর নাই চলুক- নবম সংসদ ভেঙে দিতে হবে। নির্দলীয় সরকারের ব্যবস্থা সংবিধানে সংযোজন করতে হবে।”

বর্তমান অধিবেশনের মেয়াদ ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত পূর্বনির্ধারিত থাকলেও বুধবার আওয়ামী লীগের সিনিয়র সাংসদরা সংসদের বর্তমান অধিবেশনকে আরও দীর্ঘ করার দাবি জানান।

তাদের এই দাবিকে দুরভিসন্ধিমূলক ষড়যন্ত্রের অংশ বিশেষ উল্লেখ করে জয়নুল আবদিন বলেন, “এখন কোন ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে সংসদ বর্ধিত করার কথা বলা হচ্ছে, তা জাতির কাছে আজ প্রশ্ন। ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করতে এই রকম বক্তব্য দেয়া হচ্ছে।”

এদিকে, দলীয় সরকার ও সংসদ বহাল রেখে কোন নির্বাচনে না যাওয়ার হুমকি দিয়ে বিএনপির তরফ থেকে বলা হচ্ছে, ২৪ তারিখের মধ্যে সংসদের বিল এনে পঞ্চদশ সংশোধনী বাতিল করে নির্দলীয় সরকার পুনর্বহাল না করলে সরকার পতনের আন্দোলন করা হবে।

“২৩ অক্টোবর সংসদ অধিবেশন বসবে। আমরা এখনো আশা করি, আওয়ামী লীগ অতীতে যেভাবে পাঁচ মিনিটে একদলীয় বাকশালী ব্যবস্থা সংসদে পাস করেছে, এই দুদিনে তারা নির্দলীয় সরকারের বিল সংসদে পাস করানোর উদ্যোগ নেবে।”

২৪ অক্টোবরের পর সংসদ অধিবেশন চালু থাকলে বিএনপি সংসদ থেকে পদত্যাগ করবে কি না তা জিজ্ঞাসা করা হলে হুইপ ফারুক বলেন, “এটা দলের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের সিদ্ধান্তের বিষয়।”

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.