রোয়েদাদ পর্যন্ত অপেক্ষা করুন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

Ma Khaউইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক: পোশাক শিল্পকে রক্ষায় যেকোন ধরণের বিশৃঙ্খলা সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে তা প্রতিহত করা হবে। বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর।

পরবর্তী বেতন কাঠামোর জন্য মজুরি কমিশনের ঘোষণা পর্যন্ত শ্রমিকদের অপেক্ষা করতে বলেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, “মজুরি বোর্ডের রোয়েদাদ নভেম্বরের শেষে পাওয়া যাবে। যতদিন পর্যন্ত রোয়েদাদ না পাওয়া যায়, ততদিন পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনো ধরনের প্রতিবাদ উত্থাপন করা কিংবা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা কারোর পক্ষেই যাবে না।”

আজ বুধবার পোশাকশিল্পের মালিক ও শ্রমিকপক্ষের সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীরের বৈঠকের পর তিনি এসব কথা বলেন।

পোশাক শিল্পের ক্ষতি হলে শুধু মালিক নয় শ্রমিকদেরই ক্ষতি উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আজ যদি পোশাক শিল্প বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে এটা যেভাবে মালিকের স্বার্থ বিঘ্নিত করবে, তেমনি শ্রমিকের স্বার্থেরও ক্ষতি করবে। কাজেই রোয়েদাদ ঘোষণা পর্যন্ত অপেক্ষা করাই সবার জন্য উচিত হবে।”

তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, এই জাতীয় শিল্পের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া জাতীয় স্বার্থের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ার শামিল।

কোন বহির্শক্তির মদদে এমন কিছু হলে তা কঠোর হাতে দমন করার কথাও বলেন তিনি।

এদিকে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে বৈঠকের আগে পোশাক শ্রমিক নেতাদের সাথে বৈঠক করেন শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান। তিনি আন্দোলনরত শ্রমিকদের ভাংচুর করা থেকে বিরত থাকতে বলেছেন।

তিনি বলেন, “কারখানা ভাংচুর করা যাবে না। শ্রমিকরা শ্রম আইন অনুযায়ী দাবি করবে, যে দাবি বাস্তবায়নে সরকার শ্রমিকদের পাশে আছে।”

রানা প্লাজা ও তাজরিন ফ্যাশনসের ঘটনার পর বাংলাদেশের পোশাক শ্রমিকদের কাজের ক্ষেত্রে ঝুঁকি ও বেতন বিষয়ে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় ব্যাপক সমালোচনা উঠে। তাই শ্রমিকদের বেতন ও ভাতা বাড়ানোর লক্ষ্যে গত মে মাসে মজুরি বোর্ড গঠন করে সরকার। এ বিষয়ে বোর্ড ও মালিকদের মধ্যে কয়েক দফা আলোচনা হলেও কোন সিদ্ধান্তে আসা যায়নি।

এদিকে শ্রমিকরা ন্যূনতম মজুরি ৮ হাজার টাকা দাবি তোলে। পোশাক শিল্প মালিকরা ৩ হাজার ৬০০ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে।

শ্রমিকদের সহিংস আন্দোলনে শনিবার থেকে রাজধানী, সাভার, আশুলিয়া, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জে ব্যাপক ভাংচুর হয়েছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.