মেয়ে যত ‘সুন্দরী’ তার বিপদ তত বেশি!

তারেক আজিজ বাপ্পী:

আমাদের বিদ্যমান পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় দৈহিক দিক দিয়ে, চেহারা-ছবিতে যে মেয়েটা বেশি আকর্ষণীয় তার জন্য জীবনে বড় হয়ে ওঠার পথে প্রতিবন্ধকতা তত বেশি। হোক সে তার মানসিক, বুদ্ধিবৃত্তিক বা ক্যারিয়ারের বিকাশে, এমনকি তার শারীরিক বিকাশের ক্ষেত্রেও সে এই সমস্যাগুলোর মোকাবেলা করবে।

কীভাবে তা একটু ব্যাখ্যা করা যাক—

ধরা যাক ঢাকার একটি বিশ্ববিদ্যালয় ৪র্থ বর্ষে পড়ুয়া শারমিন (ছদ্মনাম)। সে দেখতে সুন্দর ও আকর্ষণীয়। করোনা মহামারীর সময়ে শিক্ষা কার্যক্রমে ব্যাঘাত না ঘটলে সে এতোদিনে অনার্স গ্রাজুয়েট হয়ে যেত। এই সমস্যা শারমিনসহ ছেলে-মেয়ে নির্বিশেষে দেশের এই স্তরের সব শিক্ষার্থীই ফেস করছে। তো তার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম যা ঘটেছে তা হলো, বিগত দেড় বছরে সে তার নিজ পরিবারের সদস্য, আত্মীয়-স্বজন-পরিচিতজন মারফত এ পর্যন্ত প্রায় অর্ধশত বিয়ের প্রস্তাব পেয়েছে। তার মধ্যে আছে তার বাবার বন্ধুর ছেলে, অফিসের সহকর্মীর ছেলে থেকে শুরু করে মায়ের পক্ষের অমূক-তমূক দূর-দূরান্তের আত্মীয়-পরিচিতজন পর্যন্ত। সব ‘লোভনীয়’ চাকুরীজীবী ছেলে। জলোচ্ছ্বাসের মতো ধেয়ে আসা এতো এতো বিয়ের প্রস্তাব মোকাবিলা করতে করতে সে এখন ক্লান্ত, মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। এই অত্যাচার থেকে মুক্তি পেতে এই সময়কালে মাঝে মাঝেই সে ঢাকায় এসে অন্যান্য মেয়েদের সাথে কখনও ভাড়া বাসায়, কখনও বা গার্লস মেস/ হোস্টেলে (হল-ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায়) থেকেছে। সে জীবনে বড় হতে চায়। ক্যারিয়ারে প্রতিষ্ঠিত হতে চায়। একজন স্বতন্ত্র-স্বাধীন মানুষ হিসেবে নিজের একটা পরিচয় চায়। তার আগে বিয়েশাদির কোন পরিকল্পনা তার ছিল না। এভাবেই কাটছে তার দিন। এখন পর্যন্ত সে এই লড়াইয়ে টিকে আছে, কিন্তু এই স্যাডিস্ট সমাজকে মোকাবেলা করে কতদিন টিকতে পারবে তা সে নিজেও জানে না।

এই চিত্র পুরো বাংলাদেশের। রূপকার্থে শারমিনরা হলো গোটা সমাজের প্রতিচ্ছবি। গ্রামগঞ্জের অবস্থা তো ভয়াবহ।

এখানে মেয়েশিশুর চেহারা সুন্দর হলেই যেন সে হয়ে ওঠে গোটা পাড়ার মানুষের মাথাব্যথার কারণ। গা-গতরে একটু বেড়ে উঠতেই তার বিয়ের দরকষাকষি নিয়ে মা-বাবা থেকে শুরু করে প্রতিবেশী চিন্তায় কারো ঘুম হয় না। অনেক অভিভাবক আবার দেখা যায় তাদের কন্যাশিশুর বয়স বাড়তেই গুপ্তধনের মতো তাকে লুকিয়ে রাখতে তৎপর হয়ে ওঠেন। বেড়ে যায় তার প্রতি বাড়ির বাইরে না যাবার হুকুম; গেলেও অতিরিক্ত কাপড়ে নিজেকে মুড়ে তারপর যাওয়ার শর্তে। খেলাধুলা সব হয় তার জন্য নিষিদ্ধ। কোন সুস্থ ও সচেতন ব্যক্তির অনেকক্ষেত্রে মনে হতে পারে যে গ্রামের বেশিরভাগ কন্যাসন্তানের অভিভাবকেরা ঠিক ততদিন তাদের মেয়ে সন্তানের বিয়ে স্থগিত রাখেন, যতদিন মেয়েটির জননাঙ্গ একটি পুরুষাঙ্গকে ধারণে সক্ষম হয়। অনেকক্ষেত্রে তারও আগেই বিয়ে হয়ে যায়। এসবের ফলস্বরূপ ঘটতে থাকে দাম্পত্য কলহ (পুতুল খেলার বয়সে দাম্পত্যের কী বোঝে ওই মেয়ে), শারীরিক-মানসিক নির্যাতন, বৈবাহিক ধর্ষণ, অকাল গর্ভধারণ ও গর্ভপাত, এমনকি সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে মৃত্যু পর্যন্ত। এখানে কন্যাশিশুর চেহারা একটু ‘কম সুন্দর’ হলে বা শারীরিক কোন গুরুতর প্রতিবন্ধকতা থাকলেই বরং কেবল সেই একটু বেশি শিক্ষাদীক্ষার সুযোগ পায়। তাও কিন্তু সেই বিয়ের জন্য যোগ্য হয়ে উঠতেই। এতসব বাঁধার পাহাড় অতিক্রম করে এই সমাজ থেকে কোনো মেয়ের উঠে এসে আত্নপরিচয় প্রতিষ্ঠা করে পূর্ণাঙ্গ মানুষ হয়ে ওঠার ঘটনা স্বাভাবিকভাবেই অতি বিরল।

এতো গেল প্রত্যক্ষভাবে সামাজিক দিক থেকে আসা বিপদের বিবরণ। এবার দেখা যাক এই সামাজিক সেটআপ বা ফাঁদে কীভাবে একটি মেয়ে নিজেই নিজের বিপদ ডেকে আনে। এই সিস্টেম নামক ফাঁদের প্রথম কাজ হল কীভাবে একটি মেয়েকে মেধাশূন্য বা ব্রেইনলেস করা যায় তার চেষ্টা করা।

সেটা কীভাবে হয়—

তারেক আজিজ বাপ্পী

ব্যাপারটা হলো সমাজের মানুষ মেয়েটার সৌন্দর্যের প্রশংসায় মেতে থাকে। এটা এক পর্যায়ে তোষামোদে পরিণত হয়। আর এখান থেকে তার মধ্যে তৈরি হতে থাকে নারসিসিজম বা আত্নপ্রেম; প্রশংসা পেলে যা মানুষের স্বাভাবিক প্রবৃত্তি। কিন্তু আত্নপ্রেম যখন অনিয়ন্ত্রিত পর্যায়ে পৌছায় তখন তা পরিণত হতে পারে একধরনের মানসিক বিকারে। ঠিক এই জায়গা থেকেই তার পুরুষতান্ত্রিক সমাজের ফাঁদে পা দিয়ে বিপদ ডেকে আনা শুরু হয়। সে যদি গোঁটা ব্যাপারটা কি হচ্ছে তা ধরতে না পারে তো দেখা যাবে মানুষ যত তার শারীরিক সৌন্দর্যের প্রশংসা করবে, দ্বিগুণ গতিতে তার মধ্যে বাড়বে নারসিসিজম। ফলস্বরূপ ঐ মেয়ের চিন্তাজগত একটা সংকীর্ণ গণ্ডিতে আবদ্ধ হয়ে পড়বে। নিজেকে আরও আরও সুন্দরভাবে উপস্থাপন করে মানুষের মনোরঞ্জন কীভাবে করা যায় তার নিত্যনতুন উপায় খোঁজা, নিজে প্রকৃতপক্ষে যা বা যা হতে চেয়েছিল তার ট্র্যাক হারিয়ে ফেলা ব্যাপারগুলো তার সাথে ঘটতে থাকে। কিন্তু সে সময় থাকতে এর কিছুই বুঝে উঠতে পারে না। একজন নারসিসিস্ট এর মস্তিষ্ক চলতে থাকে অন্যের কমান্ডে।

অন্যভাবে বলা যায় সমাজের লোকজন তার মস্তিষ্ক দখলে নিয়ে সেখানে কলোনি স্থাপন করে ফেলে। এই অনিয়ন্ত্রিত নারসিসিজম ব্যাপারটার সাথে সম্পর্কিত আরেকটা ব্যাপার তখন স্বাভাবিকভাবেই চলে আসে তা হল পপুলিজম বা জনতুষ্টিবাদ। রাজনীতিবিজ্ঞানের টার্ম হলেও পপুলিজম ব্যাপারটা যেকোন নারসিসিস্ট ব্যক্তির আচরণের সাথেও কিছুটা সম্পর্কিত। দেখা যেতে পারে সে জনগণকে তুষ্ট করতে বা তার ফ্যান-ফলোয়ারদের তুষ্ট করতে নিজের ইচ্ছাকে প্রাধান্য না দিয়ে লোকে কী বলবে, সমাজ কী ভাববে এসব চিন্তায় ব্যস্ত থাকে, ফলে সমাজের সনাতন চিন্তাধারার বাইরে তার আর যাওয়া হয় না। জনতুস্টির আশায় তার মূল ফোকাস হয়ে উঠতে পারে তার শরীর। চেহারার প্রশংসা পাওয়ার জন্য হয়ে যেতে পারে সে সাজুগুজু নিয়ে ব্যতিব্যস্ত, অথবা ফ্যাশন ম্যানিয়াক রোবট টাইপ মানুষ। যা শেষ পর্যন্ত গিয়ে দাঁড়াতে পারে এক্সিবিশনিজম নামক বিকৃতি অথবা তার নিজ শরীরকে পণ্যকরণ পর্যন্ত। এই পর্যায়ে পড়াশোনা-জ্ঞানার্জন থেকে সে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হতে থাকে। প্রসঙ্গত একটি জনপ্রিয় আফ্রিকান প্রবাদ এখানে স্মরণ করা যেতে পারে— “Unlike the brain, the stomach alerts you when it’s empty” অর্থাৎ “পেট খালি হলে সঙ্কেত দেয়, কিন্তু মাথা খালি হয়ে গেলে কোন সঙ্কেত দেয় না”।

সুতরাং এটা এমন একটা সমাজ যেখানে প্রতি পদে পদে নারীর অগ্রযাত্রাকে থামানোর জন্য তৈরি করে রাখা হয়েছে ফাঁদ। নারী সেসব ফাঁদে পা দিচ্ছে বুঝে এবং না বুঝে। এখানে আছে পুরুষতন্ত্রে অভ্যস্ত এক বিশাল ব্রেইনলেস নারীগোষ্ঠী যারা নিজেরা নারী হলেও তাদের অবস্থান নারীর বিকাশের সম্পূর্ণ বিপরীতে। তাদের ব্যাপারে বিশেষ সতর্কতা জরুরি। এই সিস্টেমে একটি মেয়ে যত ‘সুন্দরী’, হুটহাট যার-তার সাথে বিয়ে হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও তার তত বেশি। তাই সমাজস্রোতের বিপরীতে টিকে থাকার স্বার্থে তাদের সমতাবাদী বা নারীবাদী হওয়াটা একটু বেশিই জরুরি। এজন্য পড়াশোনাটা খুব দরকার; পৃথিবী-সমাজ–রাষ্ট্রের সিস্টেম সমূহ বোঝাটা খুব জরুরি। তখনই কেবল সম্ভব নারীবাদ নিয়ে বাজারে ছড়ানো প্রপাগান্ডা ও ভ্রান্তির জবাব দিতে পারা ও জনসচেতনতা সৃষ্টি করতে পারা। নারীবাদের দর্শন তাদের দেবে আশার আলো (প্রতিকুল পরিবেশে লড়াই করার জন্য দরকারি শক্তি, সাহস, প্রেরণা)। ও হ্যাঁ সমাজ কিন্তু বলবে, “তাদের বিয়ে হবে না”! কথা কিন্তু সত্য! আসলেই তাদের ‘বিয়ে হবে’ না, কারণ তারা তো ‘বিয়ে করবে’; যখন তাদের ইচ্ছা তখন, তার ভালোলাগার-ভালোবাসার মানুষকে; যখন তার ক্যারিয়ার সুনিশ্চিত তখন।

-তারেক আজিজ বাপ্পী
শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ইমেইলঃ [email protected]

শেয়ার করুন:
  • 479
  •  
  •  
  •  
  •  
    479
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.