আজ মাদার তেরেসার জন্মদিন

madar teresaউইমেন চ্যাপ্টার: সেবিকা নাম শুনলেই যাঁর কথা সবার আগে মনে পড়ে তিনি মাদার তেরেসা। আজ ২৬ আগস্ট তাঁর ১১৩ তম জন্মদিন।

১৯১০ সালের এই দিনে তিনি অটোম্যান সাম্রাজ্যের অন্তর্গত ইউস্কুপে জন্মগ্রহণ করেন।

মাত্র ১২ বছর বয়সে পিতার মৃত্যুর পর ধর্মীয় জীবন যাপন শুরু করেন তিনি। ১৮ বছর বয়সে তিনি গৃহত্যাগ করে একজন মিশনারি হিসেবে যোগ দেন সিস্টার্স অব লোরেটো সংস্থায়।

১৯৩৭ সালের ১৪ মে পূর্ব কলকাতায় একটি লোরেটো কনভেন্ট স্কুলে পড়ানোর সময় তিনি চূড়ান্ত শপথ গ্রহণ করেন। সে সময়কার কলকাতার দারিদ্র্য ও ১৯৪৬ এর হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গায় বহু লোকের হতাহতের ঘটনা তাঁর মনে ব্যাপকভাবে দাগ কাটে।

তার পরের বছর ১৯৪৭ সালে তিনি নির্জনবাসের জন্য দার্জিলিং এ যান। ১৯৪৮ এ প্রথাগত লোরেটো অভ্যাস ত্যাগ করেন। মাত্র ১৩ জন সদস্যের ছোট্ট দল নিয়ে চ্যারিটি কাজ শুরু করেন। ক্ষুধার্ত ও নিঃস্বদের ডাকে সাড়া দিতে থাকেন তিনি। বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করতে থাকেন তাদের। অচিরেই তাঁর কাজ ভারত সরকারের নজরে আসে। এ বছরই তিনি ভারতের নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন।

১৯৫০ সালে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন মিশনারিজ অব চ্যারিটি নামের দাতব্য প্রতিষ্ঠান। যেটিতে বর্তমানে ৪ হাজারেরও বেশি নান কাজ করছেন। মিশনারিজ অব চ্যারিটি সম্পর্কে তিনি বলেন, এটির লক্ষ্য হলো ক্ষুধার্ত, বস্ত্রহীন, গৃহহীন, দৃষ্টিহীন সহ অনাদর অবহেলায় থাকা সকল মানুষের সেবা করা।

সুদীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে তিনি দরিদ্র, অসুস্থ, অনাথ ও মৃত্যুপথযাত্রী মানুষের সেবা করে গেছেন। মিশনারিজ অব চ্যারিটির বিকাশ ও উন্নয়নের জন্যেও করেছেন অক্লান্ত পরিশ্রম।

মিশনারি কার্যক্রম ছড়িয়ে দেন সারা বিশ্বে। যেখানেই সহায়তাহীন মানুষের খোঁজ পেয়েছেন সেখানেই ছুটে গেছেন সেবা করতে।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়ও তিনি মানবতার ডাকে সাড়া দিয়ে ছুটে এসেছেন। একাত্তরের ডিসেম্বরে তিনি খুলনা ও ঢাকার কয়েকটি ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। পরে ঢাকায় মিশনারিজ অভ চ্যারিটির একটি শাখা খোলেন তিনি। ফিল্ড হাসপাতাল করে সেবা দিয়েছেন যুদ্ধাহতদের। ছোট ছোট বাচ্চাদের ডাস্টবিন থেকে তুলে এনে পরম মমতায় নিরাপদ আশ্রয়ে পাঠিয়ে দেন।

মৃত্যুর পর পোপ দ্বিতীয় জন পল স্বর্গীয় হিসেবে আখ্যা দেন এই মহীয়সীকে।

স্বীকৃতির জন্য কখনো কাজ না করলেও তিনি নানা সম্মানে ভুষিত হয়েছেন। ১৯৭৯ সালের ১৭ অক্টোবর তিনি তাঁর সেবাকার্যের জন্য নোবেল শান্তি পুরস্কার ও ১৯৮০ সালে ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান ভারতরত্ন লাভ করেন।

জন্মদিনে এই স্বর্গের দূতকে সশ্রদ্ধ প্রণাম।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.