প্রসঙ্গ: কালো, তবু সুন্দর

সারওয়ার-ই আলম:

একচেটিয়া প্রথম আলোর দোষ দিই কী করে! কাগজটি তো আমাদের চিরায়ত মানসিকতাকেই তুলে ধরেছে। কাজটি যে সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক বা বিভাগীয় সম্পাদক সচেতনভাবে করেছেন, আমি অন্তত ব্যক্তিগতভাবে তা মনে করি না। তাহলে কি এটা ভুল ছিল? না তাও নয়। এটা নকশার প্রতিবেদক, আমি, আপনি এবং আমাদের মতো লক্ষ কোটি বাঙালির দৃষ্টিভঙ্গি। কিংবা বলতে পারি সুন্দর সম্পর্কে জাতির এক বিরাট অংশের বিশ্বাস।

আমাদের কাছে সুন্দর মানে হলো গায়ের রং ফর্সা— ছোটবেলা থেকে এটা জেনেই তো বড় হই আমরা। বিয়ে করতে গেলে পাত্র, পাত্রের অভিভাবক ফর্সা গায়ের রঙের পাত্রীর সন্ধান করেন। কালো গায়ের রঙের মেয়েদেরকে সুন্দর বলা হয়না বঙদেশে। চেহারা ভাল হলে বড়জোর বলা হয়, ‘কালো হলে কী হবে, দেখতে কিন্তু ভারী মিষ্টি’। আহারে করুণা! প্রথম আলোতে বাঙালির সে দৃষ্টিভঙ্গিটাই প্রতিফলিত হয়েছে। তারা শিরোনাম দিয়েছে— কালো, তবু সুন্দর। অর্থাৎ কালো হলে কী হবে দেখতে কিন্তু সুন্দর! আহারে জাতির বিবেক! ধিক!

কী অদ্ভূত শিরোনাম তাই না! পড়লেই ঘেন্না ধরে যায়। কিন্তু কতজন বাঙালির চোখে পড়েছে এটা? আর পড়বেই বা কেন! বঙ্গীয় দেশে নারী পুরুষের গায়ের রং যে কত গুরুত্বপূর্ণ এটা একমাত্র তারাই বোঝেন যারা কালো গায়ের রং নিয়ে জন্ম নিয়েছেন।

সারওয়ার-ই আলম

গায়ের রং নিয়ে ছেলেদের তুলনায় বেশি বর্ণবাদের শিকার আমাদের দেশের মেয়েরা। অবশ্য এটা যে বর্ণবাদ আমাদের সমাজে সে ধারণাও তো এখনও প্রতিষ্ঠিত হয়নি। জন্মের পর কন্যা সন্তান কালো হলে প্রসূতিকে কী পরিমাণ গঞ্জনার শিকার হতে হয়, তা কমবেশি আমাদের অনেকেরই জানা।

এর কারণ কী? কারণ একটাই— কালো মেয়েকে বিয়ে দেয়া মুশকিল। আমাদের দেশে কন্যা সন্তান জন্ম নিলেই বাবা-মায়ের প্রধান দুশ্চিন্তা হয়ে দাঁড়ায় একে বিয়ে দিবে কিভাবে। আর সে কন্যা যদি কালো হয় তাহলে তো দুশ্চিন্তায় তাদের রীতিমতো রাতের ঘুম হারাম। সব দোষ গিয়ে পড়ে বেচারি গর্ভধারিণীর ওপর— ‘তোর কারণে মাইয়্যা কালো হয়েছে, তুই এই মাইয়্যারে চালাইবি কীভাবে?’

আমাদের সমাজে মেয়েদেরকে আমরা ‘চালাই’। কী জঘন্য শব্দ! মানবতার কী অপমান! বিয়ে দেয়া অর্থে এই চালানো শব্দ ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ কালো হলে তাকে বিয়ে দেয়াই তো দায় হয়ে দাঁড়াবে। যে সমাজ কন্যা সন্তানের গায়ের রং নিয়ে এই ধারণা পোষণ করে, সে সমাজে শিক্ষার আলো হয়তো পৌঁছেছে কিন্তু জ্ঞানের আলো পৌঁছেনি। এই না পৌঁছানোর কারণ- আমাদের শিক্ষা জীবিকামুখী, জ্ঞানমুখী নয়। যতদিন জ্ঞানমুখী শিক্ষা চালু না হবে তবে আমরা বলবো — কালো, তবু সুন্দর। কালো, তবে ভীষণ মিষ্টি। কালো, তবে দেখতে দারুণ কিউট। কালো, তবে বেশ আকর্ষণীয়া। এতকিছু বলবো কিন্তু কালো মেয়েকে আমরা কখনোই সুন্দরী বলবো না। তার ক্ষেত্রে আমরা একটি তবে অথবা তবু ব্যবহার করবো। ততদিন এই তবে অথবা তবু ব্যবহার বন্ধ হবেনা যতদিন না জ্ঞানমুখী শিক্ষা চালু হয়।

লেখক: লন্ডন প্রবাসী কবি ও সাংবাদিক
ই-মেইল: [email protected]

শেয়ার করুন:
  • 134
  •  
  •  
  •  
  •  
    134
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.