দিনাজপুরের ইয়াসমিনের কথা মনে আছে কি?

yasmin rape

উইমেন চ্যাপ্টার: ১৯৯৫ সালের ২৪ শে আগস্টের কথা, একটা সহজ-সরল কিশোরী কর্মস্থল ঢাকা থেকে মায়ের সাথে দেখা করতে এসেছিল দিনাজপুরে। ভোরে পুলিশের জিম্মায় মায়ের কাছে যাবার কথা ছিল তার। কিন্তু পথিমধ্যে পুলিশ পিশাচগুলো তাকে ধর্ষণ করে লাশ ফেলে দেয় দিনাজপুর শহরের পাঁচ কিলোমিটার দূরে ব্র্যাক অফিসের পাশে রাস্তায়।

এলাকার মানুষ বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠলে প্রশাসন ইয়াসমিনকে পতিতা বলে ধামাচাপা দেবার চেষ্টা করেছিল কিন্তু জনতা আরো বিগড়ে যায়। ২৬ আগস্ট রাতে বিক্ষুব্ধ জনতা কোতোয়ালি থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করা কালে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ও বিক্ষুব্ধ জনতা কোতোয়ালি থানার সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে ফেলে। ২৭ আগস্ট বিক্ষুব্ধ জনতা প্রশাসনিক কর্মকর্তার বদলিসহ দোষী পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবিতে বিশাল মিছিল বের করলে পুলিশ নির্বিচারে গুলি চালায়। এ সময় সাত জন নিহত ও আহত হয় তিন শতাধিক। বিক্ষুব্ধ জনগণ শহরের ৪টি পুলিশ ফাঁড়ি জ্বালিয়ে দেয়। বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে দিনাজপুরের ১৩টি থানাসহ সারাদেশে।

সেই থেকে ২৪ আগস্ট দিনাজপুরের ইয়াসমিন ট্রাজেডি দিবস। দিনটি নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালন হয়ে আসছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.