স্তন ক্যান্সার: চিকিৎসা

মনিকা বেগ:

স্তন ক্যান্সারের কোন রোগীর চিকিৎসা কোন পদ্ধতিতে হবে, সেটি নির্ভর করে:

প্রথমত, রোগীর টিউমারের (tumor/lump) আকার, স্তন ক্যান্সারের ধরণ, স্টেজ (stage), ক্যান্সার কোষ গুলো কত খানি আক্রমণাত্মক (grade), এবং ক্যান্সার কোষ গুলো হরমোন (hormone) এবং HER2 রিসেপ্টর (receptor) সংবেদনশীল কিনা তার উপরে; এবং দ্বিতীয়ত, রোগীর বয়স, সার্বিক শারীরিক অবস্থা, পারিবারিক স্তন ক্যান্সারের ইতিহাস, জেনেটিক মিউটেশন, এবং রোগীর ব্যক্তিগত ইচ্ছা বা চাহিদার উপরে।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই, স্তন ক্যান্সারের প্রধান চিকিৎসা হচ্ছে অপারেশন (operation)। তবে অনেক ক্ষেত্রেই, অপারেশনের পরে আরও অন্যান্য চিকিৎসা যোগ করা হয় – যেমন কেমোথেরাপি (chemotherapy), রেডিওথেরাপি (radiotherapy), হরমোন থেরাপি (hormone therapy), টার্গেটেড থেরাপি (targeted therapy) এবং ইমিউনোথেরাপি (immunotherapy)। বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে, অপারেশনের আগেই কেমোথেরাপি দেয়া হয়।

১) স্তন অপারেশন: 

এটিও বেশ কয়েক ধরণের হয়, যেমন লাম্পেক্টমি (lumpectomy), টোটাল মাস্টেক্টমি (total mastectomy), নিপল স্পেয়ারিং মাস্টেক্টমি (Nipple sparing mastectomy), কনট্রাল্যাটেরাল প্রোফাইল্যাকটিক মাস্টেক্টমি (contralateral prophylactic mastectomy), সেন্টিনেল লিম্ফ নোড ডিসেকশন (sentinel lymph node dissection), এক্সিলারী লিম্ফ নোড ডিসেকশন (axillary lymph node dissection), এবং ব্রেস্ট রিকন্সট্র্রাকশন সার্জারী (breast reconstruction surgery)।

  • লাম্পেক্টমি (lumpectomy)

এই অপারেশনকে স্তন সংরক্ষণ সার্জারি (breast-conserving surgery) ও বলা যায়, কারণ এই অপারেশন করে শুধুমাত্র টিউমার এবং টিউমারের চারপাশের অল্প কিছু সুস্থ টিস্যু (healthy tissue) অপসারণ করা হয়, কিন্তু স্তন অপসারণ করা হয় না।

সাধারণত স্তনের টিউমার আকারে ছোট হলে লাম্পেক্টমি করা হয়। অনেক সময়, ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা বড় টিউমারকে কেমোথেরাপির মাধ্যমে সংকুচিত করে, তারপর লাম্পেক্টমি করে থাকেন।

  • টোটাল মাস্টেক্টমি (total mastectomy)

কারো স্তন ক্যান্সার থাকলে অথবা স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অত্যন্ত বেশী হলে (যেমন পারিবারিক স্তন ক্যান্সারের ইতিহাস, জেনেটিক মিউটেশন), টোটাল মাস্টেক্টমি করা হয়। এই অপারেশনের মাধ্যমে পুরো স্তনটিকে তার সব টিস্যু, যেমন দুগ্ধ উৎপাদনকারী গ্রন্থি (lobules), দুগ্ধ নালী (ducts), ফ্যাটি টিস্যু (fatty tissue), স্তনের বোঁটা এবং স্তনের বাড়তি চামড়া, সহ অপসারণ করা হয়।

মাস্টেক্টমি করে যদি একটি স্তন অপসারণ করা হয়, সেটিকে বলে ইউনি-ল্যাটেরাল মাস্টেক্টমি (unilateral mastectomy), আর যদি দুটি স্তনই অপসারণ করা হয়, সেটিকে বলে বাই-ল্যাটেরাল মাস্টেক্টমি (bilateral mastectomy)।

  • নিপল স্পেয়ারিং মাস্টেক্টমি (Nipple sparing mastectomy – NSM)

এটি স্তন অপারেশনের একটি অপেক্ষাকৃত নতুন কৌশল। এই পদ্ধতিতে স্তনের বোঁটা এবং চামড়াকে সংরক্ষণ করে স্তনের অন্যান্য সব টিস্যু, যেমন দুগ্ধ উৎপাদনকারী গ্রন্থি (lobules), দুগ্ধ নালী (ducts), এবং ফ্যাটি টিস্যু (fatty tissue), অপসারণ করা হয়। এবং একই সাথে প্লাষ্টিক সার্জারীর মাধ্যমে স্তনের পুনর্নির্মাণ করা হয়। যার ফলে, স্তনের সৌন্দর্যহানী হয় না বললেই চলে।

তবে স্তন ক্যান্সারের সব রোগীর জন্য এই অপারেশন প্রযোজ্য নয়। ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা রোগীর ওজন, স্তনের আকার, স্তন ক্যান্সারের ধরণ, টিউমারের আকার, পজিশন (position), স্টেজ, গ্রেড ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে, তবেই ঠিক করেন, কোন রোগীর নিপল স্পেয়ারিং মাস্টেক্টমি করা যাবে, কোন রোগীর করা যাবে না।

  • কনট্রাল্যাটেরাল প্রোফাইল্যাকটিক মাস্টেক্টমি (contralateral prophylactic mastectomy)

অধিকাংশ নারীর ক্ষেত্রেই, তাদের একটি স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হলেও, অন্য স্তনটি সুস্থ থাকে। কিন্তু তারপরও তাদের কারও কারও দুটি স্তনই (ক্যান্সার আক্রান্ত স্তন এবং সুস্থ স্তন) অপসারণ করা হয়। এই সিদ্ধান্তের পেছনে রয়েছে তাদের পারিবারিক স্তন ক্যান্সারের ইতিহাস বা জেনেটিক মিউটেশন, যেটির কারণে তাদের সুস্থ স্তনটিতেও ভবিষ্যতে ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অত্যন্ত বেশী থাকে।

  • সেন্টিনেল লিম্ফ নোড ডিসেকশন (sentinel lymph node dissection)

এই পদ্ধতিতে, লাম্পেক্টমি অথবা মাস্টেক্টমি করার সময়, টিউমারের সব চেয়ে কাছের লিম্ফ নোড (sentinel lymph node) গুলোকে অপসারণ করা হয়। তারপর লিম্ফ নোড গুলোকে বায়োপসি করে দেখা হয় যে, ওগুলোতে ক্যান্সার ছড়িয়েছে কী না। যদি দেখা যায় যে ঐ লিম্ফ নোড গুলোতে ক্যান্সার ছড়ায়নি, তাহলে ধরে নেয়া হয়, বগলের ভিতরে অবস্থিত বাকি লিম্ফ নোড (axillary lymph node) গুলোতেও ক্যান্সার ছড়ায়নি। তাই আর ওগুলো অপসারণ করা হয় না।

  • এক্সিলারী লিম্ফ নোড ডিসেকশন (axillary lymph node dissection)

কিন্তু বায়োপসি করে টিউমারের সব চেয়ে কাছের লিম্ফ নোড (sentinel lymph node) গুলোতে যদি ক্যান্সার পাওয়া যায়, তাহলে বগলের ভিতরে অবস্থিত বাকি লিম্ফ নোড (axillary lymph node) গুলোকেও অপসারণ করে বায়োপসি করা হয়।

  • ব্রেস্ট রিকন্সট্র্রাকশন সার্জারী (breast reconstruction surgery)

অনেক স্তন ক্যান্সারের রোগীই স্তন অপসারণের পরে, তাদের স্তন পুনর্নির্মাণ করাতে চান। কিন্তু স্তন পুনর্নির্মাণের ক্ষেত্রে সব চেয়ে ভালো ফল পাওয়া যায়, যদি স্তন পুনর্নির্মাণের বিষয়টি স্তন অপসারণ করার আগেই, রোগী তার স্তন ক্যান্সার সার্জনের সাথে বিস্তারিত আলাপ করে নেন। এবং একই সাথে একজন প্লাষ্টিক সার্জনেরও মতামত নেন।

স্তন পুনর্নির্মাণের অপারেশনটি স্তন অপসারণের সময় একই সাথে করা যায়, অথবা কয়েক মাস বা বছর পরেও করা যায়। কয়েক ভাবে স্তন পুনর্নির্মাণ করা হয়ে থাকে, যেমন সিলিকন (silicone gel) বা স্যালাইন পানি (saline water) দ্বারা পূর্ণ ইমপ্লান্ট (implant) দিয়ে, অথবা রোগীর নিজের দেহের অন্য জায়গা (যেমন পেট, পিঠ, নিতম্ব বা উরু) থেকে নেয়া টিস্যু দিয়ে।

জটিলতা: অন্য যে কোন অপারেশনের মতই, স্তন ক্যান্সারের অপারেশনেও জটিলতা হতে পারে। সেটি অনেকাংশেই নির্ভর করে কোন ধরণের অপারেশন হচ্ছে তার উপরে। তবে স্তন ক্যান্সার অপারেশনের রোগীরা সাধারণত যেসব জটিলতায় ভুগতে পারেন, সেগুলো হলো – ব্যথা, রক্তক্ষরণ, ইনফেকশন, হাত ফুলে (lymphedema) যাওয়া, স্তনের চামড়া মরে যাওয়া (breast skin necrosis) ইত্যাদি।

২) কেমোথেরাপি (chemotherapy): 

এই পদ্ধতিতে ওষুধের সাহায্যে শরীরের দ্রুত বর্ধনশীল কোষ গুলোকে মেরে ফেলা হয়। এই দ্রুত বর্ধনশীল কোষের মধ্যে একদিকে যেমন ক্যান্সার কোষ আছে, অন্যদিকে আবার শরীরের সুস্থ কোষও আছে।

টিউমার অপারেশনের পরে, ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা যদি মনে করেন, রোগীর দেহে ক্যান্সার ফিরে আসার ঝুঁকি অনেক বেশী, অথবা রোগীর দেহের অন্যান্য অংশে ক্যান্সার ছড়িয়ে গেছে, তখন তারা রোগীকে কেমোথেরাপি দিতে চাইতে পারেন। আবার অনেক সময়, ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা বড় টিউমারকে কেমোথেরাপির মাধ্যমে সংকুচিত করে, তারপর টিউমার অপসারণ করে থাকেন।

পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া: কেমোথেরাপির কারণে বেশ কিছু পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হতে পারে, যেমন সব চুল পড়ে যাওয়া, হাত পায়ের নখ পড়ে যাওয়া, বমির ভাব, বমি, ক্লান্তি, খাওয়ায় অরুচি, সারা শরীরে ব্যথা, মুখ এবং হাত পায়ের ত্বক কালো হয়ে যাওয়া, দূর্বলতা, কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া ইত্যাদি। তুলনামূলক ভাবে কম হলেও, কেমোথেরাপির পরে আরও কিছু জটিলতা হতে পারে, যেমন মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়া, বন্ধ্যাত্ত্ব, হার্ট, কিডনি এবং নার্ভের অসুখ, এবং কিছু কিছু বিরল ক্ষেত্রে ব্লাড ক্যান্সার।

৩) রেডিওথেরাপি (radiotherapy):

এই পদ্ধতিতে, রোগীর শরীরের বাইরে থেকে একটি বড় মেশিনের মাধ্যমে রোগীর ক্যান্সারে আক্রান্ত জায়গাটিতে, উচ্চতর শক্তি সম্পন্ন রেডিয়েশন দিয়ে, ক্যান্সার কোষ গুলোকে মেরে ফেলা হয়। প্রয়োজন হলে, স্তন অপসারণ (mastectomy) করার পরেও বুকে রেডিওথেরাপি দিতে হতে পারে।

কোনো কোনো ক্ষেত্রে, রোগীর শরীরের ভিতরে স্থাপিত তেজস্ক্রিয় পদার্থের ক্ষুদ্র বীজ (radioactive seeds, or pellets) এর মাধ্যমে রোগীর ক্যান্সারে আক্রান্ত জায়গাটিতে, রেডিয়েশন দিয়ে ক্যান্সার কোষ গুলোকে মেরে ফেলা হয়। এই পদ্ধতিটিকে ব্র্যাকিথেরাপি (brachytherapy) বলা হয়।

রেডিওথেরাপি তিন দিন থেকে শুরু করে ছয় সপ্তাহ পর্যন্ত চলতে পারে। কোন রোগীকে কতদিন রেডিওথেরাপি দিতে হবে সেটি সব কিছু বিবেচনা করে একজন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ – এই ক্ষেত্রে রেডিয়েশন অনকোলজিস্ট (radiation oncologist) – তার রোগীর সম্মতি নিয়ে ঠিক করবেন।

পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া: রেডিওথেরাপির কারণে বেশ কিছু পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হতে পারে, যেমন ক্লান্তি, রেডিয়েশন দেয়া জায়গার চামড়া ক্রমাগত লাল হয়ে রোদে পুড়ে যাওয়ার মতো হওয়া, এমনকি চামড়াতে ঘা হয়ে যাওয়া, স্তন ফুলে যাওয়া অথবা স্তন অপেক্ষাকৃত শক্ত হয়ে যাওয়া ইত্যাদি। তুলনামূলক ভাবে কম হলেও, রেডিয়েশনের কারণে আরও কিছু জটিলতা হতে পারে, যেমন রোগীর হার্ট এবং ফুসফুসের ক্ষতি হওয়া, এবং কিছু কিছু বিরল ক্ষেত্রে, রেডিয়েশন দেয়া জায়গাতে নতুন করে ক্যান্সার হওয়া।

৪) হরমোন থেরাপি (hormone therapy):

এটির নাম হরমোন থেরাপি হলেও, আসলে এটি হরমোন বন্ধ করার থেরাপি। বায়োপসি করে যদি দেখা যায়, ক্যান্সারটি এস্ট্রোজেন হরমোন রিসেপ্টর সংবেদনশীল (Estrogen receptor positive – ER positive), এবং/অথবা প্রোজেস্টেরন হরমোন রিসেপ্টর সংবেদনশীল (Progesterone receptor positive – PR positive), তার মানে এস্ট্রোজেন এবং/অথবা প্রোজেস্টেরন হরমোন, ঐ ক্যান্সারের বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। সেই ক্ষেত্রে, হরমোন থেরাপি দিয়ে এস্ট্রোজেন এবং/অথবা প্রোজেস্টেরন হরমোনকে থামিয়ে দেয়া যায়।

পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া: হরমোন থেরাপির কারণে বেশ কিছু পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হতে পারে, যেমন হঠাৎ হঠাৎ করে গরম লাগা এবং ঘেমে যাওয়া, ত্বক এবং যোনিপথের শুষ্কতা, চুল পাতলা হয়ে যাওয়া, শরীরের হাড়ের ঘনত্ব কমে যাওয়া, রক্তে জমাট বাঁধা ইত্যাদি।

৫) টার্গেটেড থেরাপি (targeted therapy):

এই পদ্ধতিতে ওষুধের সাহায্যে ক্যান্সার কোষের দুর্বল জায়গাটিকে সরাসরি আক্রমণ করা হয়। যেমন, বায়োপসি করে যদি দেখা যায়, ক্যান্সারটি HER2 রিসেপ্টর সংবেদনশীল (HER2 positive), তার মানে ক্যান্সার কোষগুলো জেনেটিক মিউটেশনের কারণে মাত্রাতিরিক্ত HER2 রিসেপ্টর তৈরী করে স্তন ক্যান্সারকে দ্রুত বৃদ্ধি পেতে সাহায্য করছে। টার্গেটেড থেরাপি (যেমন হারসেপটিন থেরাপি) দিয়ে এই জীনকে থামিয়ে দেয়া যায়।

পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া: টার্গেটেড থেরাপির কারণে বেশ কিছু পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হতে পারে, যেমন মাথা ব্যথা, ডায়রিয়া, কাঁপুনি, জ্বর, হার্টের অসুখ, কাশি, ঘুম না হওয়া, ইনফেকশন ইত্যাদি।

৬) ইমিউনোথেরাপি (immunotherapy):

এই ওষুধ গুলোর সাহায্যে, রোগীর নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য প্রয়োজনীয় রসদ দেয়া হয়।

বিশেষ করে, ট্রিপল নেগেটিভ (Triple negative) স্তন ক্যান্সার (যেটিতে হারসেপটিন থেরাপি বা হরমোন থেরাপি কাজ করে না) এর চিকিৎসায়, কেমোথেরাপির সাথে ইমিউনোথেরাপির ব্যবহারে অনেক ক্ষেত্রেই ভালো ফল পাওয়া যাচ্ছে।

কিন্তু এটি মনে রাখা জরুরী যে, ইমিউনোথেরাপি একটি অত্যাধুনিক এবং অপেক্ষাকৃত নতুন চিকিৎসা কৌশল, যেটি নিয়ে এখনো নিবিড় গবেষণা চলছে।

 

সহায়ক/উপশমকারী চিকিৎসা এবং যত্ন (supportive/palliative treatment and care):

স্তন ক্যান্সারের চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে, এমনকি চিকিৎসা শেষ হওয়ার পরেও অনেক রকম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থাকতে পারে, যেমন হাড়ে ব্যথা, মাংসপেশীতে ব্যথা, মাথা ব্যথা, পেটে ব্যথা, বমিভাব, ক্লান্তি, শ্বাসকষ্ট, কোষ্ঠকাঠিন্য, ত্বক পুড়ে যাওয়া, ত্বক এবং যোনিপথের শুষ্কতা, অনিদ্রা, হতাশা, বিষণ্ণতা ইত্যাদি।

এগুলো উপশমের জন্য, সহায়ক (উপশমকারী) চিকিৎসা এবং যত্ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ স্তন ক্যান্সারের যথাযথ চিকিৎসার পাশাপাশি, এই উপশম গুলো লাঘব করতে পারলে, ক্যান্সার রোগীরা একদিকে যেমন শারীরিক ভাবে একটু আরাম পেতে পারেন, অন্যদিকে বাড়তে পারে তাদের মনোবলও। যা কিনা ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে তাদের সাহায্য করে।

(চলবে)

ডাক্তার মনিকা বেগ,
প্রধান এবং বৈশ্বিক সমন্বয়ক (অবসরপ্রাপ্ত),
এইচআইভি/এইডস সেকশন,
জাতিসংঘ সদর দপ্তর,
ভিয়েনাঅস্ট্রিয়া। 

শেয়ার করুন:
  • 252
  •  
  •  
  •  
  •  
    252
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.