ভালবাসার রং এতোই কাঁচা!

সাহানা লুবনা:

সংসার এবং দাম্পত্য দুটো একই সূত্রে গাঁথা হলেও ভিন্নতায় রয়েছে ব্যাপকতা। সংসার টিকে আছে মানেই দাম্পত্য সম্পর্কও টিকে আছে এমন ভাববার কোনো কারণ নেই। একটি সংসার-দাম্পত্য সম্পর্ক ছিন্ন হয়েও বছরের পর বছর টিকে থাকে বা টিকিয়ে রাখা হয়। অনেকে সেটি টিকিয়ে রাখেন বিভিন্ন কারণে কিংবা বাধ্য হয়ে। অনেকে টিকিয়ে রাখতে চান না বা রাখেন না বলেই ভাঙ্গন বিষয়টি দৃশ্যমান হয়।

দাম্পত্য বিষয়টি দ্বিপাক্ষীয়। দুজন মানুষের মধ্যে প্রেম, ভালোবাসা, বিশ্বাস, শ্রদ্ধা, আস্হা মিলে এই সম্পর্ক সুগঠিত হয়। এগুলোর যে কোনো একটির ঘাটতি হলেই সম্পর্ক হেলে পড়ে। অনেকেই প্রথম দুটি বিষয় অর্থাৎ প্রেম- ভালোবাসাকে দাম্পত্যের প্রধান দুটি উপকরণ হিসেবে মনে করেন এবং সেগুলো যত্ন -আত্তি করে লালন পালন কিংবা পোষ মানানোর ভাবনাও ব্যক্ত করেন। তা না হলে পাখি উড়াল দিয়ে যে কোনো সময় অন্য আকাশে বিচরণ করতে পারে এমন আশঙ্কার দোলাচলেও ভুগতে থাকেন।

এখন কথা হলো কী করে এর লালন পালন,যত্ন আত্তি সম্ভব। প্রেম ভালোবাসা কেবল অন্তরে থাকলেই চলবে না তা মুখে প্রকাশ করতে হবে। একে অপরকে হাইলাইট করতে হবে। একে অপরের প্রশংসায় পঞ্চমুখ থাকতে হবে।
অনেকে এই রুলস গুলো ফলো করছেন। তাই ইদানিং ভালবাসার এত এত মৌখিক প্রকাশ আমরা দেখতে পাই। জান, জানু, বেবি , সুইট হার্ট , মন ইত্যাদি নানান নামে একে অপরকে পাবলিক প্লেসে ডাকাডাকি করে মুখে ফেনা তুলে ফেলছেন। কিন্তু কিছুদিন পরে দেখা যায় এইসব জানু, বেবিদের দুজন দুদিকে মুখ ঘুরিয়ে জীবনের নতুন পথে হাঁটছেন। কেন এই ভাঙন ? কেন এই বদল?

ইদানিং অবশ্য এর একটি উত্তর অনেকখানে শুনতে পাওয়া যায়–‘ভালবাসার রং বদলায়’। সত্যিই কি তাই? ভালবাসার রং এতোই কাঁচা? নাকি নিজের বদলে যাওয়া রুচির রঙের দায়ভার ভালবাসার উপর চাপিয়ে দিয়ে নিজেকে দায়মুক্তির এক অভিন্ন প্রয়াস?

অনেকে আবার মনে করেন ভালবাসা ‘গিভ এন্ড টেক’ এমন একটি ব্যাপার। অথচ এমনও উদাহরণ আছে , বছরের পর বছর কোমায় পরে থাকা স্বামী কিংবা স্ত্রীর মুখের দিকে তাকিয়ে এক জীবন কাটিয়ে দেন

সুখময় সংসার যাপনের জন্য ভালবাসার প্রয়োজন একথা অনস্বীকার্য। তাই ভালবাসা কী তা বোঝা সব থেকে জরুরী। ভালবাসা কোনো রঙিন কাগজে মোড়ানো ফানুস নয়। দুঃখ-কষ্ট, আনন্দ- বেদনা,মান- অভিমান, শ্রদ্ধা সব মিলিয়েই ভালবাসা। ভালবাসার ব্যাপকতা বিশাল। আর এই বিশলতার মাঝে নিজেকে খুঁজে পেতে হলে মনকে থিতু করতে হবে। চৈতাল মন নিয়ে কখনো ভালবাসার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। দাম্পত্য জীবন এগিয়ে নেয়ার জন্য ভালবাসার পাশাপাশি স্হিতিশীল মানসিকতার প্রয়োজন, প্রয়োজন পারস্পরিক সম্মান, শ্রদ্ধার। জীবনে পাওয়া না পাওয়া, আনন্দ-বেদনা সব থাকবে। সঙ্গীর হাত বদল করে ভালবাসার রং বদলের খেলায় কখনো টিকে থাকা যায় না। পরিশুদ্ধ মানসিকতা , প্রকৃত ভালবাসার বোধ বা উপলব্ধিই পারে মানুষের জীবনকে সুখময় করে তুলতে। মোহাচ্ছন্ন হয়ে যে ভালবাসা তা আসলে প্রকৃত ভালোবাসা নয়। প্রকৃত ভালোবাসা আসে অসীম পরমাত্মা থেকে যা কিনা অমর , যার মৃত্যু নেই।

পারস্য কবি রুমি বলেছিলেন, “বিদায় শুধু তারাই বলে যারা চোখ দিয়ে ভালবাসে। যারা মনে করে চোখের দেখাই হলো একমাত্র ভালবাসা। যারা আত্মা আর হৃদয় দিয়ে ভালবাসে তাদের কাছে বিদায় নেই। কেননা আত্মা আর হৃদয় কখনো দূরে যেতে পারে না।”
কাজেই হৃদয় দিয়ে ভালবাসাকে ছুঁতে হবে। যে ভালবাসা হৃদয় ছুঁতে পারে না, আত্মা ছুঁতে পারে না সে ভালবাসায় আসলে কোনকালে রং ই ছিল না।

প্রকৃত ভালবাসায় সিদ্ধ হয়ে আঁকড়ে ধরুন প্রিয়জনকে। লোকদেখানো ভালবাসা নয়, আত্মার সাথে মেলবন্ধন হোক ভালবাসার। শুদ্ধ ভালবাসার চর্চা হোক প্রতিটি পরিবারে, প্রতিটি সংসারে। সুখময় হোক পারিবারিক জীবন। দাম্পত্য টিকে থাকুক ভালোবাসার দৃঢ়তায়।
রং বদলানো ভালবাসার প্রবাদ, প্রচলন থেকে বেরিয়ে আসুক ব্যক্তি, সমাজ।

শেয়ার করুন:
  • 1K
  •  
  •  
  •  
  •  
    1K
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.