শিশুদের জন্য এ কেমন পৃথিবী?

রোকসানা বিন্তী:

কয়েক বছর আগে ইন্ডিয়ার পুনেতে গিয়েছিলাম। সেখানে অটোতে করে ঘোরাঘুরির একপর্যায়ে গল্পে মেতে উঠেছিলাম অটো ড্রাইভারের সাথে! কৈশোর পার করা বিশ/বাইশ বছরের তরুণ। আমরা বাংলাদেশ থেকে গিয়েছি শুনেই জানালো, সে বাংলাদেশের ক্রিকেটের ফ্যান, কারণ সে সাকিব আল হাসানের ফ্যান! শুনে খুবই ভালো লাগলো! সাকিব কী চমৎকারভাবে নিজের দেশকে সারা পৃথিবীতে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন!
তার বিনিময়ে আমরা তাকে কী দিচ্ছি?
সমালোচনা, ট্রল, মিম, স্ত্রীকে জড়িয়ে উল্টাপাল্টা কমেন্ট, এসব তো আছেই, এখন তার মেয়েকেও আমরা ছাড় দিচ্ছি না!

সূর্যমুখী বাগানে দুষ্টু দুষ্টু হাসি মুখের একটা ছবি দেখে যাদের মনে উল্টাপাল্টা চিন্তা মাথায় আসে কোন কিশোরী বা তরুণীকে দেখলে তাদের কী কী হতে পারে তা সহজেই অনুমেয়! যার ফলাফল ইভটিজিং, এসিড সন্ত্রাস,ধর্ষণ, আত্মহত্যার প্ররোচনা, নারী ও শিশু নির্যাতন-নিপীড়ন! আবার এ নিয়ে কোন নারী যদি প্রতিবাদ করে তাহলে সবাই মিলে তার বংশ উদ্ধার করে দিতে পেছপা হয় না! সেই উদ্ধার কাজে নারী-পুরুষ, শিক্ষিত- অশিক্ষিত নির্বিশেষে সবাই অংশ নেয়!

মানে ব্যপারটা হচ্ছে অনেকটা এরকম, পুরুষ ইচ্ছেমতো দৃষ্টিকোন থেকে নারীর দিকে তাকাবে, নিজের সম্পত্তি মনে করবে আর নারী প্রতিবাদ করলেই তাকে শুনতে হবে -“পুরুষ মানুষ একটু আধটু এমন হয়ই!”এই একটু আধটু থেকে শুরু হয়ে সমাজে যে কত ভয়ংকর ভয়ংকর অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে, তার নমুনা পত্রিকা খুললেই পাওয়া যায়! ছয়মাসের শিশু থেকে নব্বই বছরের বৃদ্ধা- কারোরই যেন মুক্তি নেই পুরুষের লালসা হতে! প্রাণটাও চলে যায় অনেক মেয়ের! যারা বেঁচে যায় তারা সারাজীবন এক নোংরা স্মৃতি বয়ে বেড়ায়!

ফিরে আসি সাকিব আল হাসানের মেয়ের প্রসঙ্গে! সাকিব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোনো ছবি শেয়ার করলে মুহূর্তেই হাজার হাজার ভালো মন্দ কমেন্ট জড়ো হয়ে যায়! সেখানে এই চার পাঁচটা মন্তব্যে হয়তো তাদের কিছুই এসে যাবে না! কিন্তু একটা ফুটফুটে শিশুর দিকে তাকিয়ে নোংরা মন্তব্য ছুঁড়ে দেয়ার জন্য চার-পাঁচজন হলেও এই সমাজে আছে- এটাই কি যথেষ্ট লজ্জার বিষয় নয়? এই কয়েকজন হয়তো তাদের মনের নোংরামি প্রকাশ করেছে, কিন্তু অপ্রকাশিত বা পরোক্ষ নোংরামির পরিমাণও কোনো অংশে কম নয়! সাকিব আল হাসানের মতো বড় তারকার কন্যা যদি এই নিরাপত্তাটুকু না পায়, তাহলে আমরা যারা সাধারণ জনগণ তাদের শিশুদের নিরাপত্তা কীভাবে নিশ্চিত হবে? তারা কীভাবে নিরাপদে বেড়ে উঠবে?
আমাদের সন্তানদের জন্য আমরা এ কেমন নিষ্ঠুর পৃথিবী রেখে যাচ্ছি?
ভবিষ্যৎ প্রজন্ম আমাদের ক্ষমা করবে না…
কখনোই না……

 

লেখক পরিচিতি:
উপপরিচালক
বাংলাদেশ ব্যাংক

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.