ভারতীয় আইনে জাতীয় পতাকার অবমাননা এবং তার শাস্তি

সানন্দা নন্দী:

সকলকে ভারতের ৭৪তম স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা ও শুভ কামনা জানাই। বন্ধুরা, “আইন নিয়ে দু’চার কথা / Awareness of Law” তে আজকের আলোচ্য বিষয় হলো ” জাতীয় পতাকার অবমাননা এবং তার শাস্তি”। স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালে হঠাৎ এই রকম বিষয় নিয়ে কেন আলোচনা করছি সেটা অনেকের মধ্যেই নাড়াচাড়া করতে পারে। আসলে সেই শিশুকাল থেকে এখনো অবধি দেখে আসছি যে আমরা সবাই খুব ঘটা করেই স্বাধীনতা দিবস পালন করছি, কিন্তু আমাদের জাতীয় পতাকাকে ঠিক কতটা সম্মান দিয়ে পারছি সেটা কিন্তু একটা বিরাট বড় প্রশ্নের সম্মুখীন ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভাবনার বিষয়।

অ্যাডভোকেট সানন্দা নন্দী, আলিপুর জর্জ কোর্ট

আসলে কখনো কখনো মানুষ দেশপ্রেমে এমন উদ্বেল হয়ে ওঠে যে নিজের অবচেতনে বা চেতনে নিজের দেশের জাতীয় পতাকার অবমাননা করে ফেলে। সাধারণত এ ধরনের আচরণের পিছনে সব সময় কু-উদ্দেশ্য কাজ না করলেও তার অজ্ঞতাবশত অবমাননাকর পরিস্হিতির উদ্ভব হয়। বস্তুত প্রতিটি দেশের জাতীয় পতাকার ব্যবহার বিধি, পতাকা ব্যবহারের আচরণ বিধিগুলিকে সংজ্ঞায়িত করে তা অগ্রাহ্য করার শাস্তি নির্ধারণ করে দেয়।
সুতরাং আজ ভারতের স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালে একবার জেনে নিই জাতীয় পতাকার অবমাননা কী কী কারণে হয়ে থাকে। জাতীয় পতাকাকে সম্মান করা এ আমাদের গুরুদায়িত্বের মধ্যে পড়ে, যাতে সবাই এঁর অপমান যেন কোনো ভাবেই না নিজের দ্বারা না অন্যের দ্বারা হয়।

#জাতীয় পতাকার অবমাননা এবং তার শাস্তি:

“The Prevention of Insults of National Honour Act, 1971” অনুযায়ী ভারতের জাতীয় পতাকার অবমাননা বলতে যা বোঝায় তা হলো :

১/ যে কোনো ব্যক্তির দ্বারা যেকোনো প্রকাশ্য জায়গা যাকে public place বলে গণ্য করা হয় এমন কোনো জায়গায় জাতীয় পতাকাকে লাগানো, ছিঁড়ে ফেলা, বিকৃত করা, পা দিয়ে মারানো, মৌখিক বা লিখিত আকারে জাতীয় পতাকায় অশ্লিল বা অবমাননাসূচক মন্তব্য লেখা।

২/ কোনো ব্যক্তি বা বস্তুর প্রতি সম্মান প্রদর্শনে জাতীয় পতাকাকে সেই ব্যক্তির পায়ে ভূ-পতিত করা/পায়ের নিচে ফেলা।

৩/ সরকারি নির্দেশ ছাড়া জাতীয় পতাকাকে অর্ধনমিত করা।

৪/ রাষ্ট্রীয় স্তরে ও সামরিক ক্ষেত্রে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া ছাড়া জাতীয় পতাকাকে আচ্ছাদনের সামগ্রী হিসাবে ব্যবহার করা।

৫/ কোমড়ের নীচে পড়া পোশাকের ক্ষেত্রে কাপড় বা প্রিন্ট হিসাবে জাতীয় পতাকাকে ব্যবহার করা।

৬/ এমব্রয়ডারি বা প্রিন্ট হিসাবে বালিশ, তোষক, রুমাল, ন্যাপকিন, অন্তর্বাস সহ যেকোনো পোশাকের উপাদান জাতীয় পতাকাকে ব্যবহার করা।

৭/ জাতীয় পতাকার ওপর অশ্লিল/শ্লিল যে কোনো ধরনের মন্তব্য করা।

৮/ ফুলের পাঁপড়ি ছাড়া অন্য যেকোনো জিনিস মুড়ে রাখার সামগ্রী হিসাবে জাতীয় পতাকাকে ব্যবহার করা।

৯/ কোনো মূর্তি, মনুমেন্ট, বক্তৃতা দেওয়ার ডেস্ক/প্লাটফর্মে জাতীয় পতাকাকে ব্যবহার করা।

১০/ ইচ্ছাকৃতভাবে জাতীয় পতাকাকে মাটিতে ফেলা বা জলে ভাসানো।

১১/ জাতীয় পতাকাকে বা জাতীয় পতাকার প্রিন্ট হিসাবে ত্রিপল, পর্দা, চাদর হিসাবে যেকোনো স্থান ও যেকোনো গাড়ীসহ নৌকা, ট্রেন / প্লেনে ব্যবহার করা।

১২/ যেকোনো ভবন/বাড়ীর আচ্ছাদন হিসাবে জাতীয় পতাকাকে ব্যবহার করা।

১৩/ ইচ্ছাকৃত ভাবে জাতীয় পতাকার গেরুয়া রঙটি নিচে ব্যবহার করা হয় বা জাতীয় পতাকা যদি উল্টানো থাকে।

১৪/ জাতীয় পতাকা তৈরির উপাদান হিসাবে প্লাস্টিক ব্যবহার।

১৫/ কাগজের তৈরি জাতীয় পতাকা অনুষ্ঠান শেষে যেখানে সেখানে ফেলে দেওয়া।

#জাতীয় পতাকা অবমাননা স্বরূপ শাস্তি :

“ The Prevention of Insults of National Honour Act, 1971” অনুযায়ী ভারতের জাতীয় পতাকার অবমাননার শাস্তি স্বরূপ সর্বাধিক তিন বছর অবধি জেল অথবা জরিমানা অথবা দুটোই হতে পারে।

Sananda Nandi
Advocate,
Alipore Judges’ Court
Kolkata

শেয়ার করুন:
  • 38
  •  
  •  
  •  
  •  
    38
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.