নিজের দায়িত্বগুলো নিজে নিতে শিখুন

নাদিয়া অনি:

কিছুদিন আগে ভারতে একটি ডিভোর্স হয় যার কারণ ছিলো মেয়ে শ্বশুর-শাশুড়ির সাথে থাকতে চায়নি তাই।
আমাদের সমাজে মেয়েদের বিয়ের পর তার জীবনে অনেক কিছুই চেঞ্জ হয়ে যায়। একে তো মেয়েকে শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে থাকতে হয়, তার উপর শ্বশুর- শাশুড়ি-দেবর-ননদের এক্সপেকটেশন থাকে অনেক হাই। শাশুড়ী বা শ্বশুর নিজের ছেলের কাছে কিন্তু তেমন সেবা আশা করে না। কিন্তু ছেলের বউয়ের সেবার আশা সবাই করে। বউ আসবে, শাশুড়ির সব কাজ করবে, সেবা করবে।

শ্বশুর আশা করে ছেলের বউ তার জন্য চা বানিয়ে দিবে, কাপড় গুছিয়ে দিবে, উনার সবকিছুর প্রতি নজর রাখবে। দেবর ননদরা আশা করে ভাবী তাদের ঘর গুছিয়ে দিবে, বিছানা গুছিয়ে দিবে, ভালোমন্দ রান্না করে খাওয়াবে, আর কত কী! আর জামাই এর কথা না হয় বাদই দিলাম। আল্লাহ তাদের চাওয়ার কোন শেষ রাখেনি।

মানে বিষয়টা হচ্ছে ছেলে বিয়ে দিয়ে তারা একইসাথে ছেলের জন্য সঙ্গী, বেবিসিটার, শ্বশুরের জন্য ফুলটাইম নার্স, শাশুড়ীর জন্য ফুলটাইম আধা বুয়া, দেবর, ননদের জন্য মোটামুটি পার্মানেন্ট গৃহপরিচারিকা নিয়ে আসেন।

এখন যে সকল বউ এগুলো খুশি মনে করে দিবে তাকে বলা হয় ভালো বউ। যদিও স্বামীর পারিবারের লোকজন তা মানতে নারাজ। তারা বিভিন্ন খুঁত বের করবেই। কিন্তু কোন বউ যদি এই দায়িত্বগুলো না নিতে চায় তাহলে শ্বশুরবাড়ির কথা বাদই দিলাম, বাপের বাড়িতেও খারাপ বউ হিসাবে কম গঞ্জনা সইতে হয় না।

এখন সেইম কাজগুলো যদি মেয়ের জামাই এর কাছ থেকে মানুষ আশা করে তখন? আপনি বা আপনারা নিজেকে ঘরজামাই হিসাবে একবার ভেবে দেখেন তো কেমন বোধ হয়। ঘরজামাই হওয়ার কথা শুনলেই তো ছেলেদের আত্মসম্মানে লাগে।সেখানে যদি শ্বশুর শাশুড়ী,শালা,শালী নিজেদের পছন্দ অপছন্দ আপনার ঘাড়ে তুলে দেয় তাহলে পারবেন আপনি বা আপনারা মিনে নিতে? ভালো লাগবে নিজের ইচ্ছা না করলেও সকাল বিকাল শাশুড়ী কথা মতো কাজ করতে,পারবেন শ্বশুরকে চৌদ্দবার চা বানিয়ে দিতে? কেমন লাগবে যদি আপনাকে বলা হয় আপনার বউ এর বোনের ঘরটা ঝাড়ু দিয়ে দিতে বা শালার প্যান্ট ধুতে বললে?

পুরুষতান্ত্রিক ব্যাটাগুলোর কথা বাদই দিলাম। মুখে নারীবাদী হিপোক্রেট বহু পুরুষ আছে যারা নিজেকে নারীবাদী বলে মুখে ফেনা উঠেয়ে ফেলে, ফেইসবুকে প্রতিবাদের বন্যা বইয়ে দেয়, অথচ ঘরে নিজের বউকে সে এক পয়সা দাম দেয় না।

আচ্ছা আপনারা কেন পরের মেয়ের উপর আশা করেন বলেন তো? কোনো মেয়ে যদি বলে সে স্বামীর পরিবারের লোকদের ভালোমন্দ খেয়াল রাখতে পারবে না, সে স্বামীর পরিবারের লোকদের সাথে থাকতে চায় না, সেক্ষেত্রে আসলে তাকে এগুলো করতে বাধ্য কেউ করতে পারে না। সেম বিষয় ছেলেদের ক্ষেত্রেও। উইলিংলি কেউ এসব করলে সেটা অবশ্যই প্রশংসনীয়। কিন্তু না করলে সেটা রাগের, ছেড়ে দেওয়ার বা নিন্দনীয় কখনই নয়।

যেহেতু আপনার ফ্যামিলি, সেক্ষেত্রে আপনার ফ্যামিলির প্রতি দায় দায়িত্ব সম্পূর্ণ আপনার।বিয়ে করছেন বলেই পরের বাড়ির ছেলে বা মেয়ে আপনার ফ্যামিলির দায়দায়িত্ব নিতে বাধ্য নয়।তাই নিজের পরিবারের,নিজের আপনজনদের দায়িত্ব নিজে নিতে শিখুন।অন্যের উপর নিজের দায়িত্ব চাপিয়ে দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.