মিশরে একমাসের জরুরী অবস্থা ঘোষণা

egypt
ছবি কৃতজ্ঞতা: বিবিসি

উইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক: কায়রো সহ মিশরের বিভিন্ন অঞ্চলে মুরসি সমর্থক ও নিরাপত্তা বহিনীর মধ্যে রক্তাক্ত সংঘর্ষের পর রাষ্ট্রীয় জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার।

আগামী একমাসের জন্য ঘোষিত এই জরুরী অবস্থা স্থানীয় সময় আজ সন্ধ্যা সাতটা থেকে শুরু হবে। কায়রো সহ দেশটির ১১টি গুরুত্বপূর্ণ শহর এই জরুরী অবস্থার আওতায় থাকবে বলে বিবিসির খবরে বলা হয়।

মুরসি সমর্থকদের উৎখাতের উদ্দেশ্যে দিনভর চলা অভিযানে ব্যাপক হতাহতের ঘটনা ঘটলে এমন ঘোষণা দেয়া হয়।

নিজেদের এক সংবাদদাতার বরাত দিয়ে বিবিসির খবরে বলা হয়, তিনি নিজে অন্তত ৫০টি মৃতদেহ গুণে দেখেছেন।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় থেকে বলা হয়েছে, কায়রোসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ১৪৯ জন নিহত ও  আহত হয়েছে ১৪০৩ জন।

তবে ব্রাদারহুডের নেতাকর্মীদের দাবি এই অভিযানে দুই হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে বিক্ষোভকারীদের বিচ্ছিন্ন সংঘর্ষ চলছিলো। বিবিসির খবরে বলা হয়, নিরাপত্তা বাহিনী সাঁজোয়া বুলডোজারের সাথে তাজা গুলি নিক্ষেপ করে অগ্রসর হয়। বিক্ষোভকারীদের অবস্থানের উপরে সেনা হেলিকপ্টারের টহলও অব্যাহত আছে।

বিক্ষোভকারীদের আল-নাহ্‌দা স্কয়ার থেকে ব্রাদারহুড সমর্থকদের তাড়িয়ে দেয়া হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসা প্রদানকারী হাসপাতালগুলোরও নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে নিয়েছে সামরিক বাহিনী।

এমন অভিযানের প্রতিবাদে মুসলিম ব্রাদারহুড তাদের সমর্থকদের আবারও রাস্তায় নেমে আসার আহ্বান জানিয়েছে।

কায়রোর পশ্চিমে একটি মসজিদের বাইরে হাজার হাজার লোক জড়ো হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এখানে পুলিশের একটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়।

কায়রো ছাড়াও সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছে মিশরের আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থানে। আলেকজান্দ্রিয়া, আসওয়ান, আতিউস ও মিনিয়াতে বিক্ষোভকারীদের সহিংস অবস্থানের খবর পাওয়া গেছে বলেও বিবিসির খবরে বলা হয়েছে।

এদিকে এমন অভিযানের তীব্র নিন্দা করেছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিশর কর্তৃপক্ষের প্রতি সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছে।

এছাড়াও তুরষ্ক, ইরান ও কাতার এ ঘটনার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছে।

শেয়ার করুন:
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.