তসলিমা, তুমি আলো

প্রবীর কুমার:

একটি জন্ম বদলে দেয় অনেক কিছু
ঋণী করে দেয় পৃথিবীর বোধকে
একটি জন্ম– নিভৃতে, কখনো স্বীকৃত সমারোহে পুষ্ট করে কালের গর্ভ।

তুমি জন্মেছিলে ব’লেই
একটি নতুন সূর্য পেয়েছিলো ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল
আশার পাল দুলে-ফুলে উঠেছিলো
কিছু দিকভ্রান্ত নবিশ নাবিকের প্রতিবাদী জাহাজে।

কিন্তু তোমার আলো ছিলো তীব্র, কালজয়ী ও মগজভেদী;
অন্ধকার প্রকোষ্ঠের অন্ধকারবুভুক্ষেরা
তা সইতে পারেনি,
পূর্ণ আলো ছড়ানোর আগেই ওরা বললো,
“তোমাকে ডুবে যেতে হবে, কিংবা উঠতে হবে অন্য কোন ভূ-খণ্ডের জন্য। আমরা আলো চাই না।”

অনভ্যস্ত নাবিকেরা হাহাকার করলো মাস্তুলটি ভেঙে গেলো ব’লে।

তুমি জন্মেছিলে বলেই
আমাদের মেয়েগুলো হাঁটতে শুরু করেছিলো। নেতিয়ে থাকা মেয়েগুলোর কোমরে জোর এলো খুব।
শরীরে-মনে আজন্মকাল ব’য়ে বেড়ানো শেকলের অভিশাপ ভাঙতে শুরু করলো ওরা,
পুরুষের বানানো খাঁচায় লাথি মারার প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেলো।

কিন্তু তুমি প্রতি ঘরে পৌঁছুনোর আগেই
অন্ধকার বুভুক্ষেরা ভয় পেলো।
বললো, “মেয়েরা হলো অন্ধকারাবৃতা। এখানে তোমাকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। তুমি আলো”

তুমি চিরন্তনী।
ক্ষণকালে যতটুকু আলো দিয়েছিলে তোমার ‘প্রিয় স্বদেশ’কে
সে আলো মুক্তির গান হয়ে বাজে তরুণ-তরুণীর বুকে
টি-শার্টের গায়ে স্লোগান হয় তোমার কথার রশ্মি।
ক্ষুদে মেয়েটাও ছোট চুল রেখে বলে,
” আমি তসলিমা হবো।
আলোর পথের কিছু পরিব্রাজক পুরুষদেরও বলতে শুনি–
“আমি তসলিমা হবো।”

তুমি জন্মেছিলে ব’লেই
পৃথিবীটি নিজের বুকে একটি স্বতন্ত্র সূর্য পেয়েছে।

আমরা কৃতজ্ঞ হই তোমার জন্মে।

_____________________________________________

আজ তসলিমা নাসরিনের জন্মদিন। নারীবাদী, সাহিত্যিক, নারী ও মানবাধিকারের জন্য লড়ে যাওয়া জীবন্ত কিংবদন্তির জন্মদিনে অফুরন্ত শুভেচ্ছা রইলো।

শ্রদ্ধা, কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা নিবেন , প্রিয় দিদি।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.