মিতা হকের বাঙ্গালীয়ানা ও মরু সাম্রাজ্যবাদ

Hasan Mahmudহাসান মাহমুদ (উইমেন চ্যাপ্টার): রবীন্দ্রসঙ্গীত দিকপাল মিতা হক জেনে বা না জেনে প্যান্ডোরার বাক্স খুলে দিয়েছেন- “যেখানে একটু লোকজনের সমাগম বেশি, যেখানে ওয়েটিং রুম আছে, লোকজন অপেক্ষা করছে, সেখানে দেখি যে, একমাত্র আমিই বাঙালি। আমি শাড়ি পড়ে গেছি আর আমার মাথায় ঘোমটা নেই। আজকাল তারা এইটুকু মুখ বের করে রাখছে। এতে তারা আর যাইহোক বাঙালি নয়।”  আমি শাড়ি পড়ে গেছি আর আমার মাথায় ঘোমটা নেই। আজকাল তারা এইটুকু মুখ বের করে রাখছে। এতে তারা আর যাই হোক, বাঙালি নয়।”

৭১ টিভিতে ‘সংস্কৃতিজনের রাজনীতি ভাবনা’ শীর্ষক এক আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেছেন গত ০৯ আগস্ট। এ নিয়ে অনেকে অনেক মতামত দিচ্ছেন, আমি ইসলামী আঙ্গিকটা বলছি।

বিষয়টা হচ্ছে, চোখে ঘুলঘুলি রেখে বা শুধু চোখ খোলা রেখে পুরো চেহারা ঢাকা। সেটাকে বিকৃত করে ছাপিয়েছে কেউ কেউ, সেটা আবার বোরখাবাদীরা ছড়াচ্ছে হু হু করে, মিতা হক নাকি বলেছেন- “যারা মাথায় ঘোমটা দেয় তারা আর যাই হোক বাঙালী হতে পারে না।” যারা অতীত-বর্তমানে পেঁচিয়েছে কোরানের আয়াত আর রসুলের বাণী, শরিয়া-ইমামদের মৃত্যুর পর শরিয়া-কেতাবে ওই ইমামদের নামেই ঢুকিয়ে দিয়েছে নিজেদের আইন, সিফফীন যুদ্ধ থেকে শুরু করে পলাশী হয়ে সাম্প্রতিক হরতাল পর্য্যন্ত কোরানকে করেছে রাজনৈতিক অস্ত্র, নারী-নির্যাতন হালাল করেছে কোরান-রসুলের নামে, তাদের কাছে মিতা হক কোন ছার! ওই মারাত্মক অপরাধের শত শত সূত্র আছে এখানে

মিতা হকের কথা সর্বাংশে সত্য। যারা চেহারা ঢেকে রাখে তারা বাঙালীর ঐতিহ্য নষ্ট করে, সে কারণেই তারা বাঙালী নয়। হাজার বছরে সাধারণভাবে বাঙালী নারীর ঐতিহ্যে চেহারা ঢাকা কোনদিনও ছিল না। তাঁরা মাথায় আঁচলটা টেনে ঘোমটা দিতেন বিয়ে-নামাজ-আজানের সময় আর গুরুজনদের সামনে, ব্যাস। এটাই প্রতিষ্ঠা করে গেছেন, আমাদের শত শত হজরত শাহ জালাল, শাহ মখদুম, শাহ পরান, নেক মর্দান, কত্তাল পীর, দানেশমন্দ, বায়েজীদ বুস্তামী। তাঁরা প্রমাণ করেছেন, বাঙালী নারীর ওই ঐতিহ্য সম্পূর্ণ ইসলাম-সম্মত এবং তাঁরা কারো চেয়ে কম মুসলিম নন।

তাহলে ওরা কারা? ওরা কারা যারা আমাদের ঐতিহ্য নষ্ট করে নারীদের চোখে ঘুলঘুলি রেখে কাপড়ের বস্তায় বন্দী করতে চায়? ওরা কারা যারা আমাদের শত শত হজরত শাহ জালাল, শাহ মখদুম, শাহ পরান, নেক মর্দান, কত্তাল পীর, দানেশমন্দ, বায়েজীদ বুস্তামীদের দেয়া ইসলাম-সম্মত ঐতিহ্য ভুলিয়ে দিতে চায়?

ওরা ধর্মের নামে মরু-সাংস্কৃতিক সাম্রাজ্যবাদের স্থানীয় পদলেহী। আগে যুদ্ধ করে সাম্রাজ্যবাদ হতো, যেমন ইষ্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানি করেছে ভারতবর্ষে। এখন হয় অর্থনৈতিক সাম্রাজ্যবাদ, পুঁজিপতিরা নিউইয়র্ক-লন্ডন-দিল্লীতে বসে চুষে খায় অন্য দেশের গরীবের রক্ত। সেই সাথে আমাদের ঘাড়ে চেপে বসেছে মধ্যপ্রাচ্যের ধর্মীয় সাম্রাজ্যবাদ, “ইসলাম” এর লেবেল লাগিয়ে মরু-সংস্কৃতি রপ্তানি হচ্ছে সাংস্কৃতিক উপনিবেশ প্রতিষ্ঠার জন্য। আমাদের ধর্মভীরু অর্ধ শিক্ষিত জনগণের ওপরে ওই লেবেলের প্রভাব গভীর। ওরা এতই উগ্র যে, সেজন্য তারা স্বদেশীর ওপরে গণহত্যা-গণধর্ষণ  থেকে শুরু করে স্বদেশের গর্বের ঐতিহ্য-সংস্কৃতি পর্যন্ত নির্মূল করতে প্রস্তুত।

উদাহরণ আমাদের একাত্তর। উদাহরণ পাকিস্তানের জামাত, যে দাবি করেছিল হরপ্পা-মহেঞ্জোদারো’র মত গর্বের ইতিহাস স্কুলের সিলেবাস থেকে উঠিয়ে দেয়া হোক। কারণ? কারণ “আমাদের ইতিহাস শুরু হইয়াছে মক্কা মদীনা হইতে”- দি ডন, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০০৭।

আমাদের ঐতিহ্যের বিরুদ্ধে উদাহরণ:- “হজরত নূহের বংশধর ‘বঙ্গ’-এর নামানুসারে আমাদের দেশের নাম বঙ্গ……নৃতাত্ত্বিক দিক দিয়া বাঙালিরা আরব, কারণ বাঙালীর পূর্বপুরুষ আরবী…..আরবী আল্লাহর ভাষা”-ইনকিলাব, ১২ নভেম্বর ২০০৭, ২৫ জুন ২০০৮, ০৯ মে ২০১১ ইত্যাদি। পৃথিবীতে আর কোনো ছাপ্পানো হাজার বর্গমাইল এত মীরজাফরের জন্ম দেয়নি।

বাঙালী গর্বিত দাঁড়িয়ে আছে তার বিপুল সাংস্কৃতিক বৈভবের ওপরে, মুরুভূমিতে সে এতিমের মত আত্মপরিচয় খুঁজে বেড়ায় না। বাঙালীর আবেগ ছলকে ওঠে বর্ষবরণ, বর্ষাবরণ, ফাল্গুনী উৎসবে, নবান্নে আর নৌকা বাইচে, একুশের ভোরে নগ্ন পদের পুষ্পার্ঘে। বাঙালীর রক্তে টান পড়ে কবিগান গম্ভীরায় আর যাত্রা-পালায়। মায়াময় বাঙালী উৎসবগুলো কোনোদিন পালন করেছে ওরা? পালন করেছে নববর্ষ কিংবা গেছে রমনার বটমূলে? যায় তো নি-ই বরং বোমা মেরে নিরপরাধ মানুষ খুন করেছে রমনায় আর উদীচী’র অনুষ্ঠানে। দুনিয়ায় আর কোনো জাতির এই বিভৎস সমস্যাটা নেই। ধর্মীয় যে সাম্রাজ্যবাদের হিংস্র থাবা থেকে বুকের রক্ত ঢেলে আমাদের বাঙালিয়ানা রক্ষা করতে হয়, তার ধারক-বাহকেরা বাঙালী হয় কি করে?

এমন ছিল হিন্দু ও খ্রিস্টান রাজত্বেও। “নারী শক্তির আধার, নারীকে গৃহবন্দী করিয়া রাখ নতুবা তাহার শক্তিক্ষয় হইবে” – এই জাতীয় ঠকবাজীতে মনু’র আইন ভরা। আমরা কতবার বলেছি রসুলের সময় নারীরা যুদ্ধ করেছেন, বিবি আয়েশা জামাল যুদ্ধক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিয়েছেন, হজ্বে কোনদিনও নারীর মুখ ঢাকার রেওয়াজ ছিল না, এখনো নেই, কে শোনে কার কথা!

যে নারীরা ওই অপপ্রচারের শিকার হয়েছেন তাঁদের এয়ারপোর্টে, পাসপোর্ট অফিসে, ড্রাইভিং লাইসেন্সে, হেলথ কার্ডে, আদালতে সরকারী অফিসে হেনস্থার দাযিত্ব বোরখা-নেতারা নেবেন? বোরখা ক্রিমিন্যালদের রক্ষা করে। পাকিস্তানে লাল মসজিদের জিহাদী ক্রিমিন্যাল বোরখা পড়ে পালাতে গিয়ে ধরা পড়েছে, ওটা পড়ে ডাকাতির উদাহরণও আছে, সে দায়িত্ব নেবেন তাঁরা?

সর্বনাশের দোরগোড়ায় এসে ঠেকেছে বোরখাবাদীদের স্বপ্নরাজ্য সৌদি আরব। আঁৎকে উঠে পুরো সৌদি জাতির অন্তরাত্মা কেঁপে গেছে ওদেরই টিভি-তে ওদেরই গবেষণা দেখে। জাতিকে মহাবিপদসংকেত দিয়েছেন ড : ইনাম আল রুবাই, প্রেসিডেন্ট, চিলড্রেন স্টাডিজ, আর্মড ফোর্সেস হাসপাতাল, জেদ্দা – তাঁর “স্টাডি অফ অফিস অফ সোসিয়েটাল সুপারভিশন”-এ। ওখানে আজ ২৩% শিশুরা আত্মীয় দ্বারা ধর্ষণের শিকার, রিয়াদ-এ ৪৬% ও জেদ্দায় ২৫% তরুণ-তরুণীরা সমকামী।   এখানে সেটা দেখে নিন। http://www.youtube.com/watch?v=eqZLrtpp9t0

ইসলামের নামে শয়তানের ওই বিজয় কেতন আমরা এ দেশে কিছুতেই ঢুকতে দেব না। জাতিকে ওদের চেয়ে হাজার গুণ ভালো রেখেছেন আমাদের নারীরা ইসলাম প্রচারকদের দেয়া ইসলাম পালন করে, তাঁদের অজস্র ধন্যবাদ।

লেখক পরিচিতি: ওয়ার্ল্ড মুসলিম কংগ্রেস-এর উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য

শেয়ার করুন:
  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
    2
    Shares

uni borka porle bangali culture dekhen na ar jins pant tight jama
porle hoye jai meyeder fashion. unar kotha purai
shobirodhi kotha. uni borka pochondo na korte paren thats another
things. kintooo onar kotha ar amader mokhar kotha to eke rokom mone
hoilo amar kache. ar keu jode borka ar keu jode jins porle
shompork montobbo korar odhikar karore nai. eta tar shompurno nijer
begtigoto bepar. jemon keu jode nastik thakte chay etao tar nijer
shadhinota eta nie shomalochona korar kicho nai abar jara religious
people tadero shomalochona korar kicho nai. je jar jar jaigia
thakley to hoy.. kintoooooo politics pujibade shrenir lokera eta chay na
karon eta hoile ora tactfully 3rd world er country gulak shoshon korbe
kemne?

হে আগল বাগল … তুমি ত দারুন সেয়ানা লেখা লিখেছ … বোরখা পড়ে পতিতারা চেহারা লূকায়, তাই সব দোষ বোরখার? কোথায় তুমি এই তেতুল মার্কা কথা পেলে, হে আবাল? তবে যেঁ তেতুল খেয়ে অনেকের স্বপ্নদোষ হুয়, সে দোষ কি তেতুলের? তবে যেঁ চাপাতি দিয়ে গরু না কোপিয়ে মানুষ কোপায়, সে দোষ কি চাপাতির?

I think, the author does not have even minimum knowledge of islamic shariya…..and he is talking over sariah… here is the aiya from quran:

And tell the believing women to reduce [some] of their vision and guard their private parts and not expose their adornment except that which [necessarily] appears thereof and to wrap [a portion of] their headcovers over their chests and not expose their adornment except to their husbands, their fathers, their husbands’ fathers, their sons, their husbands’ sons, their brothers, their brothers’ sons, their sisters’ sons, their women, that which their right hands possess, or those male attendants having no physical desire, or children who are not yet aware of the private aspects of women. And let them not stamp their feet to make known what they conceal of their adornment. And turn to Allah in repentance, all of you, O believers, that you might succeed. (sura nur, ayah-31)

O Prophet, tell your wives and your daughters and the women of the believers to bring down over themselves [part] of their outer garments. That is more suitable that they will be known and not be abused. And ever is Allah Forgiving and Merciful. (sura ahzab, ayah-59)

this is the sura nur, ayah 31,وَقُلْ لِلْمُؤْمِنَاتِ يَغْضُضْنَ مِنْ أَبْصَارِهِنَّ وَيَحْفَظْنَ فُرُوجَهُنَّ وَلَا يُبْدِينَ زِينَتَهُنَّ إِلَّا مَا ظَهَرَ مِنْهَا ۖ وَلْيَضْرِجُيُوبِهِنَّ ۖ وَلَا يُبْدِينَ زِينَتَهُنَّ إِلَّا لِبُعُولَتِهِنَّ أَوْ آبَائِهِنَّ أَوْ آبَاءِ بُعُولَتِهِنَّ أَوْ أَبْنَائِهِنَّ أَوْ أَبْنَاءِ بُعُولَتِهِنَّ أَوْ إِخْوَانِهِنَّ أَوْ بَنِي إِخْوَانِهِنَّ أَوْ بَنِي أَخَوَاتِهِنَّ أَوْ نِسَائِهِنَّ أَوْ مَا مَلَكَتْ أَيْمَانُهُنَّ أَوِ التَّابِعِينَ غَيْرِ أُولِي الْإِرْبَةِ مِنَ الرِّجَالِ أَوِ الطِّفْلِ الَّذِينَ لَمْ يَظْهَرُوا عَلَىٰ عَوْرَاتِ بْنَ بِخُمُرِهِنَّ عَلَىٰ النِّسَاءِ ۖ وَلَا يَضْرِبْنَ بِأَرْجُلِهِنَّ لِيُعْلَمَ مَا يُخْفِينَ مِنْ زِينَتِهِنَّ ۚ وَتُوبُوا إِلَى اللَّهِ جَمِيعًا أَيُّهَ الْمُؤْمِنُونَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُون translate it to english through translator then found (And say to the believing women lower their gaze and preserve representative فروجهن not to reveal their adornment only that which is apparent and beaten بخمرهن the bosoms and not to reveal their adornment except to their husbands or fathers or fathers of their husbands or sons or sons of their husbands, brothers or between brothers or between sisters or نسائهن or those whom their faith orfollower is an initial Alarbh men or children who did not appear on the SINS women not stamp their feet so as to reveal what they hide of their adornment and beg God to forgive you all ATI believers, that you may prosper)

another translation (And say to the believing women that they should lower their gaze and guard their modesty; that they should not display their beauty and ornaments except what (must ordinarily) appear thereof; that they should draw their veils over their bosoms and not display their beauty except to their husbands their fathers their husbands’ fathers their sons their husbands’ sons their brothers or their brothers’ sons or their sisters’ sons or their women or the slaves whom their right hands possess or male servants free of physical needs or small children who have no sense of the shame of sex; and that they should not strike their feet in order to draw attention to their hidden ornaments. And O ye Believers! turn ye all together towards Allah that ye may attain Bliss.)

1. (lower their gaze and preserve representative فروجهن not to reveal their adornment )gaze is a Verb Look steadily and intently, esp. in admiration, surprise, or thought.Noun A steady intent look.Synonyms verb. stare – look,noun. stare – look – glance. adornment

a decoration of color or interest that is added to relieve plainness.

that they should draw their veils over their bosoms and not display their beauty

2. headcovers over their chests and not expose their adornment

Thats mean not to show your bosom not to wear colorful decoration to show your beauty, But i can assure you 99% of hijabi are wearing colorful ornaments jeans not draw extra cloths on bosom, and headscarf is a fashion to catch attention for male But in Bengoli culture we see wearing orna on bosom. narrow your vision means what i understand that not to look everywhere walk straight, but if you see in hizabi culture in arab and europe its meaning is different you are allowed to giggling move how you like just wear headscarf. At Least we bengali has lots of shorrom hiya for doing any bad things but if you look at europe hijabi girls they are really awful.They do dating in hotels all of them has male friends just try to pretend they are really good by there hijab. so its not only wearing cloths it has own purpose not to attract opposite sex attention which is lack in this hijabi fashion. Thats why people from europe come Bangladesh for bride and groom.

I respect all of them who do proper burka. but using hijab as headscarf with all of forbidden things is really a fashion.

Allah no the best

অত্যন্ত মূল্যবান একটি লেখা ।বাঙালি সংস্কৃতির বিবর্তনের ইতিহাস নিয়ে সচেতনতা বাড়ালেই নির্বোধদের বিরূপ আলোচনা হয়তো খানিকটা কম হতে পারে এবং ডলার ,পেট্রো ডলার, এসব আক্রমন থেকে খানিকটা বাঁচা যেতে পারে।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.