আড়ং বর্জন নয়, বরং পণ্যের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন তুলুন

ফারজানা আকসা জহুরা:

এখন পর্যন্ত আড়ং থেকে কাপড় কিনে পরা হয় নাই। এমন না যে কেনার ক্ষমতা নেই, কিন্তু এতো দাম দিয়ে আড়ং এর কাপড় কেনাটা বড্ড অপচয় মনে হতো। তাই দেশি কাপড় কিনে নিজেই জামা নিজেই বানিয়ে পরতাম।

কথা হলো যে আজকাল মানুষ দেশি কাপড় কিনে না। ভারতে গিয়ে শপিং করে। কিছু বললে বলে, দেশি কাপড় ভালো না, দাম বেশি, ইত্যাদি ইত্যাদি! অথচ ভারতে শপিং করতে গেলে ভিসা লাগে, হোটেল ভাড়া, যাতায়াত খরচ আছে, তারপরেও শপিং সব মিলিয়ে নিশ্চয় অনেক খরচ পরে! তবুও মানুষ ভারতীয় কাপড় কিনে পরবে! দেশি কাপড় পছন্দ না!

এখন কথা হলো যে কাউকে আপনি দেশপ্রেম পানি দিয়ে গুলিয়ে খাওয়াতে পারবেন না। এটা নিতান্তই মনের ভিতরের আবেগ। দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা। নিজের ভেতর থেকে জাগ্রত হতে হয়।

আমরা যখন বিদেশে কামলা দিয়ে দেশে টাকা পাঠাই, তখন দেশের মানুষ সেই টাকা ভারতে গিয়ে ভারতের পণ্য কিনে খরচ করে। গত মে মাসে প্রবাসীরা ১৪ হাজার ৮৩৫ কোটি টাকা দেশে পাঠিয়েছে। অন্যদিকে গত মাসে কলকাতায় বাংলাদেশি ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় ছিল। এক শ্রেণির মানুষ দেশের টাকা ভারতে গিয়ে খরচ করে আসছে প্রতিনিয়ত। আমার দেশের টাকা বিদেশে চলে যাচ্ছে! বিদেশে বসে এইসব দেখলে কষ্ট লাগে।

তা যাই হোক। আমি মধ্যবিত্ত মানুষ, কয়েক বছর ব্র্যাকে চাকরি করেছি, আড়ং থেকে কাপড় কিনলে
শতকরা ১০ ভাগ ডিসকাউন্ট পেতাম, তবুও আড়ং এর কাপড় কিনি নাই। সরকারি চাকরির প্রথম শ্রেণির বেতন যখন ছয় হাজার ছিল, তখন ১২ হাজার টাকা বেতন পেয়েছি, তবুও আড়ং এর কাপড় কিনি নাই। কিন্তু সবসময় দেশি কাপড় কিনে পরেছি। আমার কাছে দেশি কাপড় সবার আগে। দেশ সবার আগে।

আড়ং কাপড়ের দাম বেশি, এটা মধ্যবিত্ত মানুষের জন্য না। আড়ং এর মূল টার্গেট এলিট শ্রেণী ও বিদেশি ক্রেতা, তাই তাদের পণ্যের দাম বেশি হবেই। আপনি আড়ং পছন্দ না করলে আরও অনেক সুযোগ আছে। তারপরও আপনি দেশি কাপড় পরেন। দোহাই লাগে দেশি কাপড় পরেন।

আপনি ভাসাবিতে গিয়ে সস্তায় কাপড় কিনতে পারবেন না, তাই বলে কি ভাসাবি বন্ধ করবেন? ভাসাবি তো বিদেশি কাপড়ের ব্যবসা করে! আপনি তো গাউছিয়া গিয়েও দেখবেন দোকান ভেদে দামের প্রচুর পার্থক্য, তখন কী করেন? তখন তার বিরুদ্ধে আন্দোলন করেন? পাকিস্তানি থ্রি পিস আর ভারতীয় পণ্যে বাজার ছয়লাব, কই আপনারা তো এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করেন না? গ্রামীণ তাঁত ধ্বংস হতে চলেছে, কই আপনারা তো তাদের নিয়ে কথা বলেন না?

আড়ং আমাদের দেশি কাপড়ের ব্যবসা করে, যেহেতু ব্যবসা করে, তার মানে লাভ থাকবেই। কিন্তু দেখার বিষয় আড়ং এই লাভের টাকা বিদেশে পাচার করছে না, দেশের টাকা দেশেই থাকছে। আড়ং এর লাভের অংশ ব্র্যাক তার বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রমের কাজে লাগাছে। দেশে সার্বিক উন্নয়নের ব্র্যাকে এই অবদান অনস্বীকার্য।

তাই বলি কী, আড়ং এর বিরুদ্ধে এতো ক্ষোভ না দেখিয়ে বরং আড়ং এর যদি কোনো দুর্নীতি, অনিয়ম হয়ে থাকে, তার বিরুদ্ধে কথা বলুন। তাদের পণ্যের গুণগত মান নিয়ে কথা বলুন। আর হ্যাঁ, বন্ধ যদি করতেই হয় তাহলে ভারতীয় কাপড় পরা থেকে শুরু করে ভারতীয় চাল, চিনি, পেঁয়াজ এসব খাওয়া বন্ধ করেন। পাকিস্তানি পণ্য বয়কট করুন।

কথায় না, দিবসকেন্দ্রিক না, কাজে-কর্মে দেশকে ভালোবাসুন। দেশি পণ্য ক্রয় করুন। দেশের টাকা দেশে রাখুন।

সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা।

শেয়ার করুন:
  • 345
  •  
  •  
  •  
  •  
    345
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.