পিরিয়ডের সময়টাতে একটু সহানুভূতি চাই

0

ওয়াহিদা সুলতানা লাকি:

ওয়াহিদা সুলতানা লাকি

পিরিয়ড চলছে। ভয়ংকর মাথা ব্যথা, দুই চোখ সহ যেন খুলে পড়ে যেতে চাচ্ছে। কিছুতেই টলারেট করতে পারছি না প্যারাসিটামল খেয়েও। সেই সাথে লোয়ার এবডোমিনের চাপ তো আছেই। তার উপর পিল পিল করে ধেয়ে চলা ব্লিডিং এর যন্ত্রণা। বাড়তি কাপড়, প্যাড, আর কত কী! ব্লিডিং এর কারণে থেকে থেকে চোখেও ঘোলা দেখছি। কারণ মনেরও বিপর্যস্ত অবস্থা চলছে। পেট ভরে খেতেও পারছি না, অথচ ক্ষুধা লেগে আছে পেটে যেন ছুঁচো দৌঁড়াচ্ছে। এ সময়ে এমনিতে মেয়েরা খুব একটা খেতে পারে না।
.
এমন অবস্থায় সংসার ঘর বাহির সবটা যদি এক হাতেই সামাল দিতে হয় তখন শরীরের উপর ঠিক কতোটা চাপ পড়ে আপনারা পুরুষরা কি কখনো ভেবে দেখেছেন? মনের কথা না হয় বাদই দিলাম। কারণ জন্মগতভাবে প্রতিনিয়তই আমরা কখনো আপনাদের কাছে, গুরুত্ব বিচারে কখনো নিজ নিজ পরিবারের কাছে, কখনো বা সমাজের কাছেও যেমন অবহেলিত, তেমনই উপেক্ষিত।
.
এ অবস্থায় যখন আমার হাজব্যান্ড বললো, “আজ ছুটির দিন বিশেষ কিছু রান্না করো।” বললাম, “বাজারে যেতে হবে তো।” তিনি বললেন, “ছুটিটা একটু আয়েশে কাটাতে দাও না। বাজারটা তুমিই করে নিয়ে আসো না প্লিজ।” ছুটি ভোগের অধিকার কি শুধুই আপনাদের? নারীদের ছুটি কবে? তার উপর বাচ্চা সামলাবার যন্ত্রণা তো থাকেই।
.
বুঝে দেখুন(নারী), আপনি সকালের ঘর দোর পরিস্কার পরিপাটি করেছেন, গুছিয়েছেন, সবার নাস্তার আয়োজন করেছেন।এখন আপনি বাজারে যাবেন, এসেই নাকে মুখে ওই কাপড়েই রন্ধনশালায় ঢুকবেন। ততক্ষণে আপনার কিন্তু পিরিয়ডের প্যাড বদলের সময়টাও হাতে নেই। কারণ দুপুর দুটোর মধ্যেই আপনাকে টেবিলে লাঞ্চ রেডি রাখতে হবে। তার উপর যদি অকস্মাৎ বাড়তি অতিথির আগমন হয়, তবে তো ভোগান্তির হিসেবের অংকটা ক্যালকুলেটরের ডিজিটও ক্রস করে যাবে।
.
কখনো কি আপনারা পুরুষরা নারীদের পিরিয়ড কিংবা ঋতুস্রাব চলাকালীন সময়টিতে তাদের কষ্টের কথা ভেবে দেখেছেন? আপনি নিজে কখনও কোনদিন আপনার মায়ের ঋতুস্রাব চলাকালীন রান্নার ভাতের ভারী হাড়িটি মাড় ঝরা দিয়ে কিংবা ধোয়া কাপড়ের বাকেটটি ছাদে তুলে নিয়ে কাপড়গুলো শুকাতে দিয়ে অথবা ঘরের বাসি বিছানাগুলোকে পরিপাটি করে ছোট্ট ছোট্ট সাহায্যগুলো করেছেন?
আপনি কি কখনো আপনার পাশে থাকা স্ত্রীকে তার ঘরের কাজে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন? আপনি যদি স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন কখনো কি আপনার মেয়ে বন্ধুটির ভারী বইয়ের বোঝাটি বহন করে কিংবা এ সময় তার কোন সহযোগিতা লাগবে কিনা খোঁজ নিয়ে দেখেছেন?

যুগ বদলেছে। পিরিয়ড এখন আর কোন লজ্জাকর টপিক নয় যে আপনার মেয়ে বন্ধুটির পিরিয়ড হলে সে আপনাকে সাহায্যের কথা বললে আপনি লজ্জায় নিজের মধ্যেই গুটিয়ে পড়বেন।
.
এটি আমাদের সমাজের অধিকাংশ নারী জীবনের একটি অপ্রকাশিত নির্মম চিত্র। আসুন, আজ থেকেই ঘরের নারী সদস্যটিকে তার প্রতিটি কাজে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেই। এ সময়ে সে যেন লজ্জায় না পড়ে যায় সেজন্য নিজেই তার প্রতি ইজি থাকি। তার শরীরের দিকে যত্নবান হই। আর এর আগে শুরুটা হোক নিজের মায়ের ঋতুস্রাবকালীন সময়ে তাকে সাহায্যের হাতটি বাড়িয়ে দিয়ে। আপনাকে দেখেই শুদ্ধ চর্চায় বেড়ে উঠুক পরিবারের কনিষ্ঠ সদস্যটিও।

অনলাইন এক্টিভিস্ট
১৭/০৩/১৯

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 861
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    861
    Shares

লেখাটি ১,৬৩৪ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.