অপ্সরীকে চিঠি আর চকোলেট পাঠালেন ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট

0

ফুলেশ্বরী প্রিয়নন্দিনী:

আজকের ইমেইল আর ক্ষুদেবার্তার যুগে হাতে লেখা চিঠির খাম আর ডাকপিয়নের অভাববোধ করি খুব।
আমার কন্যাদ্বয় মাঝে-মধ্যে বাড়ির মধ্যে চিরকুট আদানপ্রদান করে দেখে বেশ মজা পাই। গত বছর বড় কন্যা অপ্সরী নন্দনা অনুমতি চাইলো – সে একটি ইমেইল একাউন্ট খুলতে চায়। কারণ বিশ্বের নানা গুণীজনকে সে চিঠি লিখতে চায়। খুশি
মনেই অনুমতি দিলাম।

ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্টের কাছ থেকে ই-মেইলের উত্তরই শুধু পায়নি নবম শ্রেণির ছাত্রী অপ্সরী নন্দনা, ডাকযোগে প্রেসিডেন্টের অটোগ্রাফসহ চিঠি আর হোমমেইড চকোলেটও পেয়েছে সে। অভিনন্দন অপ্সরী, অনেক বড় হও।

আমাদের ছেলেবেলায় চিঠি লেখার প্রচলন ছিলো।
আমাদের বাড়িতে প্রচুর চিঠিপত্র আসতো। ডাকপিয়নের ঝোলা থেকে বের হওয়া চিঠির জন্য অপেক্ষায় থাকতাম আমরা।
আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু ছাড়াও প্রিয় ব্যক্তিত্ব, শিল্প-সংস্কৃতি ও সাহিত্য জগতের বহু জ্ঞানীগুণী মানুষের চিঠির প্রেরক ও প্রাপক হবার সৌভাগ্য হয়েছে আমাদের।

সে চিঠিগুলো বাড়িতে আসর জমিয়ে পড়া হতো, সেই দিনগুলো সত্যিই মধুর স্মৃতি হয়ে জড়িয়ে আছে জীবনে। মা, বাবা আর আমরা তিন বোন চিঠি লিখতে ভালোবাসতাম খুব (এখনও আমি ভালোবাসি)।
চিঠি লেখার এই অভ্যেস গড়ার পেছনে একজন মানুষের নাম না উল্লেখ করলেই নয় তিনি হলেন আমার বড় নানা (মায়ের বড় মামা) নাজিম মাহমুদ। চমৎকার হাতেরলেখায় তাঁর চিঠিগুলো আজো আমার কাছে সোনার খনি বা যাদুমন্ত্র বলতে পারি।

যাই হোক, ইমেইল আইডি পেয়ে আমার বড় মেয়ে প্রায়শই ব্যস্ত হয়ে কী সব লেখালেখি করে। এরপর দেখি উত্তরও পাওয়া শুরু হলো। ইমেইলে তার পত্র যোগাযোগ দেখে খানিকটা নড়েচড়ে বসি।
জাস্টিন ট্রুডো, বারাক ওবামা ফাউন্ডেশন, প্রিন্স হ্যারির চ্যারিটি প্রতিষ্ঠান, বিশ্বের নানা সমাজসেবা ও স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে প্রধানমন্ত্রী – এক বছরে মোটামুটি দীর্ঘ তালিকা।

পড়ে দেখলাম বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অপ্সরীর চিঠির বিষয়বস্তু থাকে নারী-পুরুষের সমতা বা নারীর অগ্রযাত্রা নিয়ে। অপ্সরীর মতে, সে তার নানি প্রিয়ভাষিণীর জীবনদর্শন ও মায়ের সামান্য লেখালিখি দ্বারা প্রাণিত। আমি বিশ্বাস করি, এভাবেই একদিন চিন্তাচেতনায় সমৃদ্ধ ও স্বকীয় হয়ে উঠবে অপ্সরী।

গত সপ্তাহে দেখি বাড়িতে তার নামে চিঠির খাম!

ক্রোয়েশিয়ার প্রেসিডেন্ট অপ্সরীকে ইমেইলে উত্তর পাঠানোই যথেষ্ট মনে করেননি, বাড়ির ঠিকানায় চিঠি, ছবির সাথে অটোগ্রাফ এবং ক্রোয়েশিয়ার ঐতিহ্যবাহী “Handmade Dark Chocolate” পাঠিয়ে দিয়েছেন।

আমার চৌদ্দ বছরের কিশোরী কন্যা অপ্সরী নন্দনার এ আনন্দটুকু বন্ধুদের সাথে ভাগাভাগি করে নেবার ইচ্ছে হলো।
একবিংশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে “মেয়েদেরকে লেখাপড়া না করানোর” মতো বর্বর কথা বলার দুঃসাহস যারা করে তাদের স্পর্ধাকে ভেঙে গুড়িয়ে, পায়ে মাড়িয়ে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে এগিয়ে যাক আমাদের সন্তানেরা।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 750
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    750
    Shares

লেখাটি ১,৫৫৭ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.