নির্বাচনে যেই জিতুক, আমাদের কী!

0

ফারজানা আকসা জহুরা:

জীবনের প্রথম ভোট দিয়েছি ২০০১ সালে। ভোট কেন্দ্রে গিয়ে দেখি নাম ভুল, বয়স ভুল! আমার নামে কোনো আক্তার নেই কিন্তু তাদের লিস্টে আমার নামের শেষে আক্তার লাগিয়ে রেখেছে, বয়স ৩৯! আর আম্মুর নাম দিয়েছে গোলাপ বেগম! যা আম্মুর ডাকনাম! আর বয়স লেখা ১৯!

সেই ভুল ভাল নাম ও বয়সে জীবনের প্রথম ভোট দিলাম। যে দলকে ভোট দিলাম তারা নির্বাচিত হয়নি। সেই অপরাধে ২০০২ সালে আমাদের বাসায় দুর্ধর্ষ ডাকাতি হলো। কারণ আমরা পথে ঘাটে বাসা বাড়িতে নৌকা নৌকা করে বেড়াই!

যাই হোক সেই ডাকাতির ফলাফল ভোগ করলো আমার একমাত্র ভাই। যেহেতু ৫ বছরের শিশুটির মাথায় দুইটা পিস্তল, গলায় রাম দা ধরে জিম্মি করা হয় তাই। পুলিশ তো জনগণের বন্ধু হতে পারে না, তাই কেস নিতে চায়নি, তিন চারবার গিয়ে গিয়ে শেষে কেস নেয়, তাও দস্যুদারি। এই ঘটনার পর একবছর আমার ভাইকে মানসিক চিকিৎসা নিতে হয়, কিন্তু কোনো উন্নতি হয় না। অবশেষে ভারতে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানো হয়।

এরপর অনেক ঘটনা ঘটে। দেশের যে কী অবস্থা ছিল তা আর বলতে?

২০০৮ যখন আবার নির্বাচন এলো, আমরা আবারো নৌকায় ভোট দিলাম। ভেবে ছিলাম খুব ভালো কিছু হবে। আমাদের সুদিন আসবে! হ্যাঁ হয়েছে, যাদের টাকা আছে, ক্ষমতা আছে তাদের হয়েছে। যে টাকা দিয়েছে তাদেরই ভালো ভালো চাকরি হয়েছে। টাকা নেওয়ার সময় আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জামাত কিছুই বাছ-বিচার ছিল না।

যাইহোক টাকা লবিং এর দৌড়ে সরকারী চাকরি আশা বাদ দিলাম। টাকা লবিং ছাড়া বেসরকারি চাকরি নিয়ে সন্তুষ্ট ছিলাম। মাঝে আব্বু আম্মুর মৃত্যুতে আবার সমস্যায় পড়তে হলো আমার ভাইটাকে।

২০১৬ সালে কোনো এক রাতে, দশটার সময় আমাদের আত্মীয় পুলিশের সহযোগিতায় আমার ভাইকে মারধর করে ফ্ল্যাট থেকে বের করে তা দখল করে নিলো। তখন শিশু অধিকার, মানবাধিকার, প্রতিবন্ধীদের অধিকার সবাই বোবা কালা ছিল।

আওয়ামী লীগ বলি আর বিএনপি, কেউ সাধারণ জনগণের কল্যাণে আসে না। যাদের ক্ষমতা আছে তারা সবসময় সুবিধা ভোগ করে। চামচা প্রজাতি লোক সবসময় সুবিধা ভোগ করে। মধ্য দিয়ে সাধারণ মানুষ আওয়ামী লীগ, বিএনপি করে করে মার খায়, জেলে পুরে। তাদের বাড়ি পোড়ানো হয়, সম্পত্তি দখল হয়।

ভোট নাগরিকের অধিকার, কিন্তু ফল কখনোই সাধারণ নাগরিকরা ভোগ করতে পারে না। এবার ভোট তো দেওয়া হলো না, ইচ্ছেও ছিল না।

শেয়ার করুন:
  • 78
  •  
  •  
  •  
  •  
    78
    Shares

লেখাটি ৩৮৮ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.