পরকীয়া এবং …

0

অপর্ণা গাঙ্গুলী.

কী জানি বাবা, পরকীয়া পরকীয়া করে চেঁচিয়ে মেচিয়ে পরকীয়ার অমন টক-মিষ্টি-চাটনি ব্যাপারখানার বারোটা বাজিয়ে ছাড়লে সব l ভাবুন তো, কী সব চুপকথা জড়ানো এমন এক গায়ে পিঠে রীতিমতো কদমফুল ফোটানো সম্পক্কে … তা না, আইন করে শাস্তিযোগ্য নয় বলে-টলে হ্যান করে ত্যান করে দিলে সত্যনাশ ঘটিয়ে l

তবে বাপু ঘর পোড়া গরু, তাই বলছি, এমন কত পরকীয়ার জেরে কত ঘর গেরোস্তি উজাড় হয়, কত বুক ভাঙে, কত ছেলেমেয়েরা, মা বাপেদের এই সাময়িক চিত্তচাঞ্চল্যে বয়ে গিয়ে জাহান্নামে যায়, সেদিকেও নজর রাখা দরকার বই কি! পরকীয়া এখন থেকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ নয়, এ সুবিধে শুনছি বিশেষতঃ মেয়েদের জন্যেই l স্ত্রী তার স্বামীর সম্পত্তি নয় l এটা বেশ মনে ধরেছে l সম্পত্তি কেইবা কবে ছিলেন, কেনই বা ছিলেন?

মনে রাখা দরকার, এই বিশাল কালচক্রে আমরা এক ধূলিকণা, ‘আমরা এমনি এসে ভেসে যাই’ l খলিল গিব্রান তো বলেই গেছেন, তোমাদের ছেলেমেয়েরাও তোমাদের কেউ নয়l

অবশ্য এই আইন পাশের জন্যে এটা হতেই পারে, এখন পুরুষ ও নারী উভয়েই উভয়ের মতো পরকীয়া চালাতে পারেনl কেউ কাউকে প্রশ্ন কল্লে একজন অপরজনকে বলবেন, বেশ করেচি, তোমার চোদ্দ পুরুষের কী? একসঙ্গে থাকতে না চাও, বেরিয়ে যাও l আর তখন পর্দার পেছন থেকে দু’ জোড়া ভয়ার্ত চোখ, হাঁ করে তাকিয়ে থাকবে বাবা-মায়ের কলহপ্রিয় চেহারাগুলোর দিকেl

অবশ্য এসবের আইন পাশের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক নেই l আইন হয়েছে, দণ্ডনীয় নয়, সে একদিকে ভালো, কথায় কথায় পুলুষের হুজ্জুতি ভালো নাl বারংবার প্রেমে পড়ার ভয়ঙ্কর ইচ্ছে থাকলে যান বিয়ে থেকে বেরিয়ে গিয়ে প্রেম করুন l You cannot have the cake and eat it too l গাছেরটিও খাবেন, আবার তলারটিও কুড়োবেন, ওসব মানসিকতা এক্কেরে ভালো নয়, বলে দিলুম l

তবে এখন আপনাদের ব্যাপারl বুদ্ধিমান স্বামী-স্ত্রীরা তো জানি, এমন এক সমঝোতা করেই নিয়েছেন l ওপেন রিলেশনশিপl আমি আমার মতো, তুমি তোমার মতো জীবন কাটাবো, কেউ কাউকেই বাধা দেব নাl আমি বাড়িতে ফিরলে তুমি রান্না করে রাখবে, আমি খাবোl তেমনি আমার গাড়িটাতে তুমি প্রেমিকের সঙ্গে ঘুরে এসো, আমি কিচ্ছুটি বলবো না, কিন্তু আমিও মাঝে মাঝে এ বাড়িতে আমার সঙ্গিনীর সঙ্গে রাত্তির কাটাবো, ভাইl আমরা তো কেউ কারও সম্পত্তি নই, তাই আমরা ঐরকমl তো, এই সব কথা ….।

এ’সব বেশ শক্ত ব্যাপার স্যাপার l কিন্তু কিছুদিন পর যদি পরকীয়ার ভূত বা পেত্নী ঘাড় থেকে নেমে যায়? অথবা আপনার সেই উনি আপনার সঙ্গে আর থাকতে না পেরে পেইলে যান? আর তখন আপনার হাতের রান্না করা মাছের ঝোল, পালক শাকের ঘন্ট আর মুলোর ছেঁচকি খাবার জন্যে আপনার এক্স ওয়াই জেডের প্রাণ আঁকু পাঁকু করে, তবে বুঝবেন আপনি একজন … যাক সে আর বললুম না এখেনেl তখন?

তখন আর কী? আপনিও তো মানুষl তখন আপনি ভালো করে যত্ন করে আপনার উনিকে খাওয়ালেন, দাওয়ালেন ইত্যাদি প্রভৃতি আর কী! উল্টোটাও ঘটতেই পারেl আমি বলি কী, পরকীয়া থাক, কোনো শাওন দিনের ইলিশ মাছের মতো, ও সব দামি ব্যাপার স্যাপার, যদি একান্তই ইচ্ছে যায়, অবরে সবরে টেস্ট করুন, আর ঘরের মোরগ/মুরগিটি, ডাল ভাত হলেও, ওতেই পেট ভালো থাকে, মন ভালো থাকে, ঘর ভালো থাকে, সমাজ ভালো থাকেl ঐতেই মজে থাকুনl

বলছি বটে, তবে আমি বলার কে? এক্ষুনি ফ বাহিনী রে রে করে ছুটে আসে বুঝিl এই তুই কে রে, ঘরের শত্রু সরমা, আমরা এমন স্বাধীনতা পেয়েছি আর তুই তার অকমান কচ্ছিস? তোর সাহসটা কী? দিদিরা, দাদারা, অপমান আমি করছি না গো, শুধু বলছি স্বাধীনতাকে স্বেচ্ছাচার বানিও না গোl

একটু খেয়াল রেখো, তোমার জন্যে অন্য এক ভালোবাসা বুক ফেটে মরে না যায়l কিছু নিষ্পাপ কচিমুখ মা বাপের আদর যত্ন থেকে বঞ্চিত না হয় l ঘর ভাঙার মতো, হৃদয় ভাঙার মতো অনৈতিক কাজকর্ম ভালো না l

প্রশ্নটা সত্যিই অপরাধ নিয়ে নয়, প্রশ্নটা নৈতিকতারl

অপর্ণা**

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 774
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    774
    Shares

লেখাটি ৮,৯৬৫ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.