ফেমিনিস্ট ট্রেনিং এর ফাঁকে ফাঁকে-১২

0

মারজিয়া প্রভা:

ইভ ইন্সলার, আমেরিকান নাট্যকার, একটিভিস্ট এবং ফেমিনিস্ট। তিনি বিখ্যাত তার রচিত বিখ্যাত নাটক ‘দি ভ্যাজাইনা মনোলগস’ এর জন্য। মাত্র পাঁচ বছর বয়সে তিনি তার বাবা দ্বারা যৌন নির্যাতনের শিকার হোন। দশ বছর বয়স অবধি তার উপর চলতে থাকে এই অত্যাচার। ভ্যাজাইনা মনোলোগস-সহ অনেক নাটক লিখে এবং পারফর্ম করে তিনি প্রচুর পয়সা অর্জন করেন। এরপর তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ভি অর্গানাইজেশন।

২০১২ সালে ইউএন এর রিপোর্ট অনুযায়ী প্রতি তিনজনে একজন নারী ধর্ষণ এবং যৌন নির্যাতনের শিকার হয়৷ অর্থাৎ সারা বিশ্বে এক বিলিয়ন নারী এখন যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। নিজের ছোটবেলার তাড়িত দুঃসহ স্মৃতি আর ইউএনের এই পরিসংখ্যান দেখে তিনি এবং তার ভি ডে অর্গানাইজেশন স্বপ্ন দেখে “One Billion Rising” ক্যাম্পেইনের। সাংগাত এই ক্যাম্পেইনের সাউথ এশিয়ার কো অর্ডিনেটর।

সেই ২০১২ সাল থেকে চলে আসা এই ক্যাম্পেইনে ২০৭টি দেশ অংশগ্রহণ করে। এই ক্যাম্পেইনের মূল লক্ষ্য ওয়ান বিলিয়ন নারী যারা যৌন নিগ্রহের শিকার, তাদের প্রতি সমস্ত অন্যায় অবিচারের শেষ দেখে সারা!

বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন একটিভিজম পালন করে এই দিনে। বিভিন্ন দেশের নারীরা ফ্লাশ মব করে, ফুটবল খেলে, সাইকেল র‍্যালি করে, উদ্দীপ্ত কন্ঠে জানায় আমরা United হয়েছি, আমাদের নবজন্ম ঘটছে, আর বেশি দেরি নয়! সমস্ত নিগ্রহের শেষ দেখে ছাড়বো আমরা!

২০১৯ সালে One Billion Rising এর কাল সূচনা ছিল নেপাল থেকে। অর্গানাইজারের ভূমিকায় আমরা ২৩ তম প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ব্যাচ ছাড়াও ছিল নেপালের ছোট বড় প্রায় ১০০ এর মতো সিভিল অর্গানাইজেশন। কাল মিতো এওয়ার্ড প্রদান করা হয় নেপালের সুমীরা নামক একজন একটিভিস্টকে, যিনি সিংগেল উইমেন নিয়ে নেপালে কাজ করে যাচ্ছেন। মিতো এওয়ার্ডটি কমলাজীর অকালপ্র‍য়াত মেয়ের নামে দেওয়া হয়। প্রতি বছর সাউথ ইন্ডিয়ান তরুণ কোনো একটিভিস্ট এই পুরস্কার পায়।

এই অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ছিল ইন্ডিয়ার ডকুমেন্ট ফিল্ম মেকার শবনম ভিরমানি। যিনি কবীর প্রজেক্ট এর জন্য সমাদৃত। কবীর হচ্ছে ভারতবর্ষের ১৫ শতকের এক mystic কবি। আমাদের যেমন লালন, তাদের কবীর। তবে আশ্চর্য যে কবীর যা বলে গেছেন গানে, লালনও প্রায় তাই বলে গেছে। এতো মিল দুজনের গানে।

কাল সারা হলরুম নিঃস্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল শবনমের সুরের মুর্ছনায়। তিনি অসাধারণ এক সুফি গায়ক।।গেয়েছেন আমাদের লালনের গান ও। কিন্তু আমি নিঃস্তব্ধ হয়ে গেছি, তার কবীরের গানে “হামান হ্যায়েন ইশকে মাস্তানা” অর্থাৎ I am drunk in love! কি সেই সুর! আমি সারা রাত রেকর্ড শুনে গেছি।

আমরা খুব লাকি! প্রোগ্রামের পরপর আজ পুরোদিন শবনম ক্লাস নিয়েছেন। আর শিখিয়েছেন স্পিরিচুয়ালিটির সংগে ফেমিনিজমের যোগ কোথায়! সুফিজম আর ফেমিনিজমের সংযোগ কই! এই প্রথম মান্থ লং কোর্সে এই ক্লাস পেলাম বোধহয়। সারাদিন শুধু গান আর গানে কেটেছে।

এখনো মাথায় ঢুকে আছে, “হামেন হ্যায় ইশকে মাস্তানা/ হামেন হ্যায় হোশেয়ারি কিয়া/ রাহে আজাদ ইয়া জাগ সে/ হামেন দুনিয়া ইয়ার সে কেয়া”।

কাল চন্দ্রগিরি পাহাড় যাবো! এই সুর মাথায় নিয়েই। ফিরে এসে হয়তো ফেমিনিজম আর স্পিরিচুয়ালিটির বিষয় নিয়ে লেখা যাবে!

#Sangat
#23th_Feminist_Capacity_Building_Up_Course
#Day_12

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 33
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    33
    Shares

লেখাটি ২৭৯ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.