ভাবীদের অাড্ডা

0

নাহিদ আহসান:

অামার সব দাওয়াতে যেতে ইচ্ছে করে না। মাঝে মাঝে দাওয়াত খেতে ইচ্ছে করে। এর প্রধান কারণ হলো অামার অলসতা ও ব্যস্ততা। অারেকটি কারণ অামার মধ্যে ভীড়ের ভয় কাজ করে।
অামার হাজবেন্ডও সিলেকটিভ সোশ্যাল দেখে অামার ওপর এই নিয়ে কোন অালাদা চাপ নেই।

একবার এক দাওয়াতে নাকি না গেলেই নয়- দেখে যেতে হলো। কিন্তু গিয়ে অামার রিপভ্যান উইংকেল এর অবস্হা হলো। সবকিছুতেই খটকা লাগছে।
রিপভ্যান উইংকেল জঙ্গলে বেড়াতে গিয়ে এক যাদুর পানীয় খেয়ে বিশ বছর ঘুমিয়ে ছিলেন।
ঘুম থেকে উঠে দেখেন, পৃথিবী বদলে গেছে। যা দেখেন নতুন লাগে।

খাওয়া-দাওয়া শেষে ভাবীরা জমজমাট অাড্ডার অাসর বসালেন, সোফায় কার্পেটে জাঁক করে তাকিয়া নিয়ে বসে। অামার যোগ দিতে একটু দেরি হলো।
দেখি এক ভাবী বলছেন, ‘না, না, অামার ছেলেকে অামি কিছুতেই ‘নাসা’তে কাজ করতে দেবো না। ওখানে মানুষের স্বাধীনতা বলতে কিছুই নাই।
ছুটিই দেয় না। অার দিলেও ল্যাপটপে, মোবাইলে এমন সবকিছু ফিট করে দেয়, যাতে তার গতিবিধি লক্ষ্য করা যায়।’

অামি বেশ অবাক হলাম। অামি তো জানতাম নাসায় চাকরি পাওয়া খুব কঠিন ব্যাপার। রীতিমতো ড্রিম জব। সেখানে কি কেউ চাকরি পেয়েও ফিরিয়ে দেবে অাভ্যন্তরীণ এইসব জটিলতার কারণে?
অারেকজন বললেন, ‘হ্যাঁ কোকোকোলা কোম্পানিতে কী হয় জানেন? কোন কর্মী চাকরি ছেড়ে গেলে তাকে স্লো পয়জনিং করা হয়। যাতে সে কোম্পানির সিক্রেট কাউকে বলতে না পারে। অামাদের এক অাত্মীয় চাকরি করতো। তার বাসার ছাদে হেলিকপ্টার ঘুরতো নজরদারির জন্য।’

সিনেমায় স্লো পয়জনিং বা হেলিকপ্টারের চক্রাকারে ঘোরা এইসব রোমহর্ষক ব্যাপার অবলোকন করি, কিন্তু বাস্তবে এসব নিয়ে কখনো ভাবিনি দেখে অামি অালাপে অংশ নিতে পারলাম না। কিন্তু তাদের প্রতি সমীহ বোধ করলাম ও অবাক হলাম কারণ তারা জীবনের সাথে এসব মিলিয়ে নিয়েছেন।

হাই প্রোফাইল জব থেকে জীবন সংগ্রামে – অালাপ মোড় নিল। একজন বড় ব্যবসায়ী নাকি দেউলিয়া হয়ে যান। তারপর বাধ্য হয়ে রিক্সা চালিয়ে ছেলেমেয়ে বড় করেন। অামি অামার স্বভাবমতো একথা শুনে চমকে উঠলাম। এও কি সম্ভব – এতো পুরোপুরি বাংলা সিনেমা। এরপর একসময় নিশ্চয়ই তার ছেলে একদিন ছুটে এসে বলবে, ‘বাবা, বাবা অামি তো এম.এ তে ফার্স্ট হয়েছি।’

এ ব্যাপারে একজন সুচিন্তিত মন্তব্য করলেন,
‘অনেকেই দেউলিয়া হয়ে অাত্মহত্যা করেন।’
অামার পাশে যিনি বসেছিলেন তিনি এটা শুনে সায় দিয়ে বললেন, ‘হয়তো এছাড়া তাদের কোন উপায় থাকে না।’

অামি অাবারও চমকে উঠলাম।
কিছুক্ষণ অাগেই অামার পরিচয় হয়েছে তার সাথে। উনি একজন সাইক্রিয়াটিস্ট। অামার মুখ থেকে মন্তব্য ঠিকরে বেরিয়ে এলো, ‘অাপনার তো অারও মানুষকে বোঝানো উচিৎ – ‘অাত্মহত্যা কত খারাপ জিনিস। অাপনি যদি এই কথা বলেন, তাহলে অাপনার রোগীরা কী করবে?’
হঠাৎ অাড্ডায় পিনপতন নিস্তব্ধতা নেমে এলো। অামি অস্বস্তি বোধ করতে শুরু করলাম। বেমক্কা কিছু বলে বসলাম নাকি?

এমন সময় গৃহকর্তা সবাইকে মিষ্টি দিতে এলেন। এক ভাবী মন্তব্য করলেন, ‘ওমা ভাইয়া কত কাজের! অামার হাজবেন্ড তো কোন কাজ করতে চায় না।’
বাড়ির কর্ত্রী উত্তর দিলেন,
‘লোকজন দেখে একটু কাজ দেখাচ্ছে। এমনিতে বাসায় কুটোটিও নেড়ে খেতে চায় না।’

‘বাংলাদেশে পুরুষরা যে অলস, এর কারণ ছেলে শিশু মানুষ করার সময় তাদের মাথায় এই ধারণা বুনে দেয়া হয় যে, তারা এক একজন লাট সাহেব। তারা কোন কাজ করতে গেলে সবাই ছুটে অাসে। ‘তুমি যাও। তুমি যাও। অামি করছি।’
একজন এভাবেই শাশুড়ির বাচ্চা মানুষ করার প্রক্রিয়াকে ব্যঙ্গ করলেন।
অারেক ভাবী তাল দিলেন এই বলে, ‘অামি অামার বাচ্চাকে ভ্যাদাইম্মা, অাকাইম্মা করে মানুষ করবো না।’

অামি কিছু বলবো নাকি ভাবছিলাম, এমন সময় অামার হাজবেন্ড অামাকে পুরুষ মহল থেকে কী যেন একটা বলতে এলেন। তাই অামি এ ব্যাপারে চুপ করে থাকাই সমীচীন বোধ করলাম।

মিষ্টি খাওয়ার পর মোটা হওয়া নিয়ে কথা শুরু হলো। প্রসঙ্গক্রমে অাসলো জিমের কথা। কে কতক্ষণ ট্রেডমিলে দৌঁড়াতে পারে তার মৌখিক প্রতিযোগিতা শুরু হলো। অামি কয়েকমাস জিমে গিয়েছিলাম, কিন্তু দুঘন্টা exercise করার পর বাসায় এসে মনে হয় হাড় মুড়মুড়ি ব্যারাম হয়েছে। তাই অার যাই না। একথা তো অার বলা যায় না। তবে একজন সমমনা মানুষ পেলাম। উনি বললেন, ‘বেশি ব্যায়াম করা ভালো না।’
তারপর একসময় প্রসঙ্গ বদলে গেল।

এখানে কাজের মেয়ের অভাব দেখে home appliances নিয়ে অালোচনা হলো – যা দারুণ দরকারি। অামি অামার ঘর মোছার রোবট নিয়ে কথা বলতে চাইলাম। কিন্তু এক ভাবী অামার মুখ দিয়ে কথা বের না হতেই লুফে নিলেন। বললেন, উনি নতুন যেটা কিনেছেন তার সেন্সর কাজ করে। সোফার নিচ থেকে বা খাটের নিচ থেকে কারও সাহায্য ছাড়া বেরিয়ে অাসে। অামারটা অাবার রোবোটিক্সের প্রথম যুগের। খাটের নিচে ঢুকে ঘুরতে থাকে। তাকে অাবার বের করে নিয়ে অাসতে হয়।
তাই অামি এ ব্যাপারে অার কোন কথা বাড়ালাম না।

ভাবলাম, অামি কিছু বলি -মালয়েশিয়ার বাংলাদেশী শ্রমিকদের নিয়ে কিংবা রাজনীতি নিয়ে।
কিন্তু দুইটি বিষয় মিলিয়ে এক ভাবী এমন কিছু তথ্য দিলেন, যা শুনে অাবারও অামি অবাক হলাম।
উনি বললেন যে, বাংলাদেশী শ্রমিকদের চাহিদা জানিয়ে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে মাহাথির মোহাম্মদ একটি প্রস্তাব দিয়েছিলেন। উনি বলেছিলেন যে, তিনি বাংলাদেশ থেকে লোক নেবেন, তবে তাদের মৃত্যুর পর তাদের লাশ দেশে পাঠানো হবে না। জিয়াউর রহমান নাকি একথা শুনে অার রাজী হননি।
এখন বাংলাদেশ শ্রমিক পাঠাতে চায়। কিন্তু মালয়েশিয়া নিতে চায় না।’
অামার চিন্তা এবার দার্শনিক দিকে মোড় নিল। ‘কেন মানুষ মরার পরে দেশের মাটিতে কবর চায়? সারাজীবন বিদেশে থাকলে সমস্যা নেই। মৃত্যুর পর দেশে ফিরতে হবে?’

একসময় গৃহকর্ত্রী কিচেনের দিকে রওয়ানা দিলেন, অামি তার পিছু পিছু গেলাম।
ভিসার মেয়াদ নিয়ে কথা ওঠায় উনি ব্যবসা ভিসা নিয়ে কথা বলা শুরু করলেন। কত রকম ব্যবসা ভিসা অাছে এই প্রসঙ্গে উনি বলছিলেন। এসময় একজন ভাবী এসে বললেন, ‘অাপনারা এখানে কী করছেন?
অামি উত্তর দিলাম, ‘ব্যবসা বাণিজ্য শিখছি।’

উনি মন্তব্য করলেন, ‘ব্যবসা তো এভাবে শেখা যাবে না। ব্যবসা করতে হবে। ব্যবসাতে লোকসান করতে করতে লাভ, লাভ করতে করতে লোকসান হয়…।

অামার নিজেকে খুব সেকেলে মনে হলো। দ্বীন দুনিয়ার কিছুই জানি না। ভাবলাম এরপর থেকে মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে হবে। অাড্ডা দিতে হবে। রীতিমতো পড়াশোনা শুরু করতে হবে। যাতে পরের অাড্ডায় কিছু কথা বলতে পারি।

জানি না পারবো কিনা। ততদিনে হয়তো ভাবীরা জ্ঞানে বিজ্ঞানে অারও অনেকদূর এগিয়ে যাবেন।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 1K
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1K
    Shares

লেখাটি ৬,৬০৭ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.