পাগলিটি মা হয়েছে, কিন্তু বাবা হয়নি কেউ!

0

সালেহা ইয়াসমিন লাইলী:

কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে আজ এক পুত্র সন্তান জন্ম দিয়েছে এই মেয়েটি। কিছুদিন আগেই এই মেয়েটিকে নিয়েই লিখেছিলাম যে, কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে ভর্তি আছে আট মাসের অন্তঃসত্তা এক পাগলি। শহরের রাস্তার পাশে, দোকানের বারান্দায় থাকতো এই পাগলী। কখনো গোসল করতো না। খাবার খাওয়ার আগে পরে হাত পা ধুতো না। যেখানে সেখানে পায়খানা-প্রস্রাব করতো। কোন কথাও বলতো না। এমন একজন পাগলিও অন্তঃসত্ত্বা হয়! আমি মানসিক ও শারিরিকভাবে সুস্থ নই এর বেশি কিছু ভাবার মতো।

সেই মেয়েটিই আজ এক ফুটফুটে সন্তান জন্ম দিয়েছে, সে মা হয়েছে। কিন্তু বাবা হয়নি কেউ। অথবা হতে পারে এই শহরের সব পুরুষই ওর বাবা, কে জানে!

কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক বাচ্চার ব্যাপারে যেকোনো উদ্যোগ নিতে চেয়েছেন। তিনি হাসপাতালে গিয়ে মা ও শিশুকে দেখে এসেছেন। মা ও বাচ্চাটাকে এক পরিবারও দায়িত্ব নিতে চায়। তারা মূলত বাচ্চাটাকে দত্তক নিতে চাচ্ছে। দেখা যাক কী করা হয়!

কার কবিতা জানি না, মনে পড়ে গেল এ প্রসঙ্গে। তুলে দিলাম নিচে:

পাগলিটাও মা হয়েছে
তবে বাবা হয়নি কেউ
পাগলি বলে যায়নি ছেড়ে
প্রসব ব্যাথার ঢেউ।

পাগলিও যে নারী শরীর
বয়ে বেড়ায় তার
ছেড়ে যায়নি মাসিক নামের
ব্যথার অনাচার।

রাস্তায় ঘুরে কাটে দিন আর
রাস্তায় কাটে রাত
পাগলি বলে স্বামী হয়নি
পায়নি সংসার স্বাদ।

কীভাবে সে মা হয় তবে
গর্ভে লয় সন্তান?
নাকি আবার জন্ম নিলো
যিশু ভগবান।

পাগলি ও কি করেছিল
যৌন আহবান?
নাকি রাতের বেলা বেশ্যা হয়ে
করল শরীর দান!

দশ মাসেতে পাগলি ছিল
কত বেদনায়
পেট বেড়েছে পোঁয়াতি সে
কীসের তাড়নায়?

ক্ষুধায় খেল আবর্জনা
কখনো না খেয়ে
বাচ্চা পেটে ছোটাছুটি
কে দেখেছে চেয়ে।

বাচ্চা মারে পেটে লাথি
মানুষ মারে পিঠে
হাতুড়িতে আঘাত হানে
ফাটল ধরা ইটে।

ব্যাথায় যদি কুকড়েছিল
কে দেখে বল কাকে
হাউ মাউ করে কেঁদেও সে
পায়নি সাড়া ডাকে।

সেইতো বুঝে প্রসব ব্যথা
যে হয়েছে মা
পাগলিটাও মা হয়েছে
বাপটা কেউনা।

গাছ ফেটে যে গাছ বেড়োলো
কে লুকেছে বীজ
মেয়ে শরীর পেয়ে রাতে
কে ঢেলেছে বিষ।

জন্ম নিল যে শিশুটি
কাকে ডাকবে বাপ
জারজ বলবে সবাই যারে
যে সমাজের পাপ।

পাগলি বলে ধমকে বলি
এখান থেকে ফুট
রাতের বেলা পাগলির শরীর
করে এলাম লুট।

দশটা মাসে কী খেয়েছে
রক্ত গেল কত
কে দেখেছে দশটি মাসে
ব্যাথায় ছিল শত।

কে জানে তার শরীরটাকে
আরো কতবার
চুষে খেয়ে চিবিয়েছে
কত জানোয়ার!

পুরুষ গেল শরীর খেয়ে
নিয়ে গেল স্বাদ
কষ্ট পেয়ে মরলো শুধু
পাগলি মায়ের জাত।

ফকির বলে মায়ের জাতি জন্ম দিয়ে
নিজেই হল কাল
পাগলিটাও মা হয়েছে
মা হয়েছে মাল

রাতের বেলা নারীর শরীর
ভোগ্য পন্যময়
নিজেকে আজ পুরুষ ভাবতে
বড়ই লজ্জা হয়।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 743
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    743
    Shares

লেখাটি ২,০৯৭ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.