আয়েশা-নিগার-রুমানারা, প্রণতি লহো মোর

0

রাহাত মুস্তাফিজ:

আমার হাত-পা এখনো কাঁপছে! উত্তেজনায় টেম্পারেচার বেড়ে গেছে। কান দিয়ে গরম ভাঁপ বেরোচ্ছে। সেই পরিচিত টেনশন, ছেলেরা খেললেও যা হয়। ভারতের প্রথম পাঁচ ওভার ছাড়া পুরো খেলা দেখেছি। এতো অল্প রান, মনে হয়েছিল খুব সহজে মেয়েরা জিতে যাবে। কিন্তু এটা ফাইনাল। ওদের লেগ স্পিনার পুনম যাদব একাই আমাদের টপ অর্ডারের ৪ জনকে ড্রেসিং রুমে পাঠিয়েছে।

এই ভারতের কাছে এক রান, দুই রানে হারার ইতিহাস আছে আমাদের ছেলেদের। আজকেও শেষ বলে দুই রান। মনে পড়ে যাচ্ছিল কেনিয়ার সাথে খেলা ৯৭ সালের আইসিসি ফাইনালের কথা। এক বলে এক রানের টেনশন ছিল সেদিন। হাসিবুল হাসান শান্ত’র পায়ে লেগে বল চলে গেলো উইকেট কিপারের পেছনে। রেডিও ধারাভাষ্য ছিল। আজ তো টিভির বিগ স্ক্রিনে দেখছিলাম। এক্সাইটমেন্ট ছিল তুঙ্গে।

আমাদের নারী প্লেয়াররা ইদানিং ফুটবল-ক্রিকেটে হরহামেশা বড় বড় দলকে শোচনীয়ভাবে পরাজিত করছে। কিন্তু এসব খবর মেইনস্ট্রিম মিডিয়ায় তেমন গুরুত্বসহ প্রচার পায় না। আমাদের মতো ফেইসবুক কাঁপিয়ে দেওয়া তথাকথিত লেখক-ব্লগার-একটিভিস্টদের কাছেও তেমন একটা বিষয় হিসেবে নারী প্লেয়াররা আসে না। এসবই মাইন্ডসেট।

তামিম-সাকিব-সৌম্য-মুস্তাফিজদের আইকনিক ইমেজের কাছে হেরে যায় সালমা-জাহানারা-নিগার-রুমানারা। হারিয়ে দেয় ক্রিকেট বাণিজ্যে লগ্নীকৃত পুঁজি। মুনাফার দৌরাত্ম্যে অন্তরালে পড়ে থাকে নারীদের সাফল্যের খবর। সালমাদের বিজয়ে ফ্ল্যাট-গাড়ি ইত্যাদি দেওয়ার ঘোষণা আসে না গণভবন থেকে।

দরকার নেই এসব লোভের। আমাদের নারী ক্রিকেটারদের দেওয়া হোক ভাল কোচ, খেলার মাঠ, খেলাধুলার পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা, বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ। ছেলেদের মতোই তাঁদের জন্যও সম্মানজনক ও বৈষম্যহীন বেতন স্কেল করা হোক। ছেলেদের আগেই আমাদের নারীরা ক্রিকেট কিংবা ফুটবলে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়ে দেখাবে এ আমি হলপ করে বলতে পারি।

কিছু ছন্দপতন বাদ দিলে আজকে আমাদের ক্রিকেটাররা ঠাণ্ডা মাথায় খেলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। কী অসাধারণ বোলিং করেছে সালমার দল। টানা ছয়বারের এশিয়াকাপ চ্যাম্পিয়ন ভারতকে হারিয়ে দিয়েছে ওরা। অসাধারণ, দুর্দান্ত এবং ঐতিহাসিক দিন আজ।

ইলা বাসায় নেই। একা একা কাচ্চি খাওয়ায় একটুও আনন্দ নেই। আগামী শুক্রবার কাচ্চি হবে। আনন্দ করুন বন্ধুরা। খেলাধুলা ভালবাসুন নারী-পুরুষ, ভিন্নভাবে সমর্থ মানুষ (ডিজএবেল) নির্বিশেষে।

এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশকে অভিনন্দন! জেতার জন্য মরিয়া হয়ে পরা ভারত অধিনায়ক হারমান প্রীত ও তাঁর দলের জন্য শুভকামনা। দারুণ লড়াই করেছো তোমরা। কিন্তু আজ তোমাদের দিন ছিল না।

ইটস টাইম টু সেলিব্রেট। চিয়ার্স!!!! আয়েশা-নিগার-রুমানা আমি তোমাদের খেলার ভক্ত। প্রণতি লহো মোর।

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 75
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    75
    Shares

লেখাটি ১৭৬ বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.