ম্যানিংয়ের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ

manningউইমেন চ্যাপ্টার ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক ডাটাবেসের গোপন নথি উইকিলিকসের কাছে ফাঁস করে দেবার অপরাধে আটককৃত দেশটির সেনা সদস্য ও হ্যাকার ব্র্যাডলি ম্যানিংকে গুপ্তচরবৃত্তি সংক্রান্ত ২০টি অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

এসব অভিযোগে এই সেনা সদস্যের ১৩৬ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

বুধবারই সাজা ঘোষণা করার কথা রয়েছে।

সংবাদদাতাদের বরাত দিয়ে বিবিসির সংবাদে জানানো হয়, ১০ মিনিটেরও কম সময়ের এই শুনানিতে সামরিক পোশাকে আদালতে আসেন ব্র্যাডলি ম্যানিং।

এসময় ছোট ঐ আদালতকক্ষে অল্প কিছু মানুষ উপস্থিত ছিল। ম্যানিংয়ের বিরুদ্ধে আনা ২২ টি অভিযোগের মধ্যে ২০ টিতেই তিনি দোষী সাব্যস্ত হন।

গুপ্তচরবৃত্তির সাতটি অভিযোগে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

উইকিলিকস এর কাছে তথ্য প্রকাশের পর এড্রিন লিমো নামের অন্য একজন হ্যাকারের সাথে কথোপকথনে ম্যানিং তা স্বীকার করেন। কিন্তু লিমো সেই কথোপকথন দেশটির সেনা দপ্তরে জানিয়ে দিলে গ্রেপ্তার হন ম্যানিং। এর আগে সামরিক আদালত ম্যানিংকে ৫২ বছরের জেল হাজতে রেখেছিলো।

এদিকে অবাধ তথ্যাধিকারের জন্য লড়াই করে যাওয়া উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ এই রায়ের বিরোধিতা করেন। ম্যানিংকে ‘বীর’ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি নিয়ে নতুন করে আলোচনা শুরু করার উদ্দেশ্য নিয়েই তিনি এ কাজ করেছেন।

সামরিক আদালতের দাবি, ম্যানিং লাখ লাখ গোপন নথি সামরিক ডাটাবেস থেকে হ্যাক করে উইকিলিকসের কাছে হস্তান্তর করেছেন।

এসব তথ্য উইকিলিকসে প্রকাশের পরে বিশ্বজুড়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। সেসময় উইকিলিকস প্রায় চার লাখ গোপন নথি প্রকাশ করেছিলো। যেটা পৃথিবীর ইতিহাসে বৃহত্তম গোপন নথি ফাঁসের ঘটনা।

শেয়ার করুন:
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.