সঞ্চয়ে জ্বলবে সৌভাগ্যের আগামী দীপ

0

আফসানা কিশোয়ার:

মানুষের প্রাচীনতম অভ্যাসের একটি সম্ভবত সঞ্চয়। বিনিময় প্রথা উঠে যখন ধাতব মুদ্রার প্রচলন হলো তখন থেকে মানুষ মুদ্রাও জমিয়ে রাখার ব্যাপারে সচেতন হলো। দ্রব্যভিত্তিক সময়ে যা ছিল খাবারের চাল জমিয়ে রাখা, পরবর্তী মৌসুমের জন্য বীজ তুলে রাখা, মুদ্রাভিত্তিক সময়ে তা হলো পয়সা জমানো বা তারও পরে টাকা জমানো। মাটির ব্যাংক থেকে, বাঁশের খুঁটি, সিন্দুকে মোহর রাখা, যক্ষ হয়ে সে জিনিস পাহারা দেয়া কত কিই না আমরা জেনেছি।

আধুনিক অর্থনীতিতে মানুষ আর মাটির নীচের হাঁড়িতে অর্থ জমিয়ে রাখে না। নিজের জন্য,বাচ্চার জন্য তারা ব্যাংকে ছোট ছোট সঞ্চয়ের ব্যবস্থা করে,যাকে আমরা চলতি বাংলায় ডিপিএস (ডেপোজিট পেনশন স্কিম) বলি- এ ডিপিএস এই সময়ের প্রয়োজনে নানা নামে আবির্ভূত হয়েছে, বিভিন্নমুখী যুগোপযোগী ইউনিক সুযোগ সুবিধা নিয়ে। নিচের ঘটনাগুলো তেমনি কিছু সত্যের মুখোমুখি করবে আমাদের-

১. রওশন আরা আপা যেমন প্রথম বাচ্চা হতেই নিজের নামে একটা লাখপতি স্কিম করেছিলেন। আজকে যখন বাচ্চাকে নামী ইংলিশ মিডিয়ামে ভর্তি করবেন তখন ভর্তির যাবতীয় খরচের টাকা মেয়াদপূর্ণ স্কিম ভেঙ্গে মিটিয়ে ফেলেন,সময় লাগলো লাখ টাকা পেতে মাত্র তিন বছর, তাও মাসে মাত্র ২৫০০ টাকা করে।
উনি এটা করেছিলেন প্রাইম ব্যাংক এ।

উনার এই আনন্দ এর উৎস জানতে ঘুরে দেখে নিতে পারেন এই লিংকে,
https://www.primebank.com.bd/index.php/home/deposit_schemes

২.নূর ভাই যখন ব্যবসা শুরু করেন তখন তাকে রীতিমতো জোর করে এক পরিচিত প্রাইম ব্যাংকে কর্মরত ব্যাংকার একটি মিলিওনিয়ার স্কিম করান ৮৯১০ টাকা করে,৭ বছরের জন্য।
মেয়াদ শেষে নূর ভাই আজকে ফ্ল্যাট কেনার জন্য যে টাকার ঘাটতি ছিল তা মিটিয়ে ফেলেন এই স্কিমের টাকা দিয়ে।

৩.সবচাইতে মজার ঘটনা মনে হয় রেহানা আপার। ডেলিভারির সাতদিন বাকি অথচ হাতে একদম টাকা নেই, ওমা এর মধ্যে এসএমএস -আপনার প্রাইম ব্যাংকে থাকা স্কিমটি এতো তারিখে ম্যাচিউরড হবে, নির্দিষ্ট দিনে গিয়ে আধ ঘণ্টার মধ্যে স্কিম ভেঙ্গে যখন সেভিং একাউন্টে যখন প্রায় অর্ধ লক্ষ টাকা পান, তখন মনে হয় ভাগ্যিস তিন বছর আগে ব্যাংকার বোনের জোরাজুরিতে ১২৫৫ টাকায় ৩ বছরের জন্য লক্ষ্যপূরণ স্কিমটি করেছিলেন!

রেহানা আপা যাওয়ার সময় তাই আরেকটা ফর্ম নিয়ে যান CSS বা কন্ট্রিবিউটরি স্কিমের,মনে মনে ভেবে ফেলেন নতুন যে আসছে তাকে উপলক্ষ করে একটি ৫০০০ টাকার স্কিম করবেন ৫ বছরের জন্য, ব্যাংকার বোনকে অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে দোয়া করেন রেহানা আপা।

৪.মিঠু ভাই একদিন বলেই ফেলেন, আমার মেয়ে হলো তার জন্য আপনারা যে উপহার পাঠালেন সেখানেও ব্যাংকিং! এই যে আপনার ভাবী ফর্ম ফিলাপ করে পাঠিয়েছে, করে দেন “নবাগত” ৪০০০ টাকা করে ১০ বছরের জন্য। কাউন্টারে থাকা অফিসার হাসতে থাকে মিঠু ভাই এর কথায়।

৫. ভাই কাঁদবেন না, না আপা এই ডাবল বেনিফিট না থাকলে আজকে আপনার ভাবীর কিভাবে চিকিৎসা করাতাম! মোসাদ্দেক ভাই এর ৫ লাখ টাকার ডাবল বেনিফিট আজকে ১০ লাখ টাকা হয়েছে, আমরা মোসাদ্দেক ভাইকে টাকা তুলে দেই, আগামীকাল মুম্বাইতে ফ্লাইট।

এভাবে ছোট বড় সঞ্চয়ের গল্পে ভরে উঠে আমাদের প্রাত্যহিক ব্যাংকিং এর লেনদেনের জগৎ।
অভিযোগ যে একেবারে নেই তা নয়, কেউ কেউ বলে আগে তো ডাইরেক্ট স্কিমের একাউন্টে টাকা দেয়া যেত, এখন সেভিংস বা কারেন্ট একাউন্ট মাস্ট কেন? বলি, আপনার আমানত আপনিই যেন পান তা নিশ্চিত করতেই সেভিং বা কারেন্ট একাউন্ট আবশ্যক।

অনেকে বলে, ইন্টারেস্ট রেট কম-না রে ভাই, আপনি যখন প্রতিদিনের চাল থেকে একমুঠ সরান তখন একমণের স্বপ্ন না দেখে বরং বিপদে কাজে লাগানোর যে আশা করেন, স্কিম ও তাই ফোর্স সেভিংস, টাকা তা না হলে হাতে এলেই খাওয়া হয়ে যাবে।

নিজের এবং পরিচিতদের সঞ্চয়ের অভ্যাস গড়ে তুলতে উদ্বুদ্ধ করুন। আপনার নিকটস্থ প্রাইম ব্যাংকের শাখায় আসুন। জেনে নিন আরও অনেক প্রোডাক্টের বিস্তারিত, স্কিমের বিপরীতে কিভাবে প্রয়োজনে ঋণ নেয়ার ব্যবস্থাও করা যাবে।

www.primebank.com.bd এখান থেকে দেখে নিন আপনার কাছাকাছি শাখার ঠিকানা।

আজকের সঞ্চয়
কমাবে আগামীর
বড় খরচের ভয়।

হ্যাপি ব্যাংকিং….

লেখাটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন:
  • 175
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    175
    Shares

লেখাটি 0 বার পড়া হয়েছে


উইমেন চ্যাপ্টারে প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। এই সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় উইমেন চ্যাপ্টার বহন করবে না। উইমেন চ্যাপ্টার এর কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না।

Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.