‘সবারে বাসরে ভালো, নইলে মনের কালো ঘুচবে না রে’

রীতা রায় মিঠু:

১৪ই ফেব্রুয়ারি, আমেরিকার আকাশে বাতাসে প্রিয়ার চোখে প্রিয়র চোখে প্রিয়জনের হাসিতে ভালোবাসা লুটোপুটি খাবে, ছুটোছুটি করবে, সুরের তালে নাচের ছন্দে ভেসে ভেসে বেড়াবে, উড়ে উড়ে বেড়াবে।
ভালোবাসাময় দিন, আগের দিন রাত বারোটা পর্যন্ত সুপার স্টোর, বিপনী বিতান, শপিং মল জেগে থাকবে। জেগে থাকবে ভালোবাসার মানুষদের জন্য, যারা শেষ মুহূর্তেও ছুটে আসবে প্রিয়’র জন্য উপহার কিনতে। আজকের দিনে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হবে গোলাপ, চকোলেট, পারফিউম, জুয়েলারি। উপহার সামগ্রীর নাম শুনেই বোঝা যায়, এসব কিছুর ক্রেতা পুরুষ, কিনবে নারীর জন্য।

হ্যাঁ, ভালোবাসা নর-নারী, বুড়ো-বুড়ি সকলের জন্যই সমান অর্থ বহন করলেও ভ্যালেন্টাইন ডে’র ভালোবাসার প্রকাশ খুব বেশি মূর্ত হয়ে উঠে নারীর প্রতি নরের ভালোবাসায়। কারণ ভালোবাসা দিবস বা ভ্যালেন্টাইন ডে নামকরণই হয়েছে প্রেমিক পুরুষ ভ্যালেন্টাইনের নামানুসারে।

** তৃতীয় শতকে রোমের প্রধান পুরোহিত ছিলেন ভ্যালেন্টাইন নামের এক সাধু। ওই সময় সম্রাট ক্লডিয়াসের (দ্বিতীয়) ধারণা জন্মায় যে, বিবাহিত পুরুষের চেয়ে অবিবাহিত পুরুষই তার সেনাবাহিনীর জন্য বেশি উপযুক্ত। কোনো পিছুটান থাকবে না অবিবাহিত সেনাদের মনে। ফলে তারা অনেক বেশি দক্ষতা অর্জন করতে পারবে নিজেদের পেশায়। তার সেনাবাহিনীও হয়ে উঠবে অত্যন্ত চৌকস। তাই তিনি তার সেনাবাহিনীতে তরুণদের জন্য বিবাহ নিষিদ্ধ ঘোষণা করে আইন জারি করে দিয়েছিলেন।

প্রধান পুরোহিত ভ্যালেন্টাইন এই আইনটিকে খুবই অনৈতিক ও অযৌক্তিক মনে করেছিলেন। তিনি গোপনে অনেক তরুণ-তরুণীর বিয়ে নিজে উপস্থিত থেকে সম্পন্ন করেছিলেন। একসময় সম্রাটের কানে পৌঁছে যায় এই সংবাদ, সম্রাটের তৈরি আইন ভঙ্গ করছেন পুরোহিত, এই মর্মে সম্রাট অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হোন ভ্যালেন্টাইনের উপর। সম্রাট ভ্যালেন্টাইনকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করেন।

কারাগারে বন্দী ভ্যালেন্টাইনকে জেলারের তরুণী কন্যা প্রায়ই দেখতে আসতো। মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত ভ্যালেন্টাইন আসন্ন মৃত্যুর কথা ভুলে যান, তাঁর হৃদয়ে বেজে ওঠে ভালোবাসার সুর। ধীরে ধীরে তিনি জেলারের তরুণী কন্যার প্রেমে পড়ে যান। বন্দী পুরুষ আর মুক্ত নারীর চোখের তারায় তারায় রচিত হতে থাকে ভালোবাসার কবিতা, চোখের তারায় ফুটে উঠতে থাকে স্বর্গীয় প্রেমের ফুল।

দণ্ড কার্যকরের দিন এগিয়ে আসে, এবং মৃত্যুদন্ডের ক্ষণ এসে উপস্থিত হয়। চোখের তারায় তারায় রচিত প্রেমের দস্তখত রেখে যান ভ্যালেন্টাইন প্রেয়সীকে লেখা একটি মাত্র চিঠিতে। মৃত্যুর আগে ভ্যালেন্টাইন তার তরুণী প্রেমিকাকে উদ্দেশ্য করে একটি চিঠি লিখেছিলেন। নিচে দস্তখত করেছিলেন ‘তোমার ভ্যালেন্টাইন’ বলে। এই একটিমাত্র সম্বোধন,’ভ্যালেন্টাইন’ যা আজও সব তরুণ-তরুণী, কিশোর কিশোরী বুড়ো-বুড়ির হৃদয়ে ঝঙ্কার তোলে।

ইতিহাসের পাতা থেকে তুলে আনা চরিত্রদের মাঝে কিছু কাল্পনিক চরিত্র থাকে, প্রিয় চরিত্রগুলোকে নায়ক-নায়িকা বানাতে তাঁদের সম্পর্কে মনের মাধুরী মেশানো বানানো গল্প থাকে। হতে পারে ভ্যালেন্টাইন ডে’র গল্পটিও কাল্পনিক, তবে পুরোহিত ভ্যালেন্টাইন সেই তরুণ সেনাদের কাছে মহান ছিলেন, সম্রাটের আদেশ অমান্য করে যাদের বিবাহ তিনি সম্পন্ন করেছিলেন, যে কারণে ভ্যালেন্টাই্ন মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছিলেন।

সেই তরুণ সেনাদের মুখেই হয়তো এই প্রেমকাহিনী রচিত হয়েছিল, সেটাই ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যুর পর বাতাসের কণায় কণায় ছড়িয়ে পড়েছিল! ভ্যালেন্টাইন ডে’র গল্পে ধোঁয়াশা থাকতে পারে, ভিন্ন মত থাকতে পারে, কিন্তু ইতিহাসে ভ্যালেন্টাইনের নাম লেখা আছে। ইতিহাস বলে, ভ্যালেন্টাইন ছিলেন অপরের প্রতি সহানুভূতিশীল, সাহসী এবং রোমান্টিক। ভ্যালেন্টাইনকে মৃত্যুর পর ‘সেইন্ট’(মহৎপ্রাণ সাধুদের মৃত্যুর পরে চার্চ থেকে ‘সেইন্ট’ ঘোষণা করা হয়) ঘোষণা করা হয়। ইংল্যান্ড ও ফ্রান্সের সবচেয়ে জনপ্রিয় সেইন্টদের মধ্যে ভ্যালেন্টাইন ছিলেন অন্যতম।

সত্যি মিথ্যে যাই হোক, সাধু ভ্যালেন্টাইনকে নিয়ে রচিত প্রেমের গল্পে, গল্পটা তো ভালোবাসার। ভালোবাসার চেয়ে মূল্যবান কিছুতো আজও সৃষ্টি হয়নি জীবকূলের মাঝে।

ফেব্রুয়ারিতে ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপিত হয়, অন্যতম কারণ হচ্ছে, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময় ভ্যালেন্টাইনের মৃত্যু হয়েছিল। এই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতেই ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময় ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন করা শুরু হয় (সময়টা ছিল ২৭০ এ.ডি)।
তারও অনেক পরে, ফেব্রুয়ারির ১৪ তারিখ ভ্যালেন্টাইন ডে হিসেবে নির্বাচিত হয়। ফ্রান্স ও ইংলান্ডে সাধারণ বিশ্বাস ছিল যে, ফেব্রুয়ারির ১৪ তারিখ পাখিকুলের ‘মেটিং সিজন’ শুরু হয়। তাই ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখটিকে ‘ডে ফর রোমান্স’ হিসেবে ভ্যালেন্টাইনস ডে নির্বাচন করা হয়।

ভ্যালেন্টাইন ডে উপলক্ষে উপহার দেয়ার রীতির শুরু অষ্টাদশ শতাব্দীতে। সপ্তদশ শতাব্দীতে গ্রেট ব্রিটেনে ভ্যালেন্টাইনস ডে স্বতঃস্ফূর্তভাবে পালিত হতো। অষ্টাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময় বন্ধু বা সমাজের সর্বস্তরের ভালোবাসার জনদের মধ্যে ছোটখাটো উপহার, হাতে লিখা ছোট ছোট নোটস আদান প্রদান শুরু হয়। এই শতাব্দীর শেষের দিকে ছাপাখানায় মুদ্রিত কার্ডের প্রচলন শুরু হয়। সরাসরি ভালোবাসার কথা জানানো যেখানে সামাজিকভাবে নিরুৎসাহিত করা হতো, ছাপাখানায় মুদ্রিত ‘ভালোবাসি’ কার্ড সকল ভালোবাসানুরাগীদের ভালোবাসা প্রেম অনুরাগ প্রকাশ সহজ করে দেয়।
আমেরিকায় ১৭০০ সাল পর্যন্ত হাতে লেখা ভ্যালেন্টাইন নোটের প্রচলন ছিল। ১৮৪০ সালের দিকে এস্থার এ হাউল্যান্ড নামের ভদ্রলোক সর্বপ্রথম ব্যাপক আকারে ভ্যালেন্টাইন কার্ড বাজারজাত করে।

ভ্যালেন্টাইন ডে’তে শুধু যে পুরুষ ভ্যালেন্টাইনগণই উপহারের মাধ্যমে ভালোবাসা প্রকাশ করে, তা নয়। মেয়ে ভ্যালেন্টাইনগণও পিছিয়ে থাকে না। নারীর মন তো বারো মাসই ভালোবাসায় পূর্ণ থাকে, মনের মতো পাত্র পেলে ভালোবাসা দিয়ে পাত্র কানায় কানায় পূর্ণ করে দিতে নারীর জুড়ি মেলা ভার। তারপরেও ভ্যালেন্টাইন ডে’র দিনটিতে নারীও উপহার কিনে তার ভালোবাসার মানুষটির জন্য। আর কিছু নাহোক, “তোমায় ভালোবাসি’ লেখা কার্ড কিনে প্রিয়কে ভালোবাসার কথা জানাতে ভুল করে না।

গ্রিটিং কার্ড এসোসিয়েশনের হিসাব অনুসারে আমেরিকায় আনুমানিক এক বিলিয়ন ভ্যালেন্টাইন কার্ড প্রতি বছর বিক্রি হয়ে থাকে। শতকরা ৮৫ ভাগ ভ্যালেন্টাইন কার্ডের ক্রেতা হচ্ছে মেয়েরা। আমেরিকা ছাড়াও ভ্যালেন্টাইনস ডে বিপুল সমারোহে উদযাপিত হয় কানাডা, মেক্সিকো, ইংল্যান্ড, ফ্রান্স ও অস্ট্রেলিয়ায়।

এসব পরিসংখ্যানবিদেরা অবশ্য জানে না, হালে বাংলাদেশেও দারুণ উৎসাহে পালিত হয় ভ্যালেন্টাইন’স ডে। দিন বদলে গেছে, যুগ বদলে গেছে। আমাদের আগের প্রজন্মে, অর্থাৎ আমাদের বাবা-মায়ের আমলে কন্যা কিশোরী হয়ে উঠার সাথে সাথে বিয়ে দিয়ে স্বামীর সংসারে পাঠিয়ে দিত, কিশোরী জানতেই পারতো না প্রেম-ভালোবাসা কী জিনিস, স্বামীও ভাবতে পারতো না বিবাহিতা স্ত্রীকেও ‘ভালোবাসি’ বলে আন্দোলিত করা যায়!

যে সমাজে স্বামী তার স্ত্রীকে ‘ভালোবাসি’ কথা মুখ ফুটে বললে সমাজে সে ‘স্ত্রৈন, ভেড়া পুরুষ’ বলে বিবেচিত হতো, সেই সমাজ আজ বদলে গেছে।
বর্তমান সমাজে ভ্যালেন্টাইন ডে উদযাপিত হয়, যদিও শহরকেন্দ্রিক তবুও কম কথা নয়। মানুষ আজ শহরমুখি, তাই ভালোবাসা সকলের মাঝেই ছড়িয়ে পড়ছে। আজকের সময়ে আমাদের প্রজন্মের প্রৌঢ় স্বামী তার মাঝবয়সী স্ত্রীর হাতে গোলাপ তুলে দিতে লজ্জা পায় না, স্ত্রী সকলের আড়ালে বুড়ো স্বামীর হাতে চায়ের পেয়ালা তুলে দিয়ে ঠিকই বলে, “আজ নাকি ভালোবাসা দিবস। এই নাও, চায়ের মধ্যে ভালোবাসা মিশিয়ে এনেছি”। তরুণ তরুণীদের কথা বাদ দিলাম, ভালোবাসা দিবস তাদেরই জন্য। ভালোবাসুক ওরা, প্রাণ-মন ভরে ভালোবাসুক সবাই সবাইকে।

ভালোবাসা এমন এক অনুভূতি, যা সবার সঙ্গে বিনিময় করা যায়। প্রেমিক তার প্রেমিকাকে ভালোবাসবে, প্রেমিকা ভালোবাসবে প্রেমিককে, স্বামী তার স্ত্রীকে, স্ত্রী ভালোবাসবে স্বামীকে, বাবা-মা ভালোবাসবে সন্তানকে, গৃহস্বামী ভালোবাসবে গৃহকর্মে নিয়োজিত পরিচারক-পরিচারিকাকে, পরিচারক-পরিচারিকা ভালোবাসবে গৃহস্বামীকে। মনিব ভালোবাসবে তার পোষা কুকুর বা বিড়ালকে, খুকী ভালোবাসবে তার আদরের ময়না পাখিটাকে, খোকা ভালোবাসবে তার রাবারের ফুটবলকে, আর্জেন্টিনার সমর্থক ভালোবাসবে ব্রাজিল সমর্থককে, ব্রাজিল ভালোবাসবে আর্জেন্টিনাকে, মিত্র ভালোবাসবে শত্রুকে, সবাই ভালোবাসবে সবাইকে, এমনটা ভাবতেই ভালো লাগে।

কবিগুরু সেই কবে কোনকালে গেয়েছিলেন_ ‘ভালোবাসি, ভালোবাসি, এই সুরে কাছে-দূরে, জলে-স্থলে বাজাই বাঁশি।’ ঠিক এই ভালোবাসার সুরটি পৃথিবীজুড়েই বাজে বছরের একটি দিনে, ১৪ ফেব্রুয়ারিতে।অথবা অতুলপ্রসাদের সুর, ” সবারে বাসরে ভালো, নইলে মনের কালো ঘুচবে না রে”।

ফুল তো বিক্রি হয় সারা বছরই, কিন্তু ফেব্রুয়ারির ১৪ তারিখে আমেরিকাসহ বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে যত গোলাপ বিক্রি হয়, সারা বছরের বিক্রীত গোলাপের চেয়েও সংখ্যায় অনেক অনেক বেশি। শুধু গোলাপই নয়, গোলাপের সঙ্গে কার্ড, ক্যান্ডি, নানা রকম মনোহারি উপহার। সবাই কেনে। কারণ একটাই, এই একটি দিন উপলক্ষে ছোট-বড়, তরুণ-তরুণী, কিশোর-কিশোরী বুড়ো-বুড়ি বস-সহকর্মি, বন্ধু-বান্ধবী সবাই আবেগতাড়িত হয়, পরস্পর শুভেচ্ছা-সম্ভাষণে দিনটিকে ভরিয়ে তুলতে চায়, যার রেশ পরের দিন, তারপরের দিন, তারও পরের দিন পর্যন্ত সবাইকে মানসিকভাবে উৎফুল্ল রাখে, দুশ্চিন্তামুক্ত রাখে।

আজ আমার কাজের স্কেজিউল বিকেল তিনটা থেকে রাত দশটা অবধি। এতো রাত পর্যন্ত কাজে থাকতে ভাল লাগার কথা নয়, কিন্তু আমার খারাপ লাগছে না। কারণ রাত দশটা অবধি আমি মানুষের ঢল দেখতে পাবো ওয়ালমার্টে। শিশু তরুণ কিশোর অল্প বয়সী পুরুষ, বয়স্ক পুরুষেরা ছুটে ছুটে আসবে যার যার প্রিয়জনের জন্য ফুল, চকোলেট বেলুন কার্ড জুয়েলারি কিনতে। আমার রেজিস্টারে যে পুরুষেরা আসবে, তাদের সকলের চোখের তারায় দেখতে পাব আলোর দ্যুতি, একটু একটু করে ঝিলিক দিবে। সবাই দেখতে পাবেনা এই ঝিলিক, আমার দেখার চোখ আছে তাই আমি দেখতে পাবো।

মেয়েরাও আসবে আজ, তবে কেউই হুড়মুড়িয়ে আসবে না। খুব শান্ত পায়ে, ধীর গতিতে এদিক ওদিক ঘুরে ঘুরে দেখবে, আর এর ফাঁকেই টুক করে প্রিয় জিনিসটি শপিং বাস্কেটে তুলে ফেলবে আমাদের নজর এড়িয়ে।
মেয়েরা সংসারের জিনিস কিনে সবাইকে জানান দিয়ে, বাচ্চার জিনিস কিনে সবাইকে জানান দিয়ে, কিন্তু ভালোবাসার মানুষটির জন্য ভালোবাসার উপহার কিনে খুব গোপনে। কেন গোপনে কিনে তা এক রহস্য। আমি নিজেও যা কিছু কিনি, খুব গোপনে, কেমন যেন লজ্জা লজ্জা লাগে। হয়তো নারীর এই লজ্জাটুকুই তার অনুরাগ, ভালোবাসার অনুভব।

লেখাটি শুরু করেছিলাম, আগামীকাল দিয়ে। শেষ করছি আজ দিয়ে। কারণ আজই বর্তমান, বর্তমানই সত্য। অতীত আমাদের পাঠক্রম, যা থেকে শিক্ষা নিয়ে বর্তমানকে সাজাই।আগামী আমাদের আশা, যার পানে তাকিয়ে বর্তমানের পথ পাড়ি দেই

সবাইকে ভালোবাসি, সবার প্রতি ভালোবাসা। হ্যাপি ভ্যালেন্টাইন’স ডে।

শেয়ার করুন:
  • 416
  •  
  •  
  •  
  •  
    416
    Shares
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.